অধ্যায় ৮৩

তুমি জানো না যে আমিই সর্বশক্তিমান ঈশ্বর, আর একথাও জানো না যে যাবতীয় ঘটনাবলী ও বস্তু আমারই নিয়ন্ত্রণের অধীন! সমস্ত কিছুই যে আমার দ্বারাই প্রতিষ্ঠিত ও সম্পূর্ণ হয়েছে, তার অর্থ কী? প্রত্যেকটি ব্যক্তির মঙ্গল বা দুর্ভাগ্য আমার ইচ্ছাপূরণ ও আমার কর্মের উপর নির্ভরশীল। মানুষ কী করতে পারে? চিন্তার দ্বারা মানুষ কী অর্জন করতে পারে? সর্বশেষ এই যুগে, এই ব্যভিচারী যুগে, শয়তানের দ্বারা নির্দিষ্ট মাত্রায় কলুষিত এই আঁধার জগতে, মুষ্টিমেয় কয়জন আমার ইচ্ছার সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ হতে পারে? আজ হোক, গতকাল হোক, অথবা অদূর ভবিষ্যতেই হোক না কেন, সকলের জীবন আমার দ্বারাই নির্ধারিত হয়ে থাকে। তারা আশীর্বাদই লাভ করুক বা দুর্ভাগ্যের সম্মুখীন হোক, এবং তাদের আমি ভালোবাসি বা ঘৃণা করি, সমস্ত কিছু নির্দিষ্টভাবে আমার দ্বারাই একটি মাত্র আঁচড়ে নির্ধারিত হয়েছে। তোমাদের মধ্যে কে দাবি করার সাহস দেখাও যে তোমার পদক্ষেপগুলি তোমার নিজের দ্বারাই নির্ধারিত এবং তোমার ভাগ্য তোমারই নিয়ন্ত্রণের অধীন? কে এই কথা বলার সাহস করে? কে আমায় এতদূর অমান্য করার সাহস দেখায়? কে আমার ভয়ে ভীত নয়? কে মনে মনে আমার প্রতি অবাধ্য? কে নিজের ইচ্ছা মতো কাজ করার সাহস দেখায়? আমি তাদের তৎক্ষণাৎ শাস্তি দেব, এবং মানবজাতির প্রতি আমি আর আদপেই কোনও করুণা প্রদর্শন করব না বা তাদের আর কোনও পরিত্রাণও দেব না। এবারই—অর্থাৎ যে মুহূর্তে তোমরা আমার নাম গ্রহণ করেছ—আমি শেষবারের মতো মানবজাতির প্রতি কোনও ধরনের সহনশীলতা প্রদর্শন করব। অর্থাৎ, আমি মানবজাতির এমন একটি অংশকে নির্বাচন করেছি যাদের প্রতি আমার আশীর্বাদ অনন্ত না হলেও তারা আমার অনুগ্রহ ব্যাপক পরিমাণে ভোগ করছে; সুতরাং তুমি যে চিরকালের জন্যই আশীর্বাদপ্রাপ্ত হবে, তেমনটি যদি পূর্ব-নির্ধারিত না-ও হয়ে থাকে, তাহলেও তার অর্থ এই নয় যে তোমার প্রতি অন্যায় আচরণ করা হবে, এবং যারা প্রত্যক্ষভাবে দুর্ভাগ্যের সম্মুখীন হবে, তাদের তুলনায় তোমার ভাগ্য ঢের বেশি সুপ্রসন্ন।

প্রকৃতপক্ষে আমার বিচার ইতিমধ্যেই শীর্ষদেশে পৌঁছেছে, এবং বর্তমানে তা একটি অভূতপূর্ব অঞ্চলে প্রবেশ করছে। আমার বিচার প্রতিটি ব্যক্তির উপর নেমে আসবে এবং বর্তমানে তা ক্রুদ্ধ বিচার। অতীতে তা ছিল মহিমান্বিত বিচার, কিন্তু বর্তমানে তা সম্পূর্ণ ভিন্ন। অতীতে আমার বিচারের সম্মুখীন না হওয়া পর্যন্ত মানুষ বিন্দুমাত্রও ভয় পায়নি; বর্তমানে একটি মাত্র শব্দ শুনলেই তারা ভয়ে হতবুদ্ধি হয়ে পড়ে। কেউ কেউ এমনকী আমি মুখ খোলা মাত্রই আতঙ্কিত বোধ করে। আমার কন্ঠস্বর যদি নিঃসৃত হয়, যখন আমি বলতে শুরু করি, তখন ভয়ে তারা কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে পড়ে, সেই মুহূর্তে তারা মনেপ্রাণে নিজেদের মাটির মধ্যে কোনও গর্তে লুকিয়ে রাখতে চায়, বা অন্ধকারতম কোণটিতে লুকিয়ে থাকতে চায়। এহেন মানুষদের রক্ষা করা সম্ভব নয়, কারণ তারা অশুভ আত্মা দ্বারা অধিকৃত। আমি যখন অতিকায় লাল ড্রাগন ও প্রাচীন সর্পের বিচার করি, তারা তখন ভীরু হয়ে পড়ে, এমনকী অন্য কারোর চোখে পড়তেও তারা ভয় পায়; তারা প্রকৃতই শয়তানের বংশধর, তাদের জন্ম অন্ধকারের মধ্যে।

“পূর্ব-নির্ধারণ ও নির্বাচন” শব্দগুলি আমি প্রায়শই ব্যবহার করে থাকি। এই শব্দগুলির সঠিক অর্থ কী? পূর্ব-নির্ধারিত ও নির্বাচিতদের দলে কেন কোনো ব্যক্তির স্থান হবে না? তোমরা তা কীভাবে বুঝবে? আমার পক্ষ থেকে এ বিষয়গুলির স্পষ্ট ব্যাখ্যা দেওয়া প্রয়োজন, এবং তার ফলে আমার তরফে সরাসরি তোমাদের উদ্দেশ করে কথা বলা প্রয়োজনীয় হয়ে ওঠে। আমি যদি তোমাদের মধ্যে এই বস্তুগুলির প্রকাশ ঘটাতাম, সেক্ষেত্রে স্থূলবুদ্ধি ব্যক্তিরা এই ভ্রান্ত ধারণা পোষণ করত যে এই চিন্তা শয়তানের দান! অন্যায়ভাবে আমার দুর্নাম করা হত! এবার আমি স্পষ্টবাদী হব, এবং কোনও কিছুই বলতেই দ্বিধা করব না: আমি যখন সমস্ত বস্তুসমূহ সৃষ্টি করেছিলাম, তখন প্রথমে আমি সৃষ্টি করেছিলাম সেই বস্তুগুলি যেগুলি মানবজাতি সেবার কাজে লাগবে (ফুল, ঘাস, গাছপালা, অরণ্য, পর্বত, নদী, হ্রদ, স্থলভাগ ও মহাসাগর, সমস্ত ধরনের কীটপতঙ্গ এবং পশুপাখি; এর মধ্যে কিছু কিছু বস্তু মানবজাতির আহারের জন্য, এবং কিছু বস্তু মানবজাতির চাক্ষুষ করার জন্য)। বিভিন্ন অঞ্চলের মধ্যে পার্থক্য অনুযায়ী মানবজাতির জন্য বিভিন্ন ধরনের শস্য সৃষ্টি করা হয়েছিল; এই যাবতীয় বস্তু সৃষ্টি করার পর আমি মানুষের সৃষ্টি শুরু করি। মানুষ দুই ধরনের: প্রথম ধরনের মানুষরা আমার দ্বারা নির্বাচিত ও পূর্ব-নির্ধারিত; আর দ্বিতীয় ধরনের মানুষরা শয়তানের গুণাবলীর অধিকারী, আমার দ্বারা জগৎ সৃষ্টির আগে এই ধরনের মানুষের সৃষ্টি হয়েছিল, কিন্তু যেহেতু তারা শয়তানের দ্বারা সম্পূর্ণভাবে কলুষিত, তাই আমি তাদের পরিত্যাগ করেছি। তারপর আমি সৃষ্টি করি সেই ধরনের মানুষদের যারা আমার দ্বারা নির্বাচিত ও পূর্ব-নির্ধারিত, যারা প্রত্যেকে বিভিন্ন মাত্রায় আমার গুণাবলীর অধিকারী; সুতরাং আজ যারা আমার দ্বারা নির্বাচিত, তারা প্রত্যেকেই বিভিন্ন মাত্রায় আমার গুণাবলীর অধিকারী। যদিও শয়তান তাদের কলুষিত করেছে, কিন্তু তা সত্ত্বেও তারা এখনও আমারই অধিকারভুক্ত; প্রতিটি পদক্ষেপই আমার পরিচালনামূলক পরিকল্পনার অংশ বিশেষ। সৎ ব্যক্তিরাই রাজ্যে শাসন করে, কারণ আমি সে পরিকল্পনা আগে থেকেই করে রেখেছিলাম। যারা কুটিল ও শঠ, তারা কখনওই সৎ হতে পারে না, কারণ তারা শয়তানের সন্তানসন্ততি এবং শয়তানের দ্বারা অধিকৃত; তারা শয়তানের ভৃত্য এবং আদ্যোপান্তই তারা শয়তানের নির্দেশের অধীন। কিন্তু এই সমস্ত কিছুর উদ্দেশ্য হল আমার ইচ্ছা পূরণ করা। একথা আমি স্পষ্ট করে দিয়েছি তোমাদের অনুমান বন্ধ করার জন্য। যাদের আমি নিখুঁত করে তুলি, আমিই তাদের তত্ত্বাবধান ও রক্ষা করি; যাদের আমি অপছন্দ করি, তাদের সেবার কাজ শেষ হয়ে যাওয়া মাত্র তারা আমার রাজ্য থেকে দূর হয়ে যাবে। এইসব মানুষদের কথা যখন বলা হয়, তখন আমি ক্রুদ্ধ হয়ে উঠি; তাদের নামের উল্লেখ মাত্র আমার অবিলম্বে তাদের মোকাবিলা করার ইচ্ছা হয়। তা সত্ত্বেও আমি আমার কর্মকে সংযমে রাখি; আমার কর্ম ও উক্তি পরিমিত। ক্রোধের বশে আমি জগতকে নিপীড়ন করতে পারি, কিন্তু যারা আমার দ্বারা পূর্ব-নির্ধারিত, তারা ব্যতিক্রম; শান্ত হওয়ার পর আমি জগতকে আমার হাতের তালুতে ধরে রাখতে পারি। অর্থাৎ, সমস্ত কিছুই আমি নিয়ন্ত্রণ করি। যখন আমি দেখতে পাব জগৎ এতদূর কলুষিত হয়েছে যে মানুষ তা আর সহ্য করতে পারছে না, তখন আমি অবিলম্বে এই জগতের বিলুপ্তি ঘটাব। একটি মাত্র শব্দ উচ্চারণ করেই কি সে কাজ আমি করতে পারি না?

আমি স্বয়ং বাস্তববাদী ঈশ্বর; আমি অতিপ্রাকৃত সংকেত প্রদর্শন করি না বা অলৌকিক কার্যকলাপ ঘটাই না—কিন্তু আমার বিস্ময়কর কর্ম সর্বত্র দৃশ্যমান। সামনের পথ অতুলনীয়ভাবে উজ্জ্বলতর হয়ে উঠবে। প্রতিটি পদক্ষেপ প্রকাশের মাধ্যমেই আমি তোমাদের পথের সন্ধান দিই এবং এটিই আমার পরিচালনামূলক পরিকল্পনা। অর্থাৎ, ভবিষ্যতে এই উদ্ঘাটনগুলি সংখ্যায় অধিকতর ও আরও স্পষ্ট হয়ে উঠবে। এমনকী সহস্রবর্ষীয় রাজ্যে—অদূর ভবিষ্যতে—তোমাদের অবশ্যই আমার উদ্ঘাটনসমূহ অনুযায়ী এবং আমার পদক্ষেপগুলি অনুসরণ করে অগ্রসর হতে হবে। সমস্ত কিছুই নির্দিষ্ট আকার পেয়েছে এবং সমস্ত কিছুই প্রস্তুত; তোমাদের মধ্যে যারা আশীর্বাদপ্রাপ্ত, তাদের জন্য অপেক্ষা করে আছে অনন্ত আশীর্বাদ, আর যারা শাস্তিপ্রাপ্ত তাদের জন্য অপেক্ষা করে আছে অনন্ত শাস্তি। আমার রহস্যগুলি তোমাদের পক্ষে অত্যধিক; আমার কাছে যা সরলতম বাক্য, তোমাদের কাছে তা-ই দুরূহতম। তাই আমি বার বার এই বাক্যগুলি উচ্চারণ করে চলি, কারণ তোমরা বোঝো অত্যন্ত কম এবং প্রতিটি শব্দ ব্যাখ্যা করার জন্য তোমাদের আমাকে প্রয়োজন। তবে খুব বেশি দুশ্চিন্তা কোরো না; আমি আমার কর্মের সঙ্গে সঙ্গতি রেখেই তোমাদের উদ্দেশ্যে কথা বলব।

পূর্ববর্তী: অধ্যায় ৮২

পরবর্তী: অধ্যায় ৮৪

প্রতিদিন আমাদের কাছে 24 ঘণ্টা বা 1440 মিনিট সময় থাকে। আপনি কি ঈশ্বরের সান্নিধ্য লাভের জন্য তাঁর বাক্য শিখতে 10 মিনিট সময় দিতে ইচ্ছুক? শিখতে আমাদের ফেলোশিপে যোগ দিন। কোন ফি লাগবে না।👇

সম্পর্কিত তথ্য

শুধুমাত্র অন্তিম সময়ের খ্রীষ্ট মানুষকে অনন্ত জীবনের পথ দেখাতে পারেন

জীবনের গতিপথ কারও নিয়ন্ত্রণে থাকে না, বা এটি সহজে অর্জন করতে পারার মতো বিষয়ও নয়। কারণ জীবন কেবল ঈশ্বর প্রদত্ত, অর্থাৎ, শুধুমাত্র ঈশ্বর...

ঈশ্বর হলেন মানুষের জীবনের উৎস

ক্রন্দনরত অবস্থায় এই জগতে ভূমিষ্ঠ হবার সময় থেকেই তুমি তোমার কর্তব্য পালন করা শুরু করো। ঈশ্বরের পরিকল্পনা ও তাঁর নির্ধারিত নিয়তি অনুসারে...

সেটিংস

  • লেখা
  • থিমগুলি

ঘন রং

থিমগুলি

ফন্টগুলি

ফন্ট সাইজ

লাইনের মধ্যে ব্যবধান

লাইনের মধ্যে ব্যবধান

পৃষ্ঠার প্রস্থ

বিষয়বস্তু

অনুসন্ধান করুন

  • এই লেখাটি অনুসন্ধান করুন
  • এই বইটি অনুসন্ধান করুন

Messenger-এর মাধ্যমে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন