একটা কঠিন পরিবেশের পরীক্ষা

15-02-2023

ছোট থেকেই আমি সবসময় সমাজের দ্বারা প্রভাবিত হতাম। আমি আমার সব কিছু অন্যান্য মানুষদের মতই করতে পছন্দ করতাম। আমার চারপাশের লোকেরা খ্রীষ্টান ছিল, আর আমিও তাই ছিলাম। কিন্তু যখন আমি ঈশ্বর সম্বন্ধে জানতে এবং তথ্য অনুসন্ধান করতে চাইলাম, আমি কিছু প্রশ্ন ভাবতে শুরু করলাম: কেন আমরা ঈশ্বরে বিশ্বাস করি? আমরা কীভাবে ঈশ্বরকে জানতে পারি? এই অন্ধকার ও মন্দ পৃথিবীতে, সত্য কোথায় রয়েছে? মানুষ কেন জীবনে কষ্ট পায়? এই প্রশ্নগুলো একের পর এক রহস্যের মত ছিল এবং আমি কখনওই উত্তর খুঁজে পাইনি। সৌভাগ্যক্রমে, আমি সর্বশক্তিমান ঈশ্বরের অন্তিম সময়ের সুসমাচার গ্রহণ করার পর, আমি সর্বশক্তিমান ঈশ্বরের বাক্যে এই সমস্ত বিভ্রান্তিকর বিষয়গুলোর উত্তর খুঁজে পেলাম। আমি জানলাম যে বিশ্বাসে মানুষ ঈশ্বরের জ্ঞান, আত্মআত্মসমর্পণ এবং ঈশ্বরের প্রতি ভালোবাসা অর্জন করতে পারে ঈশ্বরের বাণী এবং কাজকে অনুভব করে। আমি আরও শিখলাম যে অন্তিম সময়ে, ঈশ্বর বিচার, শাস্তি, পরীক্ষা এবং পরিমার্জনা ব্যবহার করেন মানুষকে নিখুঁত করতে এবং তাদের দুর্নীতি শুদ্ধ করতে। তাই, আমি আমার উপর পরীক্ষার জন্য প্রার্থনা করলাম। এমনকি আমি এটাও চাইলাম যে আমি চীনে জন্মগ্রহণ করতাম যাতে আমি চৈনিক ভ্রাতা ও ভগিনীদের মত সেই শয়তানী শাসনব্যবস্থার অত্যাচার ও নিপীড়ন সহ্য করতে পারতাম, এবং আমি শক্তিশালী সাক্ষ্য দিতে পারতাম এবং কষ্টের মধ্য দিয়ে ঈশ্বরের দ্বারা জয়ী হতে পারতাম। একবার আমার সেই জাগরণ হল, শীঘ্রই আমার সাথে কিছু ঘটল।

মহামারীর কারণে, আমার কাজের কোম্পানি গুটিয়ে গেল আর আমি আমার চাকরি হারালাম। আমি অন্য অনেক কোম্পানিতে কাজ খোঁজার চেষ্টা করলাম, কিন্তু আমাকে কখনও কোনও সাক্ষাৎকারে ডাকা হলনা। সময়ের সাথে সাথে সবকিছু আরও খারাপ হতে থাকল। আমার কোনও আয় বা খাবার কেনার মত টাকা ছিল না। আমি কি করব বুঝতে পারছিলাম না। তার আগে, আমি অনলাইন সমাবেশে যোগ দিতাম, সর্বশক্তিমান ঈশ্বরের বাণী পড়তাম, গির্জার চলচ্চিত্র দেখতাম এবং অন্যদের সাথে আমার দায়িত্ব পালন করতাম কাজ শেষ করার পর। এগুলো আমার কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ছিল এবং আমি মনে করতাম যে বিশ্বাস অনুশীলনের জন্য সেটা একটা দুর্দান্ত উপায়। কিন্তু এখন যখন আমি এই অগ্নিপরীক্ষার মধ্য দিয়ে যাচ্ছিলাম, আমি ভাবলাম যেহেতু আমি প্রকৃত ঈশ্বরে বিশ্বাস করি, তিনি অবশ্যই আমার যত্ন নেবেন এবং আমাকে সাহায্য করবেন। আমি ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনাও করলাম,তিনি যেন আমাকে একটা চাকরি দেন। আমি ভেবেছিলাম যেহেতু আমি একজন বিশ্বাসী ছিলাম, তাই আমি যাই চাইব ঈশ্বর আমাকে তাই দেবেন, কিন্তু ঈশ্বর সেটা করলেন না। আমি কিছুটা দুর্বলতা এবং বিভ্রান্তি অনুভব করেছিলাম। প্রতিদিন আমি ঈশ্বরের বাণী পড়তাম এবং প্রার্থনা করতাম, তাহলে কেন ঈশ্বর আমাকে সাহায্য করছিলেন না যখন আমি কষ্ট পাচ্ছিলাম? এটা যখন আমার মধ্যে এল, তখন আমি ইয়োবের কথা ভাবলাম। যখন সে তার সমস্ত সম্পত্তি হারিয়েছিল, তখনও সে তার সাক্ষ্যে অটল থাকতে পেরেছিল। ইয়োব বিশ্বাস করত যে, ভালো ও মন্দ সবকিছুরই ঈশ্বর ব্যবস্থা করেছেন এবং সে কখনও অভিযোগ করেনি। সে ঈশ্বরকে ধন্যবাদ জানিয়েছিল তাকে বস্তুগত আশীর্বাদ দেওয়ার জন্য, এবং ঈশ্বর যখন সেই আশীর্বাদগুলো ফিরিয়ে নিয়েছিলেন, তখনও সে যিহোবা ঈশ্বরের নামে প্রশংসা করেছিল। সত্যিই ইয়োবের বিশ্বাস এবং প্রার্থনা সম্পর্কে চিন্তা করে, আমি বুঝলাম আমার বিশ্বাস কতটা নগণ্য ছিল, সেটার সঙ্গে ইয়োবের বিশ্বাসের তুলনা হয় না। আমি জানতাম আমার উচিত ইয়োবের উদাহরণ অনুসরণ করা, এবং তাঁর মত ঈশ্বরের শাসন ও ব্যবস্থার কাছে আত্মসমর্পণ করা। কিন্তু খাওয়ার জন্য পর্যাপ্ত কিছু না থাকার সম্ভাবনার কথা চিন্তা করে, আমি কি করব বুঝতে পারছিলাম না। সবচেয়ে বড় কথা, মাত্র তিন মাস আগে আমি সর্বশক্তিমান ঈশ্বরকে গ্রহণ করেছিলাম, এবং ঈশ্বরের বাণীর অনেক কিছুই বুঝতাম না। আমি আমার মোবাইল ডেটার কোটা শেষ করে ফেলার কারণে অনলাইন সমাবেশে যোগ দিতে পারিনি। আমি যা করতে পারতাম তা হল ঈশ্বরের কাছে অনুরোধ, “ঈশ্বর, আমি অনাহারে মরব কি না তা তোমার হাতে। আমি মরে গেলেও তোমার শাসন ও ব্যবস্থার কাছে বশ্যতা স্বীকার করব।” এইভাবে প্রার্থনা করা আমাকে একটা শান্তির অনুভূতি দিয়েছিল। সেই দিনই, আমার প্রার্থনার পরে, আচমকা একটা ঘটনা ঘটল। আমার কাকা ফোন করে আমাকে জিজ্ঞাসা করলেন আমি তাঁর নির্মাণ কোম্পানিতে কাজ করতে চাই কিনা। যদিও নির্মাণ কাজ ক্লান্তিকর, এক সপ্তাহের কাজের পরে কিছু সময়ের জন্য নিজেকে সাহায্য করার মত যথেষ্ট অর্থ আমি উপার্জন করলাম। আমি সত্যিই ঈশ্বরকে ধন্যবাদ দিলাম! এই রকম অবস্থায় আমি ভাবতে লাগলাম ঈশ্বর এটা তখন কেন করলেন না যখন আমি তাঁকে বলেছিলাম একটা চাকরি খুঁজে পেতে আমাকে সাহায্য করতে, কিন্তু যখন আমি প্রার্থনা করলাম যে আমি আত্মসমর্পণ করতে প্রস্তুত, তিনি আমাকে সাহায্য করলেন।

তারপর একদিন, আমি ঈশ্বরের কিছু বাণী পড়লাম যা আমাকে এই বিষয়ে কিছুটা উপলব্ধি দিল। সর্বশক্তিমান ঈশ্বর বলেছেন, “এত মানুষ আমার প্রতি শুধু এই বিশ্বাস রাখে যে আমি তাদের সুস্থ করতে পারি। কত মানুষ আমার প্রতি শুধু এই বিশ্বাস রাখে যে আমি তাদের দেহ থেকে কলুষিত আত্মাকে বিতাড়িত করতে পারি এবং কত মানুষ বিশ্বাস করে যে তারা আমার থেকে শুধু শান্তি ও আনন্দ পেতে পারে। কত মানুষ আমার প্রতি বিশ্বাস রাখে শুধুমাত্র অধিকতর বস্তুগত সম্পদের আশায়। কত মানুষ আমার প্রতি বিশ্বাস রাখে শুধুমাত্র এই জীবন শান্তিতে অতিবাহিত করার আশায় এবং ভবিষ্যৎ পৃথিবীতে সুরক্ষিত থাকার আশায়। কত মানুষ আমার প্রতি শুধু নরকের যন্ত্রণা এড়িয়ে যাওয়ার জন্য এবং স্বর্গের আশীর্বাদ লাভের জন্য বিশ্বাস রাখে। কত মানুষ শুধুমাত্র সাময়িক আরামের জন্য আমাকে বিশ্বাস করে, কিন্তু পরলোকের জন্য কিছুই অর্জন করতে চায় না। যখন আমি মানুষের উপর আমার ক্রোধ বর্ষণ করেছিলাম ও তাদের অধিকৃত সব আনন্দ ও শান্তি কেড়ে নিয়েছিলাম, মানুষ তখন সন্দিহান হয়ে পড়েছিল। আমি যখন তাদের নরকের যন্ত্রণা দিয়েছিলাম এবং স্বর্গের আশীর্বাদ ফিরিয়ে নিয়েছিলাম তখন মানুষের লজ্জা ক্রোধে পরিণত হয়েছিল। মানুষ যখন আমাকে নিরাময় করতে বলেছিল, আমি তাতে কোনো মনোযোগ দিইনি এবং তার প্রতি আমার ঘৃণার উদ্রেক হয়েছিল; মানুষ আমাকে ত্যাগ করে তার বদলে জাদু ও ক্ষতিকর ওষুধের পথ গ্রহণ করেছিল। যখন মানুষ আমার কাছে যা যা দাবি করেছিল সেই সব আমি কেড়ে নিয়েছিলাম, প্রত্যেকে চিহ্নমাত্র না রেখে অদৃশ্য হয়ে গিয়েছিল। তাই আমি বলি, মানুষ আমাকে বিশ্বাস করে কারণ আমি খুব বেশি অনুগ্রহ করি এবং আমার থেকে তাদের অনেক কিছু পাওয়ার আছে(বাক্য, খণ্ড ১, ঈশ্বরের আবির্ভাব ও তাঁর কার্য, তুমি বিশ্বাস সম্পর্কে কী জানো?)। “এটি আশীর্বাদ গ্রহীতা ও দাতার মধ্যে একটি সম্পর্ক। স্পষ্টভাবে বলতে গেলে, এটি কর্মচারী এবং নিয়োগকর্তার সম্পর্কের অনুরূপ। কর্মচারী শুধুমাত্র নিয়োগকর্তা প্রদত্ত পুরস্কার পাওয়ার জন্যই কাজ করে। এমন সম্পর্কের মধ্যে কোনো স্নেহ নেই, আছে শুধু লেনদেন। কোনো ভালবাসার আদানপ্রদান নেই, শুধুমাত্র দাক্ষিণ্য এবং করুণা। কোন বোঝাপড়া নেই, আছে শুধু চাপা অসন্তোষ এবং প্রতারণা। কোন অন্তরঙ্গতা নেই, আছে শুধুমাত্র অলঙ্ঘনীয় এক দূরত্ব। এখন যখন বিষয়গুলি এই জায়গায় এসে দাঁড়িয়েছে, কে এই ধারাকে বিপরীতমুখী করতে পারে? আর, এই সম্পর্ক যে কতটা ভয়াবহ হয়ে উঠেছে সে কথা সত্যকার অর্থে বোঝার ক্ষমতা কতজনের আছে? আমি বিশ্বাস করি যে মানুষ যখন আশীর্বাদ পাওয়ার আনন্দে নিজেকে নিমজ্জিত করে, তখন কেউ কল্পনাও করতে পরে না যে ঈশ্বরের সাথে এই ধরনের সম্পর্ক কতটা বিব্রতকর এবং কুৎসিত(বাক্য, খণ্ড ১, ঈশ্বরের আবির্ভাব ও তাঁর কার্য, পরিশিষ্ট ৩: মানুষ একমাত্র ঈশ্বরের ব্যবস্থাপনার মধ্যেই উদ্ধার পেতে পারে)। ঈশ্বরের বাণী আশীর্বাদের জন্য আমাদের উদ্দেশ্য এবং দুর্নীতিগ্রস্ত অবস্থা প্রকাশ করে। অনেক মানুষ আসলে তাদের বিশ্বাসের মধ্যে ঈশ্বরের সান্ত্বনা সন্ধান করছে। তারা কোনো দুর্ভাগ্য ভোগ করতে চায় না এবং তারা আশা করছে যে তাদের চাওয়া সবই ঈশ্বর তাদের দেবেন, কিন্তু তারা কখনওই ভাবে না তারা ঈশ্বরকে সন্তুষ্ট করছে কিনা। তাদের জন্য, ঈশ্বরের কাছে আত্মসমর্পণ এবং তাঁর দাবি পূরণ করা গুরুত্বপূর্ণ নয়। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল ঈশ্বর তাদের তাই দেন তারা যা চায়। প্রভুতে আমার বিশ্বাসে, যাজকরা এবং প্রবীণরা প্রায়ই প্রচার করত যে আমাদের ঈশ্বরের আশীর্বাদের জন্য প্রার্থনা করা উচিত, কিন্তু এই ধরনের সাধনা ঈশ্বরের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ককে কলঙ্কিত করে। ঠিক যেমন ঈশ্বরের বাণী প্রকাশ করে: “ঈশ্বরের সাথে মানুষের সম্পর্ক নিছক এক নগ্ন স্বার্থের। এটি আশীর্বাদ গ্রহীতা ও দাতার মধ্যে একটি সম্পর্ক। স্পষ্টভাবে বলতে গেলে, এটি কর্মচারী এবং নিয়োগকর্তার সম্পর্কের অনুরূপ। কর্মচারী শুধুমাত্র নিয়োগকর্তা প্রদত্ত পুরস্কার পাওয়ার জন্যই কাজ করে। এমন সম্পর্কের মধ্যে কোনো স্নেহ নেই, আছে শুধু লেনদেন।” ঈশ্বরের বাণী হল সত্য, তাই আমি নিজেকে নিয়ে ভাবলাম। আমি দেখলাম যে আমার বিশ্বাসও ছিল শুধু ঈশ্বরের আশীর্বাদ অর্জনের জন্য। সেই উদ্দেশ্য আমার হৃদয়ের গভীর গহ্বরে লুকিয়ে ছিল। আমি ভেবেছিলাম যে ঈশ্বর যেহেতু পৃথিবীতে প্রত্যাবর্তন করেছেন, তিনি অবশ্যই প্রত্যেককে আশীর্বাদ করবেন যারা তাঁকে গ্রহণ করবে। আমি ভেবেছিলাম যেহেতু আমি ঈশ্বরের অন্তিম সময়ের কাজকে গ্রহণ করেছি, আশীর্বাদ বেশি দূরে থাকতে পারে না, যে আমার জীবন আরও ভাল হতে চলেছে। যাইহোক, জিনিসগুলো সেই ভাবে পরিণত হয়নি। আমি কষ্টের মধ্যে পড়েছিলাম এবং আমার জীবন আরও কঠিন হয়ে গিয়েছিল, তাই আমি দুর্বল ও নেতিবাচক হয়ে গিয়েছিলাম। আমার কোনও আয় ছিল না, আমার খাবার ছিল না, আমি অনলাইন সমাবেশে যোগ দিতে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারিনি। কীভাবে আমি আমার বিশ্বাসের অনুশীলন চালিয়ে যেতে পারতাম? আমি অসন্তুষ্ট ছিলাম, এবং এটা মনে হয়েছিল যে ঈশ্বর আমার বিষয়ে ভাবেন না। আমি কাজের সন্ধানে সমস্ত জায়গায় দৌড়াতাম এবং ঈশ্বরের সাহায্যের জন্য প্রার্থনা করতাম, কিন্তু ঈশ্বর কখনওই উত্তর দেননি, এবং আমি যা প্রার্থনা করেছি তা তিনি আমাকে দেননি। আমার মধ্যে ঈশ্বরের সম্পর্কে সন্দেহ তৈরি হল: তিনিই কি প্রকৃত ঈশ্বর? ঠিক যেমন ঈশ্বর বলেন: “যখন আমি মানুষের উপর আমার ক্রোধ বর্ষণ করেছিলাম ও তাদের অধিকৃত সব আনন্দ ও শান্তি কেড়ে নিয়েছিলাম, মানুষ তখন সন্দিহান হয়ে পড়েছিল।” ঈশ্বরের শব্দের উদ্ঘাটন আমাকে আমি যা দেখিয়েছি তাঁর জন্য লজ্জিত বোধ করি। ঈশ্বরের বাণীও আমাকে দেখাল যে আশীর্বাদের জন্য বিশ্বাস রাখা ছিল ভুল দৃষ্টিভঙ্গি, কারণ আমি ঈশ্বরকে আশীর্বাদের দাতা হিসেবে দেখছিলাম এবং নিজেকে আশীর্বাদ গ্রহণকারী হিসাবে দেখছিলাম। যখন ঈশ্বর আমাকে ভাল চাকরি দিলেন না যেমন আমি চেয়েছিলাম, আমি তাঁকে দোষারোপ করলাম এবং ভাবলাম যে তিনি একদমই আমার কথা ভাবেন না। আমি দেখলাম বিশ্বাস সম্পর্কে আমার দৃষ্টিভঙ্গি কতটা অযৌক্তিক, অজ্ঞ এবং বোকা ছিল। আমি ভাবলাম ছোটবেলা থেকে আমি কীভাবে সমাবেশে যেতাম, এবং আমি শুধু যা শুনতাম তা ছিল, “ঈশ্বর তোমায় মহান আশীর্বাদ দেবেন! তুমি যদি বিশ্বাসী হও, তাহলে ঈশ্বর তোমাকে আশীর্বাদ করবেন। ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা ও দাবি করো, এবং তিনি অবশ্যই উত্তর দেবেন।” ধর্মীয় জগৎ, আমার বাবা-মা এবং আমার আশেপাশের অন্যদের থেকে আমার শোনা সবকিছুর একটা বড় প্রভাব পড়েছিল আমার উপর এবং সেগুলো আমাকে অনুভব করিয়েছিল যে আমার শুধু বিশ্বাস করা দরকার ঈশ্বরের আশীর্বাদ অর্জনের এবং পার্থিব দুঃখ-কষ্ট থেকে মুক্ত হওয়ার জন্য। আগে আমি কখনও ভাবিনি যে বিশ্বাসের মাধ্যমে আশীর্বাদের আকাঙ্ক্ষা করা ভুল ছিল, এবং আমি সত্যিই এটাকে শয়তানোচিত স্বভাব হিসাবে দেখিনি। আমার এটার ব্যাপারে ততক্ষণ কোনও উপলব্ধি ছিল না যতক্ষণ না আমি ঈশ্বরের বাণী পড়লাম। আমি নিজেকে জিজ্ঞাসা করলাম, বিশ্বাস কি সত্যিই শুধু বস্তুগত আশীর্বাদ পাওয়ার জন্য? যাদের পর্যাপ্ত অর্থ এবং বস্তুগত সম্পদ আছে ঈশ্বর কি তাদের সমর্থন করেন? যদি তাই হয়, তাহলে প্রভু যীশু কেন বলেছেন যোহন ৬:২৭-এ “নশ্বর খাদ্যের জন্য নয়, বরং অনন্ত জীবনদায়ী অবিনশ্বর খাদ্যের জন্য পরিশ্রম কর। মানবপুত্র তোমাদের সেই খাদ্য দান করবেন। কারণ পিতা ঈশ্বর তাঁকেই সেই অধিকার দিয়েছেন।” তিনি এটাও বলেছেন, “এই পৃথিবীতে ধন সঞ্চয় কোরো না। এখানে তা পোকায় কাটে, মরচে ধরে নষ্ট হয়ে যায়। চোরে সিঁদ কেটে চুরি করে। তোমরা বরং স্বর্গেই নিজেদের জন্য ধনসম্পদ সঞ্চয় কোরো। সেখানে পোকায় কাটেও না, মরচেও ধরে না, আর চোরেও সিঁদ কেটে চুরি করতে পারে না। যেখানে তোমার ধন সম্পদ রয়েছে, সেখানে তোমার মনও থাকবে(মথি ৬:১৯-২১)। তখন আমি বুঝলাম ঈশ্বরের কাছে সবসময় বস্তুগত আশীর্বাদ চাওয়া হল মানবজাতির অসংযত আকাঙ্ক্ষা – এটা দুর্নীতি, এবং ঈশ্বর এটা ঘৃণা করেন। এর সম্পূর্ণ কারণ হল শয়তান মানুষকে বিভ্রান্ত এবং আমাদের বিরত করে ঈশ্বরের পরিচয় জানা থেকে, এবং বিশেষ করে এটা জানার থেকে যে ঈশ্বর আমাদের ভাগ্য শাসন করেন, যাতে আমরা আমাদের সৃষ্টিকর্তার কাছে আত্মসমর্পণ করতে অক্ষম হই। যখন সবকিছু মসৃণভাবে চলছে, আমরা ঈশ্বরকে ধন্যবাদ জানাই এবং তাঁর প্রশংসা করি, কিন্তু যখন আমরা জীবনে কষ্টের সম্মুখীন হই, যখন ঈশ্বর আমাদের চাহিদা পূরণ করেন না, আমরা ঈশ্বরকে ভুল বুঝি এবং তাঁকে দোষারোপ করি। এটা আমাকে অব্রাহামের কথা মনে করিয়ে দিল। সে ঈশ্বরের কাছে যেকোনো কিছু সমর্পণ করতে ইচ্ছুক ছিল। ভালো বা খারাপ, তার নিজের ব্যক্তিগত পছন্দ ছিল না। যখন ঈশ্বর অব্রাহামকে তার পুত্রকে বলি হিসেবে ব্যবহার করতে বলেছিলেন, অব্রাহাম তা করতে প্রস্তুত ছিল, যেমন ঈশ্বর বলেছিলেন। এটা তার জন্য সত্যিই বেদনাদায়ক ছিল, কিন্তু সে ঈশ্বরকে জিজ্ঞাসা করেনি, “আপনি কেন আমার থেকে এটা চাইছেন? আপনি কীভাবে আমার সাথে এইরকম আচরণ করতে পারেন?” অব্রাহাম বিশ্বাস করত যে ঈশ্বর যা-ই বলুন না কেন, তার উচিত মান্য করা।। সে জানত যে ঈশ্বরই সৃষ্টিকর্তা, এবং সে নিজেও একজন সৃষ্ট সত্তা, তাই তার নিঃশর্তভাবে আত্মসমর্পণ করা উচিত এবং ঈশ্বরের যেকোন আদেশ বা দাবি মেনে নেওয়া উচিত। অব্রাহামের বিশ্বাস ঈশ্বরের সমর্থন অর্জন করেছিল। কিন্তু আজকের মানুষ অব্রাহামের থেকে সম্পূর্ণ আলাদা। আমরা সবসময় বস্তুগত আশীর্বাদের চিন্তায় মগ্ন থাকি এবং আমরা ঈশ্বরের ইচ্ছাকে উপেক্ষা করি। প্রভু যীশু আমাদের উপদেশ দিয়েছেন, “সর্বাগ্রে তাঁর রাজ্য ও ন্যায়পরায়ণতা প্রতিষ্ঠার জন্য তৎপর হও। তাহলে এ সবই তিনি তোমাদের জুগিয়ে দেবেন(মথি ৬:৩৩)। আমাদের বস্তুগত আশীর্বাদ চাওয়া উচিত নয়, বরং আমাদের উচিত ঈশ্বরের ইচ্ছা পালন করা, সত্যের অনুসরণ করা এবং আমাদের দায়িত্বগুলো ভালোভাবে পালন করা। সেটাই গুরুত্বপূর্ণ। ঈশ্বরই সৃষ্টিকর্তা। তিনি আমাদের চিন্তাভাবনা ভালো জানেন এবং আমাদের কী প্রয়োজন তাও তিনি ভালো জানেন। কিন্তু শয়তানের দুর্নীতির কারণে, মানবজাতির সমস্ত চিন্তাভাবনা লোভ এবং বস্তুগত আশীর্বাদের দ্বারা দখল করা হয়েছে, যাতে আমরা ঈশ্বরকে বিশ্বাস করি তাঁকে মানার ও সন্তুষ্ট করার জন্য নয়, বরং শুধুমাত্র আশীর্বাদ অর্জন এবং আমাদের নিজেদের ইচ্ছা সন্তুষ্ট করার জন্য। ঠিক যেমন সর্বশক্তিমান ঈশ্বরের বাণী প্রকাশ করে, “সমস্ত দুর্নীতিগ্রস্ত মানুষ নিজেদের জন্য বাঁচে। প্রত্যেক মানুষই নিজের জন্য এবং শয়তান সবচেয়ে পিছনের জনকে দখল করে—এটাই হল মানবপ্রকৃতির সারাংশ। মানুষ তাদের নিজেদের স্বার্থে ঈশ্বরে বিশ্বাস করে; তারা যখন সমস্ত কিছু পরিত্যাগ করে এবং ঈশ্বরের জন্য নিজেদের ব্যয় করে, তখন তা আশীর্বাদ পাওয়ার জন্যই; এবং তারা যখন তাঁর প্রতি বিশ্বস্ত থাকে, তখন তা পুরস্কৃত হওয়ার জন্য। সংক্ষেপে, এই সমস্ত কিছুই আশীর্বাদ পাওয়া, পুরস্কৃত হওয়া এবং স্বর্গরাজ্যে প্রবেশ করার উদ্দেশ্যেই করা হয়। সমাজে মানুষ তার নিজের সুবিধার জন্যই কাজ করে, এবং ঈশ্বরের গৃহে তারা আশীর্বাদ লাভের জন্য কর্তব্য সম্পাদন করে। আশীর্বাদ অর্জনের স্বার্থে মানুষ সমস্ত কিছু পরিত্যাগ করে এবং প্রচণ্ড যন্ত্রণা সহ্য করতে পারে: মানুষের শয়তানোচিত স্বভাবের এর থেকে ভালো প্রমাণ আর হয় না(বাক্য, খণ্ড ৩, অন্তিম সময়ের খ্রীষ্টের উপদেশ, তৃতীয় অংশ)। ঈশ্বরের বাণী আমার সম্পর্কে সঠিক সত্য উন্মোচিত করল। আমি আমার অজ্ঞতা এবং স্বার্থপরতা দেখলাম, এবং শিখলাম কীভাবে যখন আমি আমার অপছন্দের কিছুর সম্মুখীন হব, আমার উচিত ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা এবং আত্মসমর্পণ করা, এবং আমি কেবল অনুগ্রহ ও আশীর্বাদ কে অনুসরণ করতে পারি না। কিন্তু শীঘ্রই আমি আবার একই সমস্যায় পড়লাম। যেহেতু আমি আমার কাকার কোম্পানিতে মাত্র এক সপ্তাহ কাজ করে তারপর ছেড়ে দিয়েছিলাম, এবং তারপর আমি আমার বাড়িতে আমার দায়িত্বে মনোযোগী ছিলাম, আমার টাকা খুব দ্রুত ফুরিয়ে গেল। আমি জানতাম না আমার পরবর্তী খাবার কোথা থেকে আসবে বা কীভাবে আমার কাজ খুঁজতে যাওয়া উচিত কারণ চাকরির জন্য আমার কোনও ডিগ্রী বা কোনও যোগ্যতা ছিল না। আমার মোবাইল প্ল্যানে আরও ডেটা কেনার জন্য আমার কাছে কোনও টাকাই ছিল না। আমার সত্যিই ইন্টারনেটের প্রয়োজন ছিল সমাবেশে যোগ দেওয়ার এবং দায়িত্ব পালনের জন্য। এই ভাবনা ভেবেই আমি আবার দুর্বল বোধ করলাম, এবং আমার মনে হল আমি কোনও আশা দেখতে পাচ্ছি না। ঠিক তখনই আমার মা আমাকে বলল যে মহামারীর কারণে, বেচে থাকার জন্য তাদের কাছে আর কিছুই বাকি ছিল না, এবং তারা আশা করছে যে আমি তাদের কিছু দিতে পারব। আমার মা-ও যে আমার মত একই অবস্থায় আছে জানাটা আমার জন্য দুর্বল এবং বেদনাদায়ক ছিল। আমি কি করব বুঝতে পারছিলাম না। আমার মনে হচ্ছিল আমি অন্যান্য মানুষের চেয়ে অনেক বেশি কষ্ট পাচ্ছি, যে আমার জীবন সত্যিই কঠিন ছিল। আমি স্পষ্টভাবে ঈশ্বরের ইচ্ছা উপলব্ধি করতে পারলাম না। আমি ভেবেছিলাম যে যেহেতু আমি প্রতিদিন আমার দায়িত্ব নিয়ে ব্যস্ত থাকি, তাই ঈশ্বরের আমার যত্ন নেওয়া উচিত, তাহলে কেন আমার অবস্থা খারাপ হতে থাকছিল?

সেই সময়ে, আমি ঈশ্বরের বাণীগুলো প্রচুর পড়েছিলাম এবং বেশ কয়েকটি প্রশংসার স্তব শুনেছিলাম। ঈশ্বরের বাণীর দুটি অংশ আমাকে তাঁর ইচ্ছা বুঝতে সাহায্য করেছিল। সর্বশক্তিমান ঈশ্বর বলেছেন, “ঈশ্বরে বিশ্বাসের ক্ষেত্রে, মানুষ ভবিষ্যতের জন্য আশীর্বাদ পেতে চায়; এটাই তাদের বিশ্বাসের লক্ষ্য। সব মানুষের মধ্যেই এই অভিপ্রায় এবং আশা থাকে, কিন্তু তাদের প্রকৃতির মধ্যে থাকা কলুষতাকে অবশ্যই পরীক্ষার মাধ্যমে দূর করতে হবে। যেসব বিষয়ে তোমার পরিশোধন বাকি থাকে এবং কলুষতা প্রকাশ পায়, সেই বিষয়গুলির ক্ষেত্রে অবশ্যই তোমার পরিমার্জনা লাগবে—এটাই ঈশ্বরের ব্যবস্থা। ঈশ্বর তোমার জন্য একটি পরিবেশ সৃষ্টি করেন, সেখানে তোমাকে পরিমার্জিত হতে বাধ্য করেন, যাতে তুমি নিজের কলুষতাকে জানতে পারো। পরিশেষে, তুমি এমন এক পর্যায়ে পৌঁছে যাও, যেখানে তুমি বরং মৃত্যুবরণ করতে চাইবে এবং নিজের পরিকল্পনা ও আকাঙ্ক্ষা ত্যাগ করে ঈশ্বরের সার্বভৌমত্ব এবং ব্যবস্থায় আত্মসমর্পণ করতে চাইবে। অতএব, মানুষ যদি বেশ কিছু বছরের পরিমার্জনা লাভ না করে, তারা যদি নির্দিষ্ট পরিমাণ কষ্ট সহ্য না করে, তবে তারা নিজেদের চিন্তাভাবনা এবং হৃদয়ে দৈহিক কলুষতার বন্ধন থেকে মুক্ত হতে পারবে না। যে দিক দিয়েই মানুষ এখনও শয়তানের দাসত্বে থাকুক, আর যে বিষয়েই তাদের এখনও নিজস্ব আকাঙ্ক্ষা ও চাহিদা থাকুক না কেন, এই দিকগুলিতেই তাদের কষ্টভোগ করতে হবে। শুধুমাত্র কষ্টের মাধ্যমেই এই শিক্ষা লাভ করা যায়, যার অর্থ সত্য অর্জন এবং ঈশ্বরের ইচ্ছা উপলব্ধিতে সক্ষম হওয়া। প্রকৃতপক্ষে, বেদনাদায়ক অনেক সত্যকে পরীক্ষার সম্মুখীন হয়েই উপলব্ধি করা যায়। আরামদায়ক এবং সহজ পরিবেশে, অথবা অনুকূল পরিস্থিতিতে কেউই ঈশ্বরের ইচ্ছাকে বুঝতে পারে না, ঈশ্বরের সর্বশক্তিমানতা এবং প্রজ্ঞাকে চিনতে পারে না, অথবা ঈশ্বরের ন্যায়পরায়ণ স্বভাব উপলব্ধি করতে পারে না। এটা একেবারেই অসম্ভব হবে!(বাক্য, খণ্ড ৩, অন্তিম সময়ের খ্রীষ্টের উপদেশ, তৃতীয় অংশ)। “মানুষের মধ্যে ঈশ্বরের কাছে সর্বদাই অসংযত চাহিদা থাকে। তাঁরা সবসময় ভাবতে থাকে, ‘আমরা পরিবার পরিত্যাগ করে কর্তব্য পালন করছি, তাই ঈশ্বরের উচিত আমাদের আশীর্বাদ করা; আমরা ঈশ্বরের চাহিদা অনুযায়ী কাজ করি, তাই ঈশ্বরের উচিত আমাদের পুরস্কৃত করা।’ ঈশ্বর বিশ্বাসের ক্ষেত্রে, অনেকেরই মনের মধ্যে এই ধরনের চিন্তাভাবনা থাকে। … মানুষ এতই অনুভূতিশূন্য। তারা সত্যের অনুশীলন করে না, অথচ ঈশ্বরকে দোষারোপ করে। তারা তাদের করণীয় কাজ করে না। মানুষের সত্য অন্বেষণের পথ বেছে নেওয়া উচিত, তবু তারা সত্যের প্রতি বিরক্ত এবং দৈহিক সুখ উপভোগের জন্য অপেক্ষা করে থাকে। তারা সর্বদা আশীর্বাদের অন্বেষণ করে, অনুগ্রহ উপভোগ করতে চায়, আর সর্বদাই অভিযোগ করে যে, ঈশ্বর মানুষের কাছ থেকে অনেক বেশি দাবি করেন। তারা ক্রমাগত চেষ্টা করে চলে যাতে ঈশ্বর তাদের প্রতি অনুগ্রহপূর্বক আচরণ করেন, আর ঈশ্বর যাতে তাদের ওপর আরও অনুগ্রহ বর্ষণ করুন, এবং দৈহিক সুখ উপভোগের অনুমতি দেন। এরা কি সত্যিই ঈশ্বরে বিশ্বাস করে? … এই সমস্ত বিষয় বলার সময় মানুষের বোধবুদ্ধি ও বিশ্বাস লোপ পায়। এগুলি সবই মানুষের অযৌক্তিক দাবি পূরণ না করার কারণে, ঈশ্বরের প্রতি মানুষের অসন্তুষ্টি থেকে উদ্ভূত হয়; এই সমস্ত জিনিস মানুষের হৃদয় থেকে নির্গত হয় আর তা সামগ্রিকভাবে মানুষের প্রকৃতির প্রতিনিধিত্ব করে। এই সমস্ত জিনিস মানুষের অন্তরে আছে, আর যদি তারা সেগুলিকে বাদ না দেয়, তবে তারা যেকোনো স্থান-কালে ঈশ্বরকে দোষারোপ করতে পারে এবং তাঁকে ভুল বুঝতে পারে। মানুষ ঈশ্বরের বিরুদ্ধে নিন্দা করার জন্যও দায়ী হবে এবং যে কোনও স্থানে, যে কোনও সময়ে তারা সত্যের পথ থেকে বিচ্যুত হতে পারে। এটি একটি স্বাভাবিক ঘটনা(বাক্য, খণ্ড ৩, অন্তিম সময়ের খ্রীষ্টের উপদেশ, তৃতীয় অংশ)। ঈশ্বরের বাণী থেকে আমি কিছু জিনিস শিখলাম। প্রতিদিন আমার দায়িত্বের প্রতি মনোযোগী হওয়ার কারণে, আমি আমার পরিবারের প্রতি মনোযোগ দিচ্ছিলাম না, আমি ভেবেছিলাম নিজেকে এভাবে ব্যয় করলে, ঈশ্বরের উচিত আমাকে পুরস্কৃত করা, আমাকে আশীর্বাদ করা। আমি ঈশ্বরের কাছ থেকে দামী পুরস্কার পেতে চাইনি, শুধু একটা চাকরি চেয়েছিলাম যা আমার জীবন চালানোর জন্য যথেষ্ট হবে, এবং আমি একটা চাকরি পাওয়ার পরে, আমি আমার দায়িত্বে আরও ভালো পালন করতে সক্ষম হব। আমার মনে হয়েছিল যে এটি একটা যুক্তিসঙ্গত অনুরোধ যা মোটেও অত্যধিক ছিল না। কিন্তু ঈশ্বরের বাণীর সম্পর্কে ভেবে, আমি দেখলাম যে এই অসামান্য ইচ্ছাগুলো এবং আকাঙ্ক্ষাগুলো থাকা দেখায় যে আমি ঈশ্বরের কাছে আত্মসমর্পণ করিনি। আমি দাবি করছিলাম যে ঈশ্বর আমার জন্য এটা-ওটা করুন। ঈশ্বরের বাণী আমাকে এটাও দেখাল যে কেউ যদি সবসময় ঈশ্বরের কাছে অযৌক্তিক দাবি রাখে, তাদের পক্ষে সত্য অনুশীলন করা কঠিন, এবং তাদের দাবি পূরণ না হলে তারা সম্ভবত বিশ্বাসঘাতকতা করবে এবং ঈশ্বরকে পরিত্যাগ করবে। তখন বুঝলাম যে আমি যে অসুবিধার সম্মুখীন হয়েছি বাইরে থেকে দেখে মনে হচ্ছিল আমি অনেক কষ্টে আছি, যেন সত্যিই করুণ অবস্থা ছিল, কিন্তু আসলে, আমি যন্ত্রণার মেজাজের মধ্য দিয়ে যাচ্ছিলাম। আমার মনে হচ্ছিল আমি এটা নিতে পারব না, কিন্তু ঈশ্বর আমাকে ত্যাগ করেননি। এর কারণ ছিল যাতে আমি আমার বিশ্বাসের মধ্যে আমার ভুল উদ্দেশ্য এবং জালিয়াতি দেখতে পারি, এবং তাদের সঠিক দিশায় ঘুরিয়ে দিতে পারি যেই দিশা মানুষ অনুসরণ করবে বলে ঈশ্বর আশা করেন। আমি আশ্চর্য না হয়ে পারলাম না, আমি কি একটা ভাল চাকরি চাই না যেখানে আমি আরও অর্থ উপার্জন করতে পারব? আমি কি চাই না আরও মোবাইল ডেটা এবং আমার মৌলিক চাহিদাগুলো পূরণ হোক? আমি কি আমার দায়িত্ব নির্বিঘ্নে, কোনও অসুবিধা ছাড়া পালন করতে চাই না? হ্যাঁ আমি চাই। সুতরাং, যেহেতু আমি এই জিনিসগুলো অর্জনের আশা করি, কেন ঈশ্বর আমার জন্য সেগুলো পাওয়ার ব্যবস্থা করবেন না? আমি কি এতই অভাগা, এতই দুর্ভাগা? একেবারেই না—আমি অবিশ্বাস্যভাবে ভাগ্যবান ছিলাম। এটা ছিল আমার উপর ঈশ্বরের স্নেহ। ঈশ্বর আমার জন্য এই পরিস্থিতি তৈরি করেছেন যাতে আমাকে সত্য অনুসন্ধান করি, শিক্ষা পাই এবং আমার বিশ্বাসের জালিয়াতিগুলো কে শুদ্ধ করতে পারি। যদি আমি আমার বিশ্বাসকে সম্পূর্ণরূপে একটা ভাল, আরামদায়ক পরিবেশে অনুশীলন করতাম কোনও বিরোধী, প্রতিকূল পরিস্থিতির সম্মুখীন না হয়ে, ঈশ্বরের প্রতি আমার বিশ্বাস এবং ভালোবাসার মধ্যে উদ্দেশ্য, ইচ্ছা এবং জালিয়াতি থাকত, যা ঈশ্বর অনুমোদন করতেন না। ঈশ্বর আশা করেন যে মানুষ যে কোনও পরিস্থিতিতে তাঁর প্রতি আন্তরিক হবে, যে আমরা তাঁর প্রতি অনুগত এবং বাধ্য। এটা ঠিক একটা শিশুর মত। যদি সে শুধুমাত্র তার বাবাকে তখন ভালোবাসে যখন বাবা তার একটা আরামদায়ক বস্তুগত জীবন দেয়, কিন্তু অন্যথায় তাদের বাবাকে ঘৃণা করে এবং বলে, “আমি যা চাই তা যদি তুমি আমাকে না দাও, আমি তোমাকে সম্মান করব না বা তোমাকে আমার বাবা হিসাবে স্বীকৃতি দেব না।” সে কী ধরনের বাচ্চা? এটি একটা অসন্তানোচিত শিশু যার বিবেক এবং যুক্তির অভাব রয়েছে। ঈশ্বরকে ধন্যবাদ! আমিও সেই পরিস্থিতির সম্মুখীন হয়েছিলাম। আমার বিশ্বাসের জালিয়াতিগুলো শুদ্ধ করার জন্য সেই জিনিসগুলোর মধ্য দিয়ে যাওয়াই ঠিক ছিল।

আমি ঈশ্বরের বাণীতে অন্য কিছু পড়েছিলাম। সর্বশক্তিমান ঈশ্বর বলেছেন, “বর্তমানে ঈশ্বরে প্রকৃত বিশ্বাস কী? তা হল তোমার জীবনের বাস্তবতা হিসাবে ঈশ্বরের বাক্যকে গ্রহণ করা, এবং তাঁর প্রতি প্রকৃত ভালবাসা অর্জনের জন্য তাঁর বাক্য থেকেই ঈশ্বরকে জানা। স্পষ্টভাবে বলতে গেলে: ঈশ্বর বিশ্বাস হল এমন এক বিষয় যাতে তুমি ঈশ্বরকে মান্য করতে পারো, ঈশ্বরকে ভালোবাসতে পারো এবং ঈশ্বরের সৃষ্টি হিসাবে অবশ্যপালনীয় দায়িত্বসমূহ পালন করতে পারো। এটাই ঈশ্বরে বিশ্বাসের লক্ষ্য। ঈশ্বরের মাধুর্য, ঈশ্বর কতটা সম্মানের যোগ্য, কীভাবে ঈশ্বর তাঁর সৃষ্টির মধ্যে পরিত্রাণের কাজ করেন ও তাদের নিখুঁত করে তোলেন, এইসব জ্ঞান তোমাকে অর্জন করতে হবে—এগুলি তোমার ঈশ্বর বিশ্বাসের ন্যূনতম প্রয়োজনীয়তা। প্রধানত ঈশ্বর বিশ্বাস হল এক পার্থিব জীবন থেকে ঈশ্বরের প্রতি ভালবাসা পূর্ণ জীবনে পৌঁছে যাওয়া; দুর্নীতির মধ্যে বসবাস থেকে সরে এসে ঈশ্বরের বাক্যের জীবনীশক্তির মধ্যে বেঁচে থাকা; ঈশ্বর বিশ্বাস হল শয়তানের আধিপত্যের অধীনতা থেকে বেরিয়ে এসে ঈশ্বরের পরিচর্যা ও সুরক্ষার অধীনে বাস করা; ঈশ্বর বিশ্বাস হল ঈশ্বরের প্রতি আনুগত্য অর্জন এবং দৈহিক ইচ্ছার প্রতি আনুগত্য কাটিয়ে উঠতে সক্ষম হওয়া; ঈশ্বর বিশ্বাস হল ঈশ্বরকে তোমার সম্পূর্ণ হৃদয় অর্জন করতে দেওয়া, তাঁকে তোমায় নিখুঁত করে তুলতে দেওয়া, এবং নিজেকে কলুষিত শয়তানোচিত স্বভাব থেকে মুক্তি দেওয়া। ঈশ্বর বিশ্বাসের প্রধান উদ্দেশ্য হলো যাতে ঈশ্বরের শক্তি ও মহিমা তোমার মধ্যে উদ্ভাসিত হতে পারে, যাতে তুমি ঈশ্বরের ইচ্ছা পূর্ণ করতে পারো, যাতে ঈশ্বরের পরিকল্পনা সম্পন্ন করতে পারো, এবং শয়তানের সামনে ঈশ্বরের সাক্ষ্য দিতে সক্ষম হও। ঈশ্বরে বিশ্বাস সংকেত ও বিস্ময়কর ঘটনা প্রত্যক্ষ করার আকাঙ্খায় কেন্দ্রীভূত থাকা উচিত নয়, বা তা তোমার ব্যক্তিগত দৈহিক ইচ্ছার স্বার্থেও হওয়া উচিত নয়। তা হওয়া উচিত ঈশ্বরকে জানার সাধনা, ঈশ্বরকে মান্য করতে সক্ষম হওয়া, এবং পিতরের মতোই আমৃত্যু তাঁকে মেনে চলা। এগুলিই হলো ঈশ্বর বিশ্বাসের প্রধান লক্ষ্য। মানুষ ঈশ্বরকে জানার জন্য ও তাঁকে সন্তুষ্ট করার জন্য ঈশ্বরের বাক্য ভোজন ও পান করে। ঈশ্বরের বাক্য ভোজন ও পান করলে তা ঈশ্বর সম্পর্কে তোমাকে এক বৃহত্তর জ্ঞান প্রদান করে, তবেই তুমি তাঁকে মান্য করতে পারবে। শুধুমাত্র ঈশ্বরের জ্ঞানের মাধ্যমেই তুমি তাঁকে ভালবাসতে পারো, এবং ঈশ্বর বিশ্বাসের ক্ষেত্রে মানুষের এটাই লক্ষ্য হওয়া উচিত(বাক্য, খণ্ড ১, ঈশ্বরের আবির্ভাব ও তাঁর কার্য, ঈশ্বরের বাক্যের দ্বারাই সমস্ত অর্জন সম্ভব)। সর্বশক্তিমান ঈশ্বরের প্রতি আমার বিশ্বাস অর্জন করার পরেই আমি ঈশ্বরের বাণীর এই অংশটি পড়েছিলাম, কিন্তু সেই সময় আমি সত্যিই এটা বুঝতে পারিনি। সেই সব কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে যাওয়ার পরই আমি ঈশ্বরের ইচ্ছা সামান্য হলেও বুঝতে পেরেছিলাম। প্রকৃত বিশ্বাস আসলে আমি যা ভেবেছিলাম ঠিক সেরকম নয়, যে যতক্ষণ আমি নিজেকে ঈশ্বরের জন্য ব্যয় করব, তাঁর উচিত ততক্ষণ আমাকে দেখা, রক্ষা করা এবং আমার চাহিদা পূরণ করা। বিশ্বাসের এই ধরনের দৃষ্টিভঙ্গি ঠিক নয়। আমাদের বিশ্বাসে, আমাদের উচিত ঈশ্বরের বাণীগুলোকে অনুভব করা এবং সমস্ত কিছুতে তাঁকে সন্তুষ্ট করা। ঈশ্বর দেন বা নিয়ে নেন, আমাদের উচিত তাঁর কাছে আত্মসমর্পণ করা এবং প্রকৃত অর্থে নিজেদের দান করা। যদি মানুষের বিশ্বাসে, তারা শুধু ঈশ্বরকে তাঁর বাণীর মাধ্যমে জানার চেষ্টা করে, এবং তাঁর শাসন ও ব্যবস্থার কাছে আত্মসমর্পণ করে, ঈশ্বর এই ধরনের বিশ্বাসকে সমর্থন করেন। যে ঈশ্বরকে চরমভাবে ভালোবাসতে পারবে এবং পিতরের মত মৃত্যু পর্যন্ত তাঁকে মান্য করতে পারবে, ঈশ্বর তাঁকে নিখুঁত করবেন। সৌভাগ্যক্রমে, ঈশ্বর আমাকে এই পরিস্থিতির মাধ্যমে বিশ্বাসের সঠিক দৃষ্টিভঙ্গি জানতে আলোকিত করেছেন এবং এটা আমাকে আন্তরিক শান্তি ও প্রশান্তি দিয়েছে। আমি ঈশ্বরের কাছে একটা আত্মসমর্পণের প্রার্থনা করলাম, শুধু এই অনুরোধ করে তিনি আমাকে এই কষ্ট সহ্য করার শক্তি দিন।

পরের দিন, আমি অবাক হয়ে গেলাম, আমার কাকা আমাকে কিছু টাকা পাঠালেন আর তাতে আমি কিছু খাবার এবং মোবাইল ডেটা কিনতে পারলাম। আমাকে এগিয়ে যাওয়ার পথ দেওয়ার জন্য আমি ঈশ্বরকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানালাম।

তাঁর উপরে, আমি একটা ঠিকা চাকরিও পেতে সক্ষম হলাম। এটা মোটেও সহজ কাজ ছিল না, কিন্তু আমি আমার মৌলিক চাহিদা মেটানোর জন্য যথেষ্ট উপার্জন করতে পারতাম। আমি জানতাম যে ঈশ্বর আমার জন্য এটার ব্যবস্থা করেছেন। আমি সত্যিই অনুভব করলাম যে ঈশ্বরের সমন্বয়সাধন এবং ব্যবস্থা গ্রহণ ও সেগুলোর কাছে আত্মসমর্পণ হল এক মৌলিক শিক্ষা যা বাস্তব জীবনের মাধ্যমে আমাদের শেখা উচিত যা আমাদের অভিজ্ঞতার মাধ্যমে ঈশ্বরের সর্বশক্তিমান শাসন এবং রহস্যময় উপায় জানতে সাহায্য করতে পারে। জীবনের সব ধরনের সমস্যার প্রতি আমাদের এই মনোভাব থাকা উচিত। সেটা আমাকে ঈশ্বরের বাণীর একটা অংশ মনে করিয়ে দিল। “বাস্তব জীবনে সমস্যার মুখোমুখি হলে, ঈশ্বরের কর্তৃত্ব এবং তাঁর সার্বভৌমত্বকে তোমার কীভাবে জানা এবং বোঝা উচিত? যখন এই সমস্যাগুলির মুখোমুখি হও এবং তুমি জানো না যে কীভাবে সেগুলি বুঝতে হবে, পরিচালনা করতে হবে এবং সেগুলির বিষয়ে ধারণা করতে হবে, তখন তোমার সমর্পণের উদ্দেশ্য ও অভিপ্রায়, এবং ঈশ্বরের সার্বভৌমত্ব ও ব্যবস্থায়, তোমার প্রকৃত সমর্পণ প্রকাশের জন্য তোমার কী মনোভাব গ্রহণ করা উচিত? প্রথমে তোমাকে শিখতে হবে অপেক্ষা করতে; তারপর তোমাকে অবশ্যই শিখতে হবে অন্বেষণ করতে; এবং তারপর, সমর্পণ করতে। ‘অপেক্ষা করা’-র অর্থ ঈশ্বরের সময়ের জন্য অপেক্ষা, তোমার জন্য ঈশ্বর যে সকল মানুষ, ঘটনা ও বস্তুর আয়োজন করেছেন তার জন্য অপেক্ষা, তাঁর ক্রমপ্রকাশ্য অভিপ্রায় তোমার কাছে উদ্ভাসিত হওয়ার অপেক্ষা। ‘অন্বেষণ’ এর অর্থ হল, বিভিন্ন মানুষ, ঘটনা ও বস্তুর মাধ্যমে ঈশ্বর তোমার জন্য যে সুচিন্তিত অভিপ্রায় রচনা করেছেন, তাদের পর্যবেক্ষণ ও উপলব্ধি করা, তাদের মাধ্যমে সত্যকে অনুধাবন করা, মানুষকে কী অর্জন করতে হবে এবং তাদের কোন পথে চলতে হবে তা বোঝা, ঈশ্বর মানুষের মধ্যে কী ফলাফল প্রাপ্ত করতে চান এবং তাদের মধ্যে তিনি কোন সিদ্ধি অর্জন করতে চান, তার মর্মগ্রহণ করা। ‘সমর্পন’ বলতে অবশ্যই বোঝায় ঈশ্বরের দ্বারা সুসমন্বিত মানুষ, ঘটনা এবং বিষয়গুলি গ্রহণ করা, তাঁর সার্বভৌমত্বকে গ্রহণ করা এবং এগুলির মাধ্যমে জানতা পারা যে, সৃষ্টিকর্তা কীভাবে মানুষের ভাগ্য নির্ধারণ করেন, কীভাবে তিনি মানুষকে তার জীবন দান করেন, আর মানুষের অন্তরে কীভাবে সত্যের প্রতিষ্ঠা ঘটান। ঈশ্বরের আয়োজন ও সার্বভৌমত্বের অধীনে প্রতিটি বিষয়ই প্রাকৃতিক আইন মেনে চলে, এবং যদি তুমি ঈশ্বরকে তোমার জন্য সমস্ত কিছুর ব্যবস্থা করতে এবং নির্দেশ করতে দেওয়ার সংকল্প করো, তবে তোমাকে শিখতে হবে অপেক্ষা করা, তোমাকে শিখতে হবে অন্বেষণ করা এবং তোমাকে শিখতে হবে সমর্পণ করা। ঈশ্বরের কর্তৃত্বের কাছে আত্মসমর্পণে ইচ্ছুক এমন প্রত্যেক ব্যক্তিকে অবশ্যই এই মনোভাব অবলম্বন করতে হবে, ঈশ্বরের সার্বভৌমত্ব ও আয়োজন গ্রহণে ইচ্ছুক সকলের এই মৌলিক গুণটি থাকতেই হবে। এই ধরনের মনোভাবের ধারক হতে, এমন একটি গুণের অধিকারী হতে, তোমাকে অবশ্যই আরও পরিশ্রম করতে হবে। প্রকৃত বাস্তবতায় প্রবেশের এটিই একমাত্র উপায়(বাক্য, খণ্ড ২, ঈশ্বরকে জানার প্রসঙ্গে, স্বয়ং অনন্য ঈশ্বর ৩)। আমি আগে ঈশ্বরের বাণীর এই অংশটি পড়েছি, কিন্তু একটু কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে যাওয়ার পরে আবার এটা পড়ার অনুভূতি অন্যরকম ছিল। আমি ঈশ্বরের বাণী থেকে দেখতে পারছিলাম যে ঈশ্বরের ইচ্ছা অনুসন্ধান, অপেক্ষা এবং আত্মসমর্পণ করা তার প্রথম পন্থা হওয়া উচিৎ যখনই কেউ কোনও সমস্যার সম্মুখীন হয়। তবে এটি একটি নিষ্ক্রিয় ধরনের অপেক্ষা নয়। এর মধ্যে রয়েছে প্রার্থনা করা, ঈশ্বরের বাণী পড়া, ঈশ্বরের ইচ্ছা অনুসন্ধান করা, এবং নিজেকে নিয়ে ভাবা। এইভাবে আপনি আপনার প্রকৃত অবস্থা সম্পর্কে জানতে পারবেন এবং বুঝতে পারবেন আপনার কিসের মধ্যে প্রবেশ করা উচিত। এই ধরনের অনুসন্ধান এবং অভিজ্ঞতার মাধ্যমে, আমরা ঈশ্বরের সর্বশক্তিমান শাসন এবং তাঁর প্রকৃত কাজ দেখতে পারি।

প্রথমে আমি সেই কঠিন ঠিকা কাজটি করতে চেয়েছিলাম এক মাসের জন্য, যাতে আমি শুধু নিজের জীবনটা চালিয়ে নিতে পারি এবং আমার বাকি সময়টা আমার দায়িত্ব পালনে ব্যবহার করতে পারি। কিন্তু আমার মুঠোফোনে সমস্যা ছিল। আমি ভেবেছিলাম যদি আমি আরও এক মাস কাজ করি তবে আমি আরেকটা মুঠোফোন এবং একটা ল্যাপটপ কিনতে পারব। কিন্তু আমি একজন গির্জার নেতা ছিলাম, তাই গির্জার অনেক কাজ আমাকে দেখতে হত। আমার দায়িত্ব পালন করা আমার জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ছিল—এটি আমার অগ্রাধিকার ছিল, তাই আমি আমার চাকরি ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলাম। ঊর্ধ্বতন নেত্রী আমার অবস্থা সম্পর্কে জানতে পেরে, তিনি আমাকে বললেন যে আমাকে আমার দায়িত্ব ভালোভাবে পালন করতে সাহায্য করতে, গির্জা আমাকে একটা ল্যাপটপ এবং কিছু ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথ কিনতে সাহায্য করতে পারে। আমি এটা শুনে সত্যিই উত্তেজিত ছিলাম—আমি এত উত্তেজিত ছিলাম যে তা প্রকাশ করতে পারিনি। আমি জানতাম এটা সম্পূর্ণরূপে ঈশ্বরের অনুগ্রহ, যে ঈশ্বর আমার জন্য একটা পথ খুলে দিয়েছেন যাতে আমি আমার দায়িত্ব ভালভাবে পালন করতে পারি। আমি এটাও দেখলাম যে ঈশ্বর আমার জন্য একদম কিছুই কঠিন করছেন না। ঈশ্বর শুধু চেয়েছিলেন আমি আন্তরিক এবং বাধ্য হই। আমি ব্যক্তিগতভাবে কঠিন সময়ের মাধ্যমে ঈশ্বরের স্নেহ অনুভব করেছি। আগে, মানুষের প্রতি ঈশ্বরের স্নেহ সম্পর্কে আমার কল্পনা ছিল অস্পষ্ট এবং বাস্তবতার সাথে তার মিল ছিল না। একমাত্র সেই বাস্তব জীবনের নানা পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে এই শিক্ষাগুলো শেখার পর, আমি প্রকৃতপক্ষে বুঝতে পারলাম। এই পরিস্থিতিগুলোর মধ্য দিয়ে আমি আমার অজ্ঞতা এবং স্বার্থপরতা দেখতে পেলাম। এর ফলে বিশ্বাসের প্রতি আমার ভুল দৃষ্টিভঙ্গিগুলোকে ধীরে ধীরে পরিবর্তিত হল এবং আমি সঠিক পথে চলতে শুরু করলাম। এটি প্রকৃতপক্ষেই আমার প্রতি ঈশ্বরের স্নেহ ছিল। আমি কঠিন সময়ের মাধ্যমে আমিও বুঝতে পেরেছি সঠিক মনোভাব এবং কীভাবে ঈশ্বরের কাছে যেতে হবে। আগে আমি সবসময় ভাবতাম যতক্ষণ আমার বিশ্বাস আছে, ঈশ্বরের উচিত আমাকে সব কিছু সরবরাহ করা। এখন আমি জানি যে বিশ্বাসে, আমাদের সবসময় ঈশ্বরের কাছে কিছু চাওয়া উচিত নয়, কিন্তু আমাদের উচিত ঈশ্বরের কাছে আত্মসমর্পণ করা এবং সবকিছুতে তাঁর ইচ্ছা পূরণ করা।

শীঘ্রই আমি আরেকটা প্রকৃত পরীক্ষার সম্মুখীন হলাম। সেই চাকরির এক মাস পর যেদিন আমি বেতন পেলাম, হঠাৎ রাস্তায় সেই বেতন ছিনতাই হয়ে গেল। তারা আমার বেতনের অর্ধেক নিয়ে চলে গেল। কিন্তু ঈশ্বরের সুরক্ষার জন্য ধন্যবাদ, যদিও তাদের কাছে ছুরি ছিল, তারা আমাকে আহত করেনি। অবিলম্বে আমার মনে হল যে ঈশ্বর তাঁর ভালো উদ্দেশ্যের কারণেই এটা ঘটতে দিয়েছেন। আমি ইয়োবকে খুব ধনী ভেবেছিলাম, কিন্তু যখন তাঁর সমস্ত সম্পত্তি কেড়ে নেওয়া হল এবং তাঁর ছেলেমেয়েরা মারা গেল, তিনি নিঃশর্তভাবে আত্মসমর্পণ করেছিলেন, বিনা অভিযোগে এবং তারপরও ঈশ্বরের প্রশংসা করেছিলেন। আমি ধনী ছিলাম না – আমি শুধুমাত্র একজন স্বাভাবিক ব্যক্তি ছিলাম। কিছু টাকা চুরি হয়েছিল, এবং যদিও আমার সেটার প্রয়োজন ছিল এবং সেটা নিয়ে আমি কী কী করব, তা নিয়ে আমার অনেক পরিকল্পনা ছিল, আমি বিশ্বাস এবং বাধ্যতার ক্ষেত্রে ইয়োবের উদাহরণ অনুসরণ করতে প্রস্তুত ছিলাম। আমি প্রার্থনা করলাম, “ঈশ্বর, তুমি অতল। আমি পুরোপুরি বুঝতে পারছি না কি হয়েছে, কিন্তু আমি বিশ্বাস করি যে তোমার ইচ্ছা এর মধ্যে লুকিয়ে আছে। আমি তোমার ব্যবস্থার কাছে আত্মসমর্পণ করতে প্রস্তুত। অনুগ্রহ করে আমার হৃদয় স্পর্শ কর এবং আমাকে নির্দেশ কর যাতে আমি নেতিবাচক অবস্থায় ডুবে না যাই।” আমার প্রার্থনার পরে আমি সত্যিই শান্ত অনুভব করলাম, যেন কিছুই ঘটেনি। আমি সবসময়ের মত শান্তভাবে আমার দায়িত্ব পালন করতে থাকলাম, কোনও চিন্তা বা উদ্বেগ অনুভব না করে। ঈশ্বরের শাসন বোঝার আগে আমার মনোভাবের তুলনায়, এটা সম্পূর্ণ ভিন্ন ছিল। কারণ আমি জেনেছিলাম যে ঈশ্বর আমাকে শুদ্ধ ও রক্ষা করার জন্য এইভাবে জিনিসগুলো সাজিয়েছেন৷ এটা ঈশ্বরের স্নেহ সম্বন্ধে আমার উপলব্ধিকে আরও গভীর করেছিল। ঈশ্বরের তাঁর স্নেহের প্রকাশ শুধুমাত্র আমাদের বস্তুগত আশীর্বাদ দেওয়ার জন্য নয়, কারণ সেই জিনিসগুলো কেবলমাত্র আমাদের দৈহিক ইচ্ছা পূরণ করতে পারে। ঈশ্বরের প্রকৃত ভালবাসা হল তাঁর বাণীর বিচার, পরীক্ষা এবং পরিমার্জনা অনুভবের মাধ্যমে আমাদের সত্য শেখানোর জন্য, জানানোর জন্য কেন আমাদের বিশ্বাস আছে, কীভাবে ঈশ্বরকে সম্মান করতে এবং মন্দকে এড়াতে হয়, ঈশ্বরকে ভালবাসতে এবং সন্তুষ্ট করতে হয়, এবং শেষ পর্যন্ত ঈশ্বরের সমস্ত ব্যবস্থার কাছে আত্মসমর্পণ করতে হয়। এটা আমাকে ঈশ্বরের কিছু বাণী মনে করিয়ে দেয়। “ঈশ্বরের প্রতি মানুষের ভালোবাসা তাঁর পরিমার্জনা এবং বিচারের ভিত্তির উপর নির্মিত হয়। যদি তুমি কেবলমাত্র শান্তিপূর্ণ পারিবারিক জীবন এবং বস্তুগত আশীর্বাদ লাভের মাধ্যমে ঈশ্বরের অনুগ্রহ উপভোগ করে থাকো, তাহলে তুমি ঈশ্বর লাভ করনি এবং ঈশ্বরের প্রতি তোমার বিশ্বাসও সফল বলে বিবেচিত হতে পারে না। ঈশ্বর ইতিমধ্যেই দেহরূপে অনুগ্রহের কাজের একটি পর্যায় নির্বাহ করেছেন এবং তিনি ইতিমধ্যেই মানুষের উপর বস্তুগত আশীর্বাদ বর্ষণ করেছেন, কিন্তু শুধুমাত্র অনুগ্রহ, ভালোবাসা এবং করুণার দ্বারা মানুষকে নিখুঁত রূপে গড়ে তোলা যায় না। মানুষের অনুভূতিতে, সে ঈশ্বরের ভালোবাসার কিয়দংশের সম্মুখীন হয় এবং ঈশ্বরের ভালোবাসা ও করুণা দেখতে পায়, তথাপি একটি নির্দিষ্ট সময়কাল জুড়ে তা অনুভব করা সত্ত্বেও, সে দেখে যে ঈশ্বরের অনুগ্রহ, এবং তাঁর ভালোবাসা ও করুণা মানুষকে নিখুঁত করতে অক্ষম, মানুষের মধ্যে যা কিছু ভ্রষ্ট তা প্রকাশে অক্ষম, এবং মানুষকে তার ভ্রষ্ট স্বভাব থেকে মুক্ত করতে অক্ষম, অথবা তার ভালোবাসা এবং বিশ্বাসকে নিখুঁত করতে অক্ষম। ঈশ্বরের অনুগ্রহের কাজটি ছিল একটি নির্দিষ্ট সময়কালের কাজ, এবং মানুষ ঈশ্বরকে জানার জন্য তাঁর অনুগ্রহ উপভোগ করার উপর নির্ভর করতে পারে না(বাক্য, খণ্ড ১, ঈশ্বরের আবির্ভাব ও তাঁর কার্য, শুধুমাত্র বেদনাদায়ক পরীক্ষার অভিজ্ঞতার দ্বারাই তুমি ঈশ্বরের মাধুর্য জানতে পারবে)। “ঈশ্বরের দ্বারা মানুষের নিখুঁতকরণ কী উপায়ে সাধিত হয়? ঈশ্বরের ধার্মিক স্বভাবের দ্বারা এটি সাধিত হয়। ঈশ্বরের স্বভাব মূলত ন্যায়পরায়ণতা, ক্রোধ, মহিমা, বিচার এবং অভিশাপের সমন্বয়ে গঠিত এবং তিনি মূলত তাঁর বিচারের মধ্য দিয়ে মানুষকে নিখুঁত করেন(বাক্য, খণ্ড ১, ঈশ্বরের আবির্ভাব ও তাঁর কার্য, শুধুমাত্র বেদনাদায়ক পরীক্ষার অভিজ্ঞতার দ্বারাই তুমি ঈশ্বরের মাধুর্য জানতে পারবে)। ঈশ্বরের বাণী পড়ে, আমি গভীরভাবে অনুভব করলাম যে অন্তিম সময়ে ঈশ্বরের বিচারকার্যের প্রকৃত উদ্দেশ্য হল মানবজাতিকে পরিশুদ্ধ এবং পরিবর্তিত করা। আমাদের বিশ্বাসের অশুদ্ধতা এবং আমাদের দুর্নীতিগ্রস্ত স্বভাব শুধুমাত্র ঈশ্বরের বাণীর বিচার, পরীক্ষা এবং পরিমার্জনার মাধ্যমে শুদ্ধ হতে পারে। শুধুমাত্র ঈশ্বরের অনুগ্রহের উপর নির্ভর করে তা অর্জন করা যায় না। আমি কখনওই এই জিনিসগুলো বুঝতে পারতাম না ঈশ্বরের বাণী ছাড়া, এই কঠিন অভিজ্ঞতাগুলো ছাড়া। সর্বশক্তিমান ঈশ্বরকে ধন্যবাদ!

পূর্ববর্তী: বিশ্বাস: শক্তির উৎস

প্রতিদিন আমাদের কাছে 24 ঘণ্টা বা 1440 মিনিট সময় থাকে। আপনি কি ঈশ্বরের সান্নিধ্য লাভের জন্য তাঁর বাক্য শিখতে 10 মিনিট সময় দিতে ইচ্ছুক? শিখতে আমাদের ফেলোশিপে যোগ দিন। কোন ফি লাগবে না।

সম্পর্কিত তথ্য

এঞ্জেলের কাহিনী

২০২০ সালের আগস্টে ফেসবুকে সিস্টার ইয়ে জিয়াং-এর সঙ্গে আমার পরিচয় হয়। সে আমাকে বলে, প্রভু যীশু ফিরে এসেছেন, তিনি অনেক সত্য প্রকাশ করছেন,...

অন্যদের দেখার জন্য ঈশ্বরের বাক্যই আমাদের একমাত্র আতসকাঁচ

শীলা আমার অনেকদিনের চেনা, আর আমি ওকে ভালোভাবেই জানি। যখনই আমাদের দেখা হতো, ও সবসময় ওর বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে গল্প করতো। ও বলতো যে অন্যদের...

Messenger-এর মাধ্যমে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন