সর্বশক্তিমান ঈশ্বর এবং প্রভু যীশু অভিন্ন ঈশ্বর

05-03-2022

মানবজাতি যখন শয়তানের দ্বারা কলুষিত হয়েছিল, তখন মানবজাতির পরিত্রাণের জন্য ঈশ্বর তাঁর পরিচালনামূলক পরিকল্পনা শুরু করেছিলেন। মানবজাতির পরিত্রাণের জন্য ঈশ্বর তিনটি পর্যায়ে কাজ করেছেন, সেগুলি হল আইন-কানুনের যুগে যিহোবা ঈশ্বরের কাজ, অনুগ্রহের যুগে প্রভু যীশুর কাজ এবং রাজ্যের যুগে সর্বশক্তিমান ঈশ্বরের কাজ। আইন-কানুনের যুগে ঈশ্বরের উপাসনা করা উচিত এ কথা লোকেদের জানাতে এবং পাপ কী তা তাদের অবগত করতে যিহোবা ঈশ্বর আইন জারি করেছিলেন এবং মানবজাতির জীবন পরিচালনা করেছিলেন। কিন্তু আইন-কানুনের যুগের চূড়ান্ত পর্যায় আসার সাথে সাথে মানবজাতির দুর্নীতি আরও গভীর হয়ে ওঠে এবং মানুষ প্রায়ই আইন লঙ্ঘন করত এবং যিহোবা ঈশ্বরের বিরুদ্ধে পাপ করত। লঙ্ঘনের কারণে তারা শাস্তি ও মৃত্যুদণ্ডের ঝুঁকি বহন করত। এইভাবে, মানবজাতির প্রয়োজন মেটাতে, অনুগ্রহের যুগে ঈশ্বর মানবরূপ ধারণ করেন এবং প্রভু যীশুতে পরিণত হন। মানবজাতির প্রয়োজনে তিনি ক্রুশে বিদ্ধ হয়েছিলেন এবং মানুষকে পাপ থেকে মুক্তি দিয়েছিলেন, মানুষকে ঈশ্বরের সমীপবর্তী এবং প্রার্থনা করার, স্বীকার এবং অনুতপ্ত হওয়ার, তাদের পাপের জন্য ক্ষমা পাওয়ার এবং ঈশ্বরের অনুগ্রহ ও আশীর্বাদের ঐশ্বর্যে জীবন-যাপনের অধিকার দিয়েছিলেন। যেহেতু মানুষের পাপী প্রকৃতির সমাধান বাকি ছিল, এবং তারা এখনও প্রায়শই পাপ করে এবং ঈশ্বরের বিরোধিতা করে, তাই রাজ্যের যুগে ঈশ্বর আরও একবার দেহরূপ ধারণ করেছিলেন, সর্বশক্তিমান ঈশ্বরের নাম পরিগ্রহ করে প্রভু যীশুর পরিত্রাণের কাজের উপর ভিত্তি করে ঈশ্বরের ঘর থেকে শুরু হওয়া বিচারের কাজটি সম্পাদন করেছিলেন; এবং মানবজাতির পরিত্রাণ ও শুদ্ধির জন্য সমস্ত সত্য প্রকাশ করেছিলেন, মানবজাতির পাপী প্রকৃতিকে নির্মূল করে ঈশ্বরের প্রতি তাদের অবাধ্যতা এবং বিরোধিতা বন্ধ করে মানুষকে তিনি অনুমতি দেন প্রকৃত ঈশ্বরের আনুগত্যের এবং উপাসনার, এবং পরিণামে মানবজাতিকে তিনি এক সুন্দর গন্তব্যে নিয়ে যান। যদিও আইন-কানুনের যুগে, অনুগ্রহের যুগে এবং রাজ্যের যুগে ঈশ্বরের কাজ ছিল ভিন্ন ভিন্ন এবং তিনি যে সকল নাম এবং প্রকৃতি প্রদর্শন করেছিলেন সেগুলিও বিভিন্ন রকমের, কিন্তু তাঁর কাজের সারবত্তা এবং লক্ষ্য একই—সকলই হল মানুষকে রক্ষা এবং সব কাজ ঈশ্বর স্বয়ং করেন। যেমন সর্বশক্তিমান ঈশ্বর বলেছেন, “যিহোবার কাজ থেকে যীশুর কাজ পর্যন্ত, এবং যীশুর কাজ থেকে বর্তমান পর্যায় পর্যন্ত, এই তিনটি পর্যায় ক্রমান্বয়ে ঈশ্বরের ব্যবস্থাপনার বিস্তারকে বিবৃত করে, এবং তা সবই এক আত্মার কাজ। পৃথিবীর সৃষ্টির পর থেকে ঈশ্বর সর্বদাই মানুষকে পরিচালনার কাজ করে গেছেন। তিনিই আদি এবং অন্ত, তিনিই প্রথম এবং অন্তিম, এবং তিনিই একটি যুগের সূচনা করেন এবং সেই যুগকে সমাপ্ত করেন। বিভিন্ন যুগে এবং বিভিন্ন অঞ্চলে তিনটি পর্যায়ের কাজ, অভ্রান্তভাবে একটি আত্মার কাজ। যারা এই তিনটি পর্যায়কে পৃথক করে, তারা সকলেই ঈশ্বরের বিরোধী। এবার তোমার এই কথা বোঝা উচিত যে প্রথম পর্যায় থেকে আজ পর্যন্ত হওয়া কাজ একমাত্র ঈশ্বরের কাজ, একমাত্র আত্মার কাজ। এই বিষয়ে কোনও দ্বিধা থাকতে পারে না” (বাক্য দেহে আবির্ভূত হল -এ “ঈশ্বরের কর্মের দর্শন (3)”)।

হাজার হাজার বছর ধরে, খুব কম মানুষই অবগত যে প্রভু যীশু খ্রীষ্ট নিজেই ঈশ্বর, তিনি ঈশ্বরের আবির্ভাব, এবং তিনিই দেহরূপে ঈশ্বর। প্রকৃতপক্ষে, বাইবেল বহু পূর্বেই প্রভু যীশুর কথা স্পষ্টভাবে লিপিবদ্ধ করেছে, “আমায় যে দর্শন করেছে সে আমার পিতারও দর্শনলাভ করেছে” (যোহন 14:9)। “পিতা আমার মধ্যে বিদ্যমান এবং আমিও পিতার মধ্যে বিদ্যমান” (যোহন 10:38)। “আমার পিতা এবং আমি অভিন্ন” (যোহন 10:30)। প্রভু যীশু যখন বলেন, “আমার পিতা এবং আমি অভিন্ন,” তিনি বলতে চান যে তিনি এবং যিহোবা ঈশ্বর উভয়েই এক আত্মা। প্রভু যীশুর দ্বারা উচ্চারিত শব্দ এবং যিহোবার দ্বারা উচ্চারিত শব্দগুলি একই-তারা উভয়ই সত্য, তারা একই আত্মার উচ্চারণ এবং তাদের উৎসও এক। অর্থাৎ, প্রভু যীশু এবং যিহোবা একই ঈশ্বর। অনুরূপভাবে, অন্তিম দিনের সর্বশক্তিমান ঈশ্বরের দ্বারা প্রকাশিত শব্দগুলির উৎস এবং প্রভু যীশুর দ্বারা প্রকাশিত শব্দগুলির উৎস একই, সেগুলি পবিত্র আত্মার উচ্চারণ, সেগুলি সত্য এবং তারা ঈশ্বরের কণ্ঠস্বর। যারা প্রভুতে বিশ্বাস করে তারা সকলেই জানে যে বাইবেলের বহু ভবিষ্যদ্বাণী প্রভুর প্রত্যাবর্তন এবং অন্তিম দিনের ঈশ্বরের বিচারের কাজ সম্পর্কিত। “তোমাদের জন্য স্থান নির্দিষ্ট করতে আমি যখন যাচ্ছি তখন আমার কাছে তোমাদের নিয়ে যেতে নিশ্চয়ই আবার ফিরে আসব যাতে আমি যেখানে থাকব সেখানে তোমরাও থাকতে পার” (যোহন 14:3)। “দেখ, আমি শীঘ্রই আসছি” (প্রকাশিত বাক্য 22:12)। “ঠিক তখনই তারা পরাক্রম ও মহাগৌরবে বিভূষিত মানবপুত্রকে মেঘরথে আসতে দেখবে” (লুক 21:27)। “দেখ, আমি চোরের মত আসব” (প্রকাশিত বাক্য 16:15)। “যে আমার বাণী গ্রহণ না করে আমাকে প্রত্যাখ্যান করে তার বিচার হবে অন্যভাবে। শেষের দিনে আমার মুখনিঃসৃত সেই বাণীই হবে তার বিচারক” (যোহন 12:48)। পিটারের প্রথম পত্রেও এটা বলা হয়েছিল “বিচারের কাল সমাগত, ঈশ্বরের আপনজনদের দিয়েই তা হবে সুরু” (১ পিতর 4:17)। এই ধর্মগ্রন্থগুলিতে খুব স্পষ্টভাবে বলা হয়েছিল যে প্রভু যীশু অন্তিম দিনে ফিরে আসবেন এবং বাক্যগুলির প্রকাশ এবং বিচারের কাজ করবেন। সর্বশক্তিমান ঈশ্বর যখন অন্তিম দিনে আগমন করেন, তিনি প্রভু যীশুর পরিত্রাণের কাজের ভিত্তির উপর ঈশ্বরের ঘর থেকে শুরু করে বিচারের কাজ করেন এবং মানবজাতির শুদ্ধি ও পরিত্রাণের জন্য সমস্ত সত্য প্রকাশ করেন। যদিও সর্বশক্তিমান ঈশ্বরের কাজ এবং প্রভু যীশুর কাজ পৃথক, কিন্তু তাদের উৎস অনুরূপ—একেশ্বর! এটি প্রভু যীশুর ভবিষ্যদ্বাণী সম্পূর্ণরূপে পূর্ণ করে: “তোমাদের আরও অনেক কথা আমার বলার আছে কিন্তু এখন তোমাদের পক্ষে তা হৃদয়ঙ্গম করা কঠিন। সেই সত্যের আত্মা যখন আসবেন তিনিই তখন তোমাদের পূর্ণ সত্যের উপলব্ধি দান করবেন। তিনি নিজে থেকে কিছুই বলবেন না, যা তিনি শুনবেন শুধুমাত্র তা-ই বলবেন এবং সমস্ত ভাবী ঘটনার কথা তিনি তোমাদের কাছে প্রকাশ করবেন” (যোহন 16:12–13)। অন্তিম দিনের অবতার সর্বশক্তিমান ঈশ্বর হলেন সত্যের আত্মার মূর্ত প্রতীক; সর্বশক্তিমান ঈশ্বর হলেন প্রত্যাবর্তিত প্রভু যীশু।

প্রতিদিন আমাদের কাছে 24 ঘণ্টা বা 1440 মিনিট সময় থাকে। আপনি কি ঈশ্বরের সান্নিধ্য লাভের জন্য তাঁর বাক্য শিখতে 10 মিনিট সময় দিতে ইচ্ছুক? শিখতে আমাদের ফেলোশিপে যোগ দিন। কোন ফি লাগবে না।👇

সম্পর্কিত তথ্য

রাজ্যের যুগে ঈশ্বর কেন সর্বশক্তিমান ঈশ্বরের নাম পরিগ্রহণ করলেন

বহু সংখ্যক মানুষ এ কথা বুঝতে পারেন না যে প্রভু যীশুর পুনরাগত রূপই যখন সর্বশক্তিমান ঈশ্বর, তখন, অন্তিম সময়ে প্রভু যীশু যখন বিচারের কাজ করতে...

খ্রিষ্ট ধর্ম এবং সর্বশক্তিমান ঈশ্বরের গির্জার মধ্যে পার্থক্য

অবতাররূপী প্রভু যিশুর ত্রাণের কাজ অনুসরণ করে খ্রিষ্টধর্মের উদ্ভব হয়; একটি খ্রিষ্টান গির্জাই দয়ার যুগের সাথে সম্পর্ক বজায় রাখে। অন্তিম...

ঐশ্বরিক উচ্চারণকে কেন আমরা বলি যে বাক্য দেহে আবির্ভূত হল?

বাইবেল থেকেই আমরা সবাই জেনেছি যে, ঈশ্বরের আত্মা সরাসরি বলা, কোনো ভবিষ্যদ্বক্তার মাধ্যমে বলা বা ঈশ্বরের অবতার হিসাবে প্রভু যীশুর দ্বারা...

Messenger-এর মাধ্যমে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন