ঈশ্বরের স্বরূপ অদ্বিতীয়, এবং তোমাদের বহু-ঈশ্বরবাদের ধারণাকে মান্য করা উচিত নয়

শয়তানের দক্ষতা ও সামর্থ্য যদিও মানুষের অপেক্ষা বেশি, যদিও সে মানুষের অসাধ্য কাজকর্ম সম্পাদনে সক্ষম, কিন্তু শয়তানের এইসব কার্যকলাপকে তুমি ঈর্ষা করো কিম্বা এগুলি সম্পাদনের বাসনা পোষণ করো বা না করো, এই সব কাজকর্মকে তুমি ঘৃণা করো কিম্বা এগুলির প্রতি বিতৃষ্ণা বোধ করো না করো, এই কাজকর্মগুলি প্রত্যক্ষ করতে তুমি সমর্থ হও বা না হও, এবং শয়তান যত সাফল্যই লাভ করুক, বা যত বেশি সংখ্যক মানুষকে প্রতারিত করে তাদের দিয়ে সে নিজের উপাসনা ও আরাধনা করাক না কেন, এবং যেভাবেই তুমি তাকে সংজ্ঞায়িত করো না কেন, তুমি সম্ভবত এটা বলতে পারো না যে শয়তান ঈশ্বরের কর্তৃত্ব ও ক্ষমতার অধিকারী। তোমার জানা উচিত যে ঈশ্বর হলেন ঈশ্বরই, কেবল একজন মাত্র ঈশ্বরই রয়েছেন, এবং তদুপরি, তোমার জানা উচিত যে একমাত্র ঈশ্বরেরই কর্তৃত্ব আছে, একমাত্র ঈশ্বরই সকলকিছুকে নিয়ন্ত্রণ ও শাসন করার ক্ষমতার অধিকারী। শুধুমাত্র এই কারণে যে শয়তানের মানুষকে প্রতারিত করার ও ঈশ্বরকে নকল করার ক্ষমতা রয়েছে, সে ঈশ্বরের অলৌকিক ও বিস্ময়কর কার্যাদি অনুকরণ করতে পারে, এবং সে ঈশ্বরের অনুরূপ কাজকর্ম সম্পন্ন করেছে, তাই ভ্রান্তিবশত তুমি বিশ্বাস করে বসো যে ঈশ্বর অনন্য নন, একাধিক ঈশ্বর রয়েছে, মনে করো যে এই বিভিন্ন ঈশ্বরগুলির দক্ষতার ক্ষেত্রেই কেবল কিছু তারতম্য রয়েছে, এবং ভেবে বসো যে এই ঈশ্বরগুলির অধিকৃত ক্ষমতার পরিসরের ক্ষেত্রেও কিছু পার্থক্য রয়েছে। তাদের মাহাত্ম্যকে তুমি বিন্যস্ত করো তাদের আবির্ভাবের ক্রম অনুসারে এবং তাদের যুগ অনুযায়ী, এবং তুমি ভুলবশতঃ বিশ্বাস করো যে ঈশ্বরের পাশাপাশি অন্য আরো দেবদেবীও আছে, এবং ভাবো যে ঈশ্বরের কর্তৃত্ব ও ক্ষমতা অনন্য নয়। তোমার যদি এজাতীয় ধারণা থেকে থাকে, যদি তুমি ঈশ্বরের অনন্যতাকে উপলব্ধি না করো, যদি তোমার এই বিশ্বাস না থাকে যে একমাত্র ঈশ্বরই কর্তৃত্বের অধিকারী, এবং তুমি যদি কেবল বহু-ঈশ্বরবাদকেই মেনে চলো, তাহলে আমি বলবো যে তুমি সৃষ্টজীবের মধ্যে আবর্জনা মাত্র, শয়তানের সত্যিকারের মূর্ত প্রতিরূপ, এবং দুষ্টতার তুমি চূড়ান্ত প্রতিমূর্তি! এই কথাগুলো বলে তোমাদের আমি যা শেখাতে চাইছি তা কি তোমরা বুঝতে পারছো? স্থান, কাল, বা তোমার পটভূমি যেমনই হোক, তুমি অবশ্যই কখনো ঈশ্বরকে অন্য কোনো মানুষ, জিনিস, বা বস্তুর সঙ্গে মিলিয়ে ফেলবে না। ঈশ্বরের কর্তৃত্ব ও স্বয়ং ঈশ্বরের সারসত্যকে তোমার যতোই অজ্ঞেয় ও অনভিগম্য বলে মনে হোক না কেন, শয়তানের কাজকর্ম ও কথাবার্তা তোমার পূর্বধারণা ও কল্পনার সাথে যতোই সঙ্গতিপূর্ণ হোক না কেন, এগুলি তোমার কাছে যতোই তৃপ্তিকর হোক না কেন, বোকামি কোরো না, এই ধারণাগুলিকে গুলিয়ে ফেলো না, ঈশ্বরের অস্তিত্বকে অস্বীকার কোরো না, ঈশ্বরের পরিচয় ও মর্যাদাকে অস্বীকার কোরো না, ঈশ্বরকে বহিষ্কৃত করে ও শয়তানকে এনে তোমার অন্তরে তাঁর জায়গায় বসিয়ে তাকে তোমার ঈশ্বর করে তুলো না। এরকম করার ফলশ্রুতিগুলি কল্পনা করতে তোমরা যে সক্ষম সে বিষয়ে আমার কোনো সন্দেহ নেই!

—বাক্য, খণ্ড ২, ঈশ্বরকে জানার প্রসঙ্গে, স্বয়ং অনন্য ঈশ্বর ১

পূর্ববর্তী: যিনি সৃষ্টিকর্তার পরিচয়ের অধিকারী, একমাত্র সেই ঈশ্বরই অনন্য কর্তৃত্ব ধারণ করেন

পরবর্তী: মানবজাতিকে ভ্রষ্ট করা হলেও, এখনো সে সৃষ্টিকর্তার কর্তৃত্বের সার্বভৌমত্বের অধীনে বাস করে

প্রতিদিন আমাদের কাছে 24 ঘণ্টা বা 1440 মিনিট সময় থাকে। আপনি কি ঈশ্বরের সান্নিধ্য লাভের জন্য তাঁর বাক্য শিখতে 10 মিনিট সময় দিতে ইচ্ছুক? শিখতে আমাদের ফেলোশিপে যোগ দিন। কোন ফি লাগবে না।

সম্পর্কিত তথ্য

শয়তানকে দেখে মানবিক, ন্যায়পরায়ণ ও সদ্গুনসম্পন্ন মনে হলেও, শয়তানের সারসত্য নিষ্ঠুর ও অশুভ

মানুষকে প্রতারণার মাধ্যমে শয়তান তার সুনাম নির্মাণ করে, এবং নিজেকে প্রায়শই ন্যায়পরায়ণতার একজন পুরোধা তথা আদর্শ নমুনা হিসাবে প্রতিষ্ঠিত করে।...

দ্বিতীয় দিবসে, ঈশ্বরের কর্তৃত্ব জলরাশির আয়োজন করে, এবং তৈরি করে নভোমণ্ডল এবং মানুষের বেঁচে থাকার জন্য সবচেয়ে মৌলিক একটি স্থান আবির্ভূত হয়

বাইবেলের দ্বিতীয় অনুচ্ছেদটি পাঠ করা যাক: “ঈশ্বর বললেন, সৃষ্ট হোক নভোমণ্ডল, বিভক্ত করুক জলরাশিকে! ঈশ্বর এইভাবে নভোমণ্ডল সৃষ্টি করে তার...

প্রথম দিবসে, ঈশ্বরের কর্তৃত্বের বদান্যতায় মানবজাতির দিন এবং রাতের সূচনা হয় এবং অবিচল থাকে

প্রথম অনুচ্ছেদটির প্রতি দৃষ্টিপাত করা যাকঃ: “ঈশ্বর বললেন, দীপ্তি হোক! দীপ্তির হল আবির্ভাব। ঈশ্বর দেখলেন, চমৎকার এই দীপ্তি। অন্ধকার থেকে...

তৃতীয় দিবসে, ঈশ্বরের বাক্যসমূহ জন্ম দেয় পৃথিবী এবং সমুদ্রের এবং ঈশ্বরের কর্তৃত্ব বিশ্বে প্রাণসঞ্চার করে

এরপর, পাঠ করা যাক আদিপুস্তক ১:৯-১১-এর প্রথম বাক্যটি: “ঈশ্বর বললেন, আকাশের নীচে সমস্ত জলরাশি এক স্থানে সংহত হোক, প্রকাশিত হোক শুষ্ক ভূমি!”...

সেটিংস

  • লেখা
  • থিমগুলি

ঘন রং

থিমগুলি

ফন্টগুলি

ফন্ট সাইজ

লাইনের মধ্যে ব্যবধান

লাইনের মধ্যে ব্যবধান

পৃষ্ঠার প্রস্থ

বিষয়বস্তু

অনুসন্ধান করুন

  • এই লেখাটি অনুসন্ধান করুন
  • এই বইটি অনুসন্ধান করুন

Messenger-এর মাধ্যমে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন