অধ্যায় ৯৩

প্রত্যেকের চোখের সামনে সত্য ঘটনা সুসম্পন্ন হয়, এবং প্রত্যেকটি বিষয় ইতিমধ্যে অর্জিত হয়ে গেছে; উৎক্ষেপণের পর রকেটের মতো আমার কর্মের গতি দ্রুততর হয়। কেউ কখনো এটা আশা করেনি। বিষয়গুলি সংঘটিত হয়ে যাওয়ার পরই একমাত্র তোমরা আমার বাক্যসমূহের প্রকৃত অর্থ উপলব্ধি করবে। অতিকায় লাল ড্রাগনের সন্তানসন্ততিরাও কোনো ব্যতিক্রম নয়, তাদেরও স্বচক্ষে আমার চমকপ্রদ কার্যসমূহকে প্রত্যক্ষ করাতে হবে। আমার কর্মসমূহ দেখার পর তুমি আমার ব্যাপারে নিশ্চিত হয়েছ বলে এটা ভেবোনা যে, আমি তোমাকে পরিত্যাগ করব না—ব্যাপারটা অত সহজ নয়! যে বাক্য আমি উচ্চারণ করেছি এবং যে ঘটনাগুলির সিদ্ধান্ত আমি গ্রহণ করেছি তা আমি নিশ্চিতভাবেই পূরণ করব, এবং সেগুলি আমার কাছে নিষ্ফল হয়ে ফিরবে না। চিনে, সেইসব সংখ্যালঘু যারা আমার প্রথমজাত পুত্র তাদের কথা বাদ দিলে, খুব অল্প সংখ্যক মানুষই রয়েছে যারা আমার লোক। তাই আজ, আমি স্পষ্টভাবে তোমাদের (অতিকায় লাল ড্রাগনের সন্তানসন্ততিদের, যারা সবচেয়ে ভয়াবহভাবে আমাকে নির্যাতন করেছে) বলি যে তোমরা বড় কোনো আশা আঁকড়ে থেকো না, এবং আমার কার্যের কেন্দ্রবিন্দু (এই বিশ্বের সৃষ্টিলগ্ন থেকে) নিবিষ্ট ছিল আমার প্রথমজাত পুত্রদের উপর এবং চিনের বাইরে বেশ কয়েকটি দেশের উপর। এই কারণেই আমার প্রথমজাত পুত্ররা যখন পরিণত হবে তখন আমার ইচ্ছা সাধিত হবে (একবার আমার প্রথমজাত পুত্ররা পরিণত হলে সমস্ত বিষয় সম্পন্ন হবে, কারণ সম্মুখবর্তী কার্য তাদের হস্তে অর্পণ করা হয়)। শুধুমাত্র অতিকায় লাল ড্রাগনকে লজ্জিত করার জন্য আমি এবার আমি এই লোকদের আমার চমকপ্রদ কর্মসমূহের একটা অংশ দেখার অনুমতি দিই। এই লোকেরা এর মধ্যে কোনো আনন্দ খুঁজে পেতে নিছকই অক্ষম, বরং আমাকে সেবা প্রদান করে বলেই একমাত্র তারা সুখী হতে পারে। এবং তাদের কাছে কোনো বিকল্পও নেই, কারণ আমার প্রশাসনিক ফরমানসমূহ রয়েছে, এবং কেউই সেগুলির বিরুদ্ধাচারণ করার স্পর্ধা করে না।

এবার আমি বিদেশিদের আগমন সংক্রান্ত কিছু পরিস্থিতির বিষয়ে আলাপ-আলোচনা করব যাতে তোমরা পূর্বজ্ঞান অর্জন করতে পারো, আমার নামের সাক্ষ্য দেওয়ার নিমিত্ত সবকিছু যথাযথভাবে প্রস্তুত রাখতে পারো, এবং তাদের ঊর্ধ্বে আসীন হয়ে তাদের শাসন করতে পারো। (আমি “তাদের ঊর্ধ্বে আসীন হয়ে তাদের শাসন করা”-র কথা বলি কারণ তাদের তাদের মধ্যে যে সর্বোত্তম, সে এখনও তোমাদের মধ্যে নিকৃষ্টতম।) এই সমস্ত লোকেরা পবিত্র আত্মার উদ্‌ঘাটন লাভ করেছে, আগামী দিনে তারা সবাই চিনে এসে ভিড় করবে, যেন এটা পূর্ব ব্যবস্থাপনায় নির্ধারিত ছিল। অতিকায় লাল ড্রাগন অতর্কিতে ধরা পড়ে এবং প্রতিরোধের যথাসাধ্য চেষ্টা করে, কিন্তু একটা কথা মনে রেখো! আমার পরিচালনামূলক পরিকল্পনা সম্পূর্ণরূপে বাস্তবায়িত হয়েছে, কোনো কিছুই এবং কোনো মানুষই আমার পদক্ষেপে বাধা দেওয়ার দুঃসাহস করে না। তাদের সর্বদাই আমি উদ্‌ঘাটন প্রদান করি, এবং পবিত্র আত্মার পথনির্দেশ অনুসারে তারা আচরণ করে। নিশ্চিতভাবে তারা অতিকায় লাল ড্রাগনের দাসত্ব ভোগ করবে না, কারণ আমার মাঝে সবকিছুই মুক্ত এবং স্বাধীন। আমি যথাযথভাবে সবকিছুর আয়োজন করেছি, সেগুলির পরিচালনা করার জন্য তোমাদের যে প্রস্তুতিমূলক কাজ তা সম্পন্ন হওয়ার অপেক্ষায় আছি। আমি তোমাদের সর্বদাই বলেছি, তোমাদের অধিকাংশই এখনও শুধু অর্ধেকমাত্র বিশ্বাস কর। কিন্তু এখন? তোমরা হতভম্ব, তাই নও কি?

এই বিষয়গুলি সবই গৌণ; যত শীঘ্র সম্ভব তোমাদের প্রস্তুতিমূলক কাজ সম্পন্ন করে ফেলাটাই হল মুখ্য বিষয়। উদ্বিগ্ন হয়ো না। কার্যসাধন যে করে সে হল আমি, সময় যখন আসবে, তখন আমার কার্য আমি নিজেই সম্পন্ন করব। অতিকায় লাল ড্রাগনকে পিষে আমি টুকরো টুকরো করে ফেলেছি। অর্থাৎ, আমার প্রথমজাত পুত্র ব্যতীত অন্য সকল মানুষের কাছ থেকে আমার আত্মা প্রত্যাহৃত হয়েছে (এবং অতিকায় লাল ড্রাগনের সন্তানসন্ততি কারা এখন তা প্রকাশ করা অপেক্ষাকৃত সহজ)। এই সকল মানুষ আমার উদ্দেশ্যে সেবা প্রদান সমাপন করেছে, এবং আমি পুনরায় তাদের অতল গহ্বরে ফেরৎ পাঠাব। (এর অর্থ হল এদের কাউকেই আমি ব্যবহার করব না। এখন থেকে, আমার প্রথমজাত পুত্ররা সম্পূর্ণরূপে প্রকাশিত হবে, এবং যারা আমার পাশে রয়েছে এবং যারা আমার ব্যবহারের যোগ্য তারাই হবে আমার প্রথমজাত পুত্র)। আমার প্রথমজাত পুত্রগণ, যে আশীর্বাদ আমি তোমাদের উপর বর্ষণ করি তা তোমরা আনুষ্ঠানিকভাবে উপভোগ করো (কারণ যাদের আমি ঘৃণা করি তারা সকলেই তাদের প্রকৃত স্বরূপ প্রকাশ করেছে), এবং এখন থেকে তোমাদের মধ্যে আমাকে অমান্য করার একটা দৃষ্টান্তও থাকবে না। তোমরা যথার্থরূপেই, আমার ব্যাপারে একশো শতাংশ নিশ্চিত। (কেবল আজই তা সম্পূর্ণ রূপে সম্পন্ন হয়েছে, এবং এই সময়টিকে আমি পূর্বনির্ধারিত করে রেখেছিলাম)। হৃদয়ে ও মনে তোমরা যাকিছু ধারণ করো তা হল আমার প্রতি অনন্ত ভালোবাসা ও শ্রদ্ধাবোধ, এবং সর্বদাই তোমরা আমার স্তুতি করো এবং আমাকে মহিমা প্রদান করো। তোমরা প্রকৃতই তৃতীয় স্বর্গে আমার ভালোবাসার পরিচর্যা ও সুরক্ষার অধীনে বাস করছ। সে যে কী অতুলনীয় পরমানন্দ ও সুখ! এটা এক অন্য পরিমণ্ডল, মানুষের পক্ষে তা কল্পনা করা কঠিন—এ হল প্রকৃত, আধ্যাত্মিক জগৎ!

পরের পর যাবতীয় বিপর্যয় ঘটে চলে, তাদের প্রতিটি তার আগেরটির চেয়ে বেশি ভয়াবহ, এবং পরিস্থিতি দিনকে দিন আরো বেশি চাপা উত্তেজনাপূর্ণ হয়ে ওঠে। এটা সবে বিপর্যয়সমূহের সূচনামাত্র; আরো ভয়াবহ যে বিপর্যয়গুলি আসতে চলেছে মানুষের কাছে তা অকল্পনীয়। আমার পুত্ররা সেগুলির সমাধান করুক; এটাই আমার প্রশাসনিক ফরমান, এবং দীর্ঘদিন আগে আমি এটা এভাবেই আয়োজন করে রেখেছি। আমা হতে উদ্ভুত সমস্ত সংকেত ও চমকপ্রদ সংঘটন, যা মানুষ আগে কখনো চাক্ষুষ করেনি, তারা এখন সকল মানুষের কাছে (অর্থাৎ আমার রাজ্যের সমস্ত মানুষের কাছে) একে একে আবির্ভূত হচ্ছে। তবে এই ঘটনা ঘটবে অদূর ভবিষ্যতে। উদ্বিগ্ন হয়ো না। রাজ্যের মধ্যে এই যে প্রবেশ, যার সম্পর্কে প্রত্যেকে বলাবলি করেছে—এই রাজ্যে প্রবেশ করাটা ঠিক কী ধরনের স্থিতি? এবং রাজ্য কী? এটা কি বাস্তবিক একটা শহর? তোমরা ভুল বুঝেছো। রাজ্য পৃথিবীর বুকে নেই, প্রাকৃতিক আকাশেও নেই, তা রয়েছে আধ্যাত্মিক জগতে যা মানুষ স্পর্শ করতে বা দেখতে অক্ষম। যারা আমার নাম গ্রহণের পর আমার দ্বারা পুরোপুরি সম্পূর্ণ হয়েছে এবং আমার আশীর্বাদ উপভোগ করছে, একমাত্র তারাই এখানে প্রবেশ করতে সক্ষম হবে। আধ্যাত্মিক জগৎ, যার কথা পূর্বে প্রায়শই উল্লেখ করা হয়েছে, তা হল রাজ্যের উপরিতল মাত্র। তবে, প্রকৃত অর্থে রাজ্যে প্রবেশ মোটেই সহজ বিষয় নয়। যারা এখানে প্রবেশ করবে তাদের অবশ্যই আমার প্রতিশ্রুতি লাভ করতে হবে এবং তাদের অবশ্যই স্বয়ং আমার দ্বারা পূর্বনির্দিষ্ট ও মনোনীত মানুষ হতে হবে। তাই, আধ্যাত্মিক জগৎ মোটেই এমন কোনো স্থান নয় যেখানে মানুষ তাদের ইচ্ছামতো যেতে আসতে পারে। এ বিষয়ে মানুষের উপলব্ধি খুবই উপরিগত ছিল, এবং সম্পূর্ণতই তা মানুষের পূর্বধারণা দ্বারা গঠিত ছিল। যারা রাজ্যে প্রবেশ করে একমাত্র তারাই আশীর্বাদ উপভোগ করতে পারে, তাই মানুষ যে শুধু এই সকল আশীর্বাদ উপভোগে অক্ষম তাই নয়, তার চেয়েও বড় কথা, সে এগুলি চাক্ষুষ করতেও অসমর্থ। এটাই আমার চূড়ান্ত প্রশাসনিক ফরমান।

পূর্ববর্তী: অধ্যায় ৯২

পরবর্তী: অধ্যায় ৯৪

প্রতিদিন আমাদের কাছে 24 ঘণ্টা বা 1440 মিনিট সময় থাকে। আপনি কি ঈশ্বরের সান্নিধ্য লাভের জন্য তাঁর বাক্য শিখতে 10 মিনিট সময় দিতে ইচ্ছুক? শিখতে আমাদের ফেলোশিপে যোগ দিন। কোন ফি লাগবে না।👇

সম্পর্কিত তথ্য

ঈশ্বরের সঙ্গে সহজ সম্পর্ক স্থাপন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ

যে পথে মানুষ ঈশ্বরকে বিশ্বাস করে, ভালোবাসে এবং ঈশ্বরের আস্থাভাজন হয়ে ওঠে, সেই পথটি হল নিজের হৃদয়ে ঈশ্বরের পরম শক্তিকে স্থান দিয়ে তাঁর...

পরিশিষ্ট ১ ঈশ্বরের আবির্ভাব এক নতুন যুগের সূচনা করেছে

ঈশ্বরের ছয় হাজার বছরের পরিচালনামূলক পরিকল্পনা শেষ হতে চলেছে, এবং যারা তাঁর আবির্ভাবের পথ চেয়ে আছে তাদের সকলের জন্য স্বর্গের দ্বার ইতিমধ্যেই...

সেটিংস

  • লেখা
  • থিমগুলি

ঘন রং

থিমগুলি

ফন্টগুলি

ফন্ট সাইজ

লাইনের মধ্যে ব্যবধান

লাইনের মধ্যে ব্যবধান

পৃষ্ঠার প্রস্থ

বিষয়বস্তু

অনুসন্ধান করুন

  • এই লেখাটি অনুসন্ধান করুন
  • এই বইটি অনুসন্ধান করুন

Messenger-এর মাধ্যমে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন