অধ্যায় ৯৬

আমা-হতে জন্ম নিয়েও যারা আমাকে জানে না, আমার ক্রোধ, আমার মহান শক্তি, ও আমার পূর্ণ প্রজ্ঞাকে প্রতীয়মান করে তোলার জন্য আমি তাদের প্রত্যেককে শাস্তি দেব। আমাতে, সকলই ন্যায়পরায়ণ, এখানে প্রকৃতই কোনো অধার্মিকতা, চাতুরি ও কুটিলতা নেই; যেই কুটিল এবং শঠ সে অবশ্যই নরকের পুত্র, এবং মৃতস্থানে তার জন্ম। আমাতে সবকিছুই উন্মুক্ত; আমি যা সম্পন্ন হবে বলে বলি তা সম্পন্ন হবে, অতি-অবশ্যই তা সম্পন্ন হবে; আমি যা প্রতিষ্ঠিত হবে বলে বলি, তা প্রতিষ্ঠিত হবে, এবং কেউই এই বিষয়গুলির পরিবর্তন করতে পারবে না বা সেগুলির অনুকরণ করতে পারবে না, কারণ স্বয়ং আমি-ই অদ্বিতীয়, সত্য ঈশ্বর। যা আসতে চলেছে, তার মধ্যে আমার পূর্বনির্ধারিত ও নির্বাচিত প্রথমজাত পুত্রদের গোষ্ঠীর মধ্যে যারা রয়েছে তাদের প্রত্যেককে একে একে অনাবৃত করা হবে, যারা প্রথমজাত পুত্রদের গোষ্ঠীতে নেই তারা প্রত্যেকে এর মাধ্যমে আমার দ্বারা বহিষ্কৃত হবে। এইভাবেই আমি আমার কার্য সম্পন্ন ও সমাধা করি। এই মুহূর্তে, আমি কিছু মানুষের স্বরূপ প্রকাশ করি যাতে আমার প্রথমজাত পুত্ররা আমার চমকপ্রদ কর্ম চাক্ষুষ করতে পারে, কিন্তু পরবর্তীকালে আমি এইভাবে কর্ম করব না। বরং, একে একে তাদের প্রত্যেককে নিজ-নিজ যথার্থ প্রকৃতি দেখানোর পরিবর্তে সাধারণ পরিস্থিতি থেকে কাজ শুরু করব (কারণ দানবেরা মূলতঃ একই রকমের হয়, তাই, কয়েকজনকে দৃষ্টান্ত হিসাবে বেছে নেওয়াই যথেষ্ট)। আমার সকল প্রথমজাত পুত্র অন্তর থেকে স্বচ্ছ, এবং এবিষয়ে আমার বিশদ ব্যাখ্যার প্রয়োজন নেই (কারণ নির্দিষ্ট সময়ে, তারা অবশ্যই একাদিক্রমে প্রকাশিত হবে)।

আমার প্রতিশ্রুতি রক্ষার উদ্দেশ্যে এ-ই হল আমার স্বভাব, আমার কাছে কোনোকিছুই প্রচ্ছন্ন বা গোপন নয়। তোমাদের যা যা উপলব্ধি করা প্রয়োজন সেগুলির প্রতিটি সম্পর্কেই তোমাদের সমস্ত কিছু বলব, এবং যা যা তোমাদের জানা অনুচিত নয় সেই বিষয় বিন্দুমাত্র কিছুই বলব না, নচেৎ তোমরা দৃঢ় হয়ে দাঁড়াতে অক্ষম হয়ে পড়তে পারো। তুচ্ছ বিষয়গুলিকে আঁকড়ে ধরে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলিকে হারিয়ে ফেলো না—সেগুলির প্রকৃতই কোনো মূল্য নেই। যদি এই বিশ্বাস রাখো যে আমিই সর্বশক্তিমান ঈশ্বর, তবে সকলই সাধিত হবে, এবং সবকিছুই সহজ ও মনোরম হয়ে উঠবে। এইভাবেই আমি কার্যসাধন করি। যে বিশ্বাস করে আমি তাকে দেখার অনুমতি দেব, এবং যে বিশ্বাস করে না আমি তাকে অনুমতি দেব না জানার, এবং আমি তাকে দেব না উপলব্ধি করতে। আমার মধ্যে কোনো অনুভূতি অথবা করুণা নেই, এবং যে-ই আমার শাস্তিকে অবমাননা করুক না কেন, অঙ্গুলিহেলনমাত্র না করেই আমি তাকে হত্যা করব, এবং তাদের সকলের সঙ্গেই আমি অনুরূপ আচরণ করব। সকলের প্রতি আমি সমভাব—আমার কোনো ব্যক্তিগত অনুভূতি নেই এবং আমি কোনোভাবেই আবেগপ্রবণ হয়ে আচরণ করি না। এর মাধ্যমে আমার ন্যায়পরায়ণতা ও মহিমা মানুষ কীভাবে না দেখে থাকতে পারে? এটা আমার প্রজ্ঞা ও আমার স্বভাব, যা কেউ পরিবর্তন করতে পারে না এবং কেউই সম্পূর্ণ জানতে পারে না। আমার হস্তদ্বয় সকল সময়ে প্রতিনিয়ত সবকিছু পরিচালনা করে, এবং আমি সর্বদাই আমার নির্দেশে কার্যসাধনের জন্য সকলকিছুর আয়োজন করি। আমার পরিচালনামূলক পরিকল্পনাকে পূর্ণ করতে আমার হয়ে অসংখ্য মানুষ সেবাপ্রদান করছে, কিন্তু পরিশেষে তারা আশীর্বাদ দেখা সত্ত্বেও সেগুলি উপভোগ করতে পারে না—কী দুঃখজনক! কিন্তু কেউ আমার হৃদয়ের পরিবর্তন করতে পারে না। এটা আমার প্রশাসনিক ফরমান (যখনই প্রশাসনিক ফরমানসমূহের প্রসঙ্গ উল্লেখ করা হয়, তখন তা এমন বিষয়কে বোঝায় যা কেউ পরিবর্তন করতে পারে না, তাই যখন আমি ভবিষ্যতের বিষয়ে বলি, যদি আমি কোনো বিষয়ে মনস্থির করে থাকি তবে সেটা নিশ্চিতভাবেই আমার প্রশানিক ফরমান। মনে রেখো! এর অবমাননা কোরো না, নচেৎ তুমি ক্ষতির সম্মুখীন হবে), এটা আমার পরিচালনামূলক পরিকল্পনার একটা অংশও বটে। এটা আমার নিজস্ব কর্ম, এটা এমন কোনো বিষয় নয় যা কোনো মানুষ সাধন করতে পারে। আমাকে এটা করতেই হবে—আমাকে এই আয়োজন করতেই হবে, যা আমার সর্বশক্তিমত্তার প্রদর্শন ও আমার ক্রোধকে প্রতীয়মান করে তোলার পক্ষে যথেষ্ট।

অধিকাংশ মানুষ এখনো আমার মানবতা সম্বন্ধে জানে না এবং এবিষয়ে স্পষ্ট নয়। আমি এটা বেশ কয়েকবার বলেছি, কিন্তু তোমরা এখনো কুয়াশাচ্ছন্ন ও বিশেষ কিছু উপলব্ধি করো না। কিন্তু এটা আমার কাজ, এবং এখন, এই সময়, যারা জানে তারা জানে, এবং যারা জানে না, আমি তাদের জোর করব না। এটা একমাত্র এইভাবেই হতে পারে। আমি এবিষয়ে স্পষ্ট ভাবে বলেছি, এবং এই ব্যাপারে পরে আর কিছু বলব না (কারণ আমি অনেক বেশি বলেছি, এবং আমি অত্যন্ত স্পষ্টভাবে উচ্চারণ করেছি। যে আমাকে জানে সে অবশ্যই পবিত্র আত্মার কর্মকে অর্জন করেছে এবং সে সন্দেহাতীতভাবেই আমার প্রথমজাত পুত্রদের একজন। এবং যে আমাকে জানে না সে অবশ্যই নয়, যা প্রমাণ করে যে আমি ইতিমধ্যেই তার কাছ থেকে আমার আত্মাকে প্রত্যাহার করে নিয়েছি)। কিন্তু পরিশেষে, আমি প্রত্যেককে, আমাকে জানতে বাধ্য করব—সম্পূর্ণভাবে আমাকে জানতে, আমার মানবতা ও আমার দেবত্ব উভয়ের মধ্যেই। এগুলোই আমার কাজের ধাপ, এবং আমাকে এইভাবেই কার্যসাধন করতে হবে। এটাও আমার প্রশাসনিক ফরমান। প্রত্যেক মানুষকেই আমায় একমাত্র সত্য ঈশ্বর বলতে হবে এবং আমার স্তুতি ও প্রফুল্লচিত্তে অবিরাম আমার বন্দনা করতে হবে।

আমার পরিচালনামূলক পরিকল্পনা ইতিমধ্যেই সম্পূর্ণরূপে সমাপ্ত হয়েছে, এবং সবকিছুই দীর্ঘকাল আগে সম্পন্ন হয়েছে। কিন্তু মানুষের চোখে মনে হয় যে, যদিও আমার অনেক কাজ এখনও অগ্রসর হচ্ছে, কিন্তু আমি তা ইতিমধ্যেই যথাযথভাবে আয়োজন করেছি, এবং এখন শুধু এই কার্যসকল একাদিক্রমে, আমার পদক্ষেপ অনুসারে, সম্পন্ন হওয়ার অপেক্ষায় রয়েছে (এর কারণ হল যে, বিশ্বসৃষ্টির পূর্বেই, কে বিচারের সম্মুখে দৃঢ়ভাবে দাঁড়াতে সক্ষম, কে আমার দ্বারা নির্বাচিত ও পূর্বনির্ধারিত হতে পারবে না, এবং কে আমার যন্ত্রণার ভাগীদার হতে পারবে না, তা আমি পূর্বনির্ধারণ করেছি। যারা আমার যন্ত্রণার ভাগীদার হতে পারে—অর্থাৎ, যারা আমার দ্বারা পূর্বনির্ধারিত ও নির্বাচিত হয়েছে, তাদের আমি নিশ্চিতভাবেই রাখব এবং সবকিছু অতিক্রম করে যেতে তাদের সক্ষম করে তুলব)। কে কোন ভূমিকায় রয়েছে সেই বিষয়ে আমার অন্তঃকরণ স্বচ্ছ। কে আমার প্রতি সেবা প্রদান করে, কে আমার প্রথমজাত পুত্র, এবং কে আমার পুত্রগণ ও লোকদের মধ্যে রয়েছে, সেই বিষয়ে আমি পূর্ণত সচেতন। এই বিষয়গুলো আমি নিজের হাতের তালুর মতো জানি। অতীতে প্রথমজাত পুত্র হিসাবে যার কথা বলেছি সে এখনও আমার প্রথমজাত পুত্র, এবং, অতীতে যার সম্বন্ধে বলেছি যে সে প্রথমজাত পুত্র নয়, সে এখনো প্রথমজাত পুত্র নয়। আমি যা-ই করি যা কেন, তার জন্য আমি অনুতাপ করি না, এবং সহজে তার পরিবর্তন করি না। আমি যা বলি তা-ই পালন করি (আমাতে কোনোকিছুই অসার নয়), এবং তা চির-অপরিবর্তনীয়! যারা আমার প্রতি সেবা প্রদান করে তারা সর্বদাই আমার প্রতি সেবা প্রদান করে: তারা আমার গবাদি পশু, আমার আমার তুরঙ্গ (কিন্তু এই সমস্ত মানুষ কখনোই তাদের আত্মায় আলোকপ্রাপ্ত নয়; যখন আমি তাদের ব্যবহার ঘটাই তখন তারা প্রয়োজনীয়, কিন্তু যখন আমি তাদের ব্যবহার ঘটাই না, তখন আমি তাদের হত্যা করি। গবাদি পশু ও ঘোটক বলতে আমি তাদের বিষয়েই বোঝাই, যারা নিজ-আত্মায় আলোকপ্রাপ্ত নয়, যারা আমাকে জানে না ও আমায় অমান্য করে, এবং এমনকি তারা যদিও বা বাধ্য, সমর্পিত, এবং সরল ও সৎ হয়ে থাকে, তবু তারা এখনও গবাদি পশু এবং অশ্ব)। এখন আমার সম্মুখে অধিকাংশ মানুষই অসংযত ও লাগামছাড়া, উচ্ছৃঙ্খল ভাবে কথা বলছে, হাসাহাসি করছে, অসম্মানজনক ব্যবহার করছে—তারা শুধু আমার মনুষ্যত্ব দেখে, দেবত্ব নয়। মনুষ্যরূপে আমি এহেন আচরণ উপেক্ষণীয় তথা ক্ষমণীয় গণ্য করতে পারি, কিন্তু আমার দেবত্বের পক্ষে তেমনটা করা অত সহজ নয়। ভবিষ্যতে, আমি এটা স্থির করব যে তুমি ধর্মদ্রোহিতার পাপ করেছ। অর্থাৎ, আমার মনুষ্যত্বের অবমাননা করা যেতে পারে, আমার দেবত্বের নয়, এবং যে আমার সঙ্গে সামান্যতমও দ্বন্দ্ব করে, কালক্ষেপমাত্র না করে অবিলম্বে আমি তার বিচার করব। এমন ভেবোনা যে, আমি যে ব্যক্তি তার সঙ্গে তুমি বহু বছর ধরে জড়িত রয়েছ বলেই তুমি আমার সঙ্গে পরিচিত হয়ে গেছে, এবং তুমি লাগামহীন ভাবে কথা বলতে পারো ও আচরণ করতে পারো। আমি সত্যিই এই নিয়ে মাথা ঘামাই না! সে যেই হোক না কেন আমি তার সঙ্গে ন্যায়পরায়ণভাবে আচরণ করব। এ-ই হল আমার ন্যায়পরায়ণতা।

মানুষের কাছে আমার রহস্যগুলি দিনে দিনে প্রকাশিত হয় এবং উদ্‌ঘাটনের পর্যায়গুলির সঙ্গে সঙ্গে নিয়ত সেগুলি স্পষ্টতর হয়, যা আমার কর্মের গতি প্রদর্শনের পক্ষে যথেষ্ট। এ-ই হল আমার প্রজ্ঞা (আমি তা সরাসরি বলি না। আমি আমার প্রথমজাত পুত্রদের আলোকপ্রাপ্তি ঘটাই এবং অতিকায় লাল ড্রাগনের সন্তানসন্ততিদের অন্ধ করে দিই)। সর্বোপরি, আজ আমার পুত্রের মাধ্যমে তোমাদের কাছে আমি আমার রহস্যকে প্রকাশ করব। মানুষের কাছে যে বিষয়গুলি কল্পনাতীত তা আজ তোমাদের সামনে প্রকাশ করব, যাতে তোমরা তা বিশদে জানতে পারো, এবং একটা স্পষ্ট উপলব্ধি অর্জন করতে পারো। উপরন্তু, আমার প্রথমজাত পুত্রগণ ব্যতীত আর প্রত্যেকের মধ্যেই এই রহস্য বিরাজমান, কিন্তু কেউ তা উপলব্ধি করতে পারে না। যদিও তা প্রত্যেক ব্যক্তির মধ্যেই রয়েছে, তবুও কেউ-ই তা শনাক্ত করতে পারে না। আমি কী বলছি? এই সময়কালে আমার কর্মে ও আমার উচ্চারণে আমি প্রায়শই অতিকায় লাল ড্রাগন, শয়তান, দানব ও প্রধান দেবদূতের কথা উল্লেখ করেছি। তারা কী? তাদের মধ্যে সম্পর্ক কী? এই সকল বিষয়ের মধ্যে কী প্রতীয়মান হয়? অতিকায় লাল ড্রাগন যে বিষয়গুলি প্রতীয়মান করে তা হল আমাকে প্রতিরোধ, আমার বাক্যের অর্থের প্রতি উপলব্ধি ও অনুধাবনের অভাব, আমাকে ঘন ঘন নির্যাতন করা, এবং আমার ব্যবস্থাপনায় ব্যাঘাত ঘটানোর জন্য বিভিন্ন ষড়যন্ত্রের ব্যবহার। শয়তান নিম্নোক্ত ভাবে প্রতীয়মান হয়: ক্ষমতার জন্য আমার সঙ্গে লড়াই, আমার নির্বাচিত লোকদের দখল করার বাসনা, এবং আমার লোকদের প্রতারণা করার জন্য নেতিবাচক কথা ছড়ানো। দানবের (যারা আমার নাম গ্রহণ করে না, যারা বিশ্বাস করে না, তারা সকলেই দানব) প্রকাশগুলি হল এমনতর: দৈহিক স্বাচ্ছন্দ্যের প্রতি বাসনা, মন্দ কামনাকে প্রশ্রয়দান, শয়তানের দাসত্ব বাস করা, যেখানে কেউ কেউ আমাকে প্রতিরোধ করে এবং কেউ কেউ আমাকে সমর্থন করে (তার দ্বারা এটা প্রমাণিত হয় না যে তারা আমার প্রিয়তম পুত্র)। প্রধান দেবদূতের প্রকাশগুলি হল এইরকম: উদ্ধত ভাবে কথা বলা, অধার্মিক হওয়া, মানুষকে জ্ঞান দেওয়ার জন্য আমার কণ্ঠস্বর গ্রহণ, নিছক বাহ্যিকভাবে আমায় অনুকরণ, আমি যা ভোজন করি তা ভোজন করা এবং আমি যা ব্যবহার করি তাই ব্যবহার করা, সংক্ষেপে বলতে গেলে, আমি যেখানে দাঁড়িয়ে রয়েছি সেইখানে দাঁড়ানোর চেষ্টা, আমার সমতুল যোগ্যতার অভাব থাকা সত্ত্বেও এবং আমার সমতুল জীবনের অধিকারী না হয়েও, এবং নিছক একটা অবর্জনা হওয়া সত্ত্বেও, উচ্চাকাঙ্ক্ষী হওয়া। শয়তান, দানব, প্রধান দেবদূত, সকলেই অতিকায় লাল ড্রাগনের চিরাচরিত প্রকাশ, তাই যারা আমার দ্বারা পূর্বনির্ধারিত ও নির্বাচিত নয় তারা সকলেই অতিকায় লাল ড্রাগনের সন্তানসন্ততি: বিষয়টি ঠিক এমনই! এরা সকলেই আমার শত্রু। (তবে শয়তানের বাধাগুলির প্রসঙ্গ বাদ দেওয়া হল। তোমার প্রকৃতি যদি আমার গুণমানের হয়, তাহলে কেউ তা পরিবর্তন করতে পারবে না। কারণ তুমি এখনও দেহরূপে বাস করো, মাঝে মাঝে তুমি শয়তানের প্রলোভনের সম্মুখীন হবে—এটা অনিবার্য হবে—কিন্তু তোমাকে সর্বদাই সতর্ক থাকতে হবে।) সেহেতু, আমার প্রথমজাত পুত্রগণ ব্যতীত অতিকায় লাল ড্রাগনের সকল সন্তানসন্ততিগণকেই আমি পরিত্যাগ করব। তাদের প্রকৃতির কখনোই পরিবর্তন হবে না—এ হল শয়তানের এক বিশেষত্ব। তারা শয়তানোচিত ভাবেই আত্ম-প্রকাশ করে, এবং তারা প্রধান দেবদূতকেই যাপন করে। এ হল সম্পূর্ণ সত্য। যে অতিকায় লাল ড্রাগনের বিষয়ে আমি বলি, তা কোনো বিরাট আকারের লাল রঙের ড্রাগন নয়; বরং আমার বিরোধিতাকারী এক দুষ্ট আত্মা, “অতিকায় লাল ড্রাগন” হল যার একটি সমার্থক শব্দবন্ধনী। পবিত্র আত্মা ব্যতীত আর সকল আত্মাই হল দুষ্ট আত্মা, এবং তাদের অতিকায় লাল ড্রাগনের সন্তানসন্ততি বলা যেতে পারে। এই বিষটি প্রত্যেকের কাছে স্ফটিকস্বচ্ছ হওয়া উচিত।

পূর্ববর্তী: অধ্যায় ৯৫

পরবর্তী: অধ্যায় ১০৩

প্রতিদিন আমাদের কাছে 24 ঘণ্টা বা 1440 মিনিট সময় থাকে। আপনি কি ঈশ্বরের সান্নিধ্য লাভের জন্য তাঁর বাক্য শিখতে 10 মিনিট সময় দিতে ইচ্ছুক? শিখতে আমাদের ফেলোশিপে যোগ দিন। কোন ফি লাগবে না।👇

সম্পর্কিত তথ্য

শুধুমাত্র অন্তিম সময়ের খ্রীষ্ট মানুষকে অনন্ত জীবনের পথ দেখাতে পারেন

জীবনের গতিপথ কারও নিয়ন্ত্রণে থাকে না, বা এটি সহজে অর্জন করতে পারার মতো বিষয়ও নয়। কারণ জীবন কেবল ঈশ্বর প্রদত্ত, অর্থাৎ, শুধুমাত্র ঈশ্বর...

ঈশ্বরের সঙ্গে সহজ সম্পর্ক স্থাপন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ

যে পথে মানুষ ঈশ্বরকে বিশ্বাস করে, ভালোবাসে এবং ঈশ্বরের আস্থাভাজন হয়ে ওঠে, সেই পথটি হল নিজের হৃদয়ে ঈশ্বরের পরম শক্তিকে স্থান দিয়ে তাঁর...

ঈশ্বর হলেন মানুষের জীবনের উৎস

ক্রন্দনরত অবস্থায় এই জগতে ভূমিষ্ঠ হবার সময় থেকেই তুমি তোমার কর্তব্য পালন করা শুরু করো। ঈশ্বরের পরিকল্পনা ও তাঁর নির্ধারিত নিয়তি অনুসারে...

রাজ্যের যুগই হল বাক্যের যুগ

রাজ্যের যুগে, যে পদ্ধতিতে তিনি কাজ করেন তা পরিবর্তনের উদ্দেশ্যে, এবং সমগ্র যুগের কাজ সম্পাদন করার জন্য, ঈশ্বর নতুন যুগের সূচনা করতে বাক্যের...

সেটিংস

  • লেখা
  • থিমগুলি

ঘন রং

থিমগুলি

ফন্টগুলি

ফন্ট সাইজ

লাইনের মধ্যে ব্যবধান

লাইনের মধ্যে ব্যবধান

পৃষ্ঠার প্রস্থ

বিষয়বস্তু

অনুসন্ধান করুন

  • এই লেখাটি অনুসন্ধান করুন
  • এই বইটি অনুসন্ধান করুন

Messenger-এর মাধ্যমে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন