অধ্যায় ২২

ঈশ্বরে বিশ্বাস করা সহজ কাজ নয়। তুমি বিহ্বল হয়ে যাও, সবকিছুই আত্মস্থ করছ এবং সবকিছুকে এত আকর্ষণীয়, এত সুস্বাদু ভাবছো! কেউ কেউ এখনও সাধুবাদ জানাচ্ছে—তাদের আত্মার মধ্যে কোনও বিচক্ষণতা নেই। এটি তোমাদের পুঙ্খানুপুঙ্খ ব্যাখ্যার যোগ্য একটি অভিজ্ঞতা। অন্তিম সময়ে, সমস্ত ধরনের আত্মা তাদের ভূমিকা পালন করতে আবির্ভূত হয়, প্রকাশ্যে ঈশ্বরের সন্তানদের অগ্রগতির বিরোধিতা করে এবং গির্জার নির্মাণ নাশকতায় অংশ নেয়। যদি এটিকে হালকাভাবে নেওয়া হয় এবং শয়তানকে কাজ করার সুযোগ দেওয়া হয়, তবে এটি গির্জায় বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করবে, মানুষ আতঙ্কিত হবে এবং মরিয়া হবে এবং গুরুতর ক্ষেত্রে মানুষের দর্শন অদৃশ্য হয়ে যাবে। এইরূপে, বহু বছর ধরে আমি যে শ্রমসাধ্য মূল্য পরিশোধ করেছি তা নিষ্ফল হবে।

যে সময়টিতে গির্জা নির্মিত হবে উক্ত সময়টি হল সেই সময় যখন শয়তান তার উন্মত্ততার সর্বোচ্চ শিখরে পৌঁছয়। শয়তান ঘনঘন কিছু মানুষের মাধ্যমে ঝামেলা ও বাধা সৃষ্টি করে এবং এরা তারাই যারা আত্মাকে জানে না এবং যারা নতুন বিশ্বাসী তারাই শয়তানের ভূমিকা সবচেয়ে সহজে পালন করতে পারে। প্রায়শই, মানুষ পবিত্র আত্মার কাজ বুঝতে না পারায়, তারা স্বেচ্ছাচারীভাবে কাজ করে, সম্পূর্ণরূপে তাদের নিজস্ব পছন্দ অনুযায়ী, তাদের কাজ করার নিজস্ব উপায়ে এবং নিজস্ব ধারণা অনুসারে। তোমার জিহ্বাকে নিয়ন্ত্রণ করো—এটি তোমার নিজের সুরক্ষার জন্য। ভালভাবে শোনো এবং মেনে চলো। গির্জা সমাজের থেকে আলাদা। তুমি সাধারণভাবে বলতে পারবে না তোমাকে কী পরিতৃপ্ত করে; তুমি যা মনে করো তা বলতে পারবে না। এখানে তা হবে না, কারণ এটি ঈশ্বরের ঘর। মানুষ যেভাবে কাজ করে ঈশ্বর তা গ্রহণ করেন না। তোমাকে আত্মা অনুসরণ করে কাজ করতে হবে; তোমাকে অবশ্যই ঈশ্বরের বাক্যগুলি মেনে চলতে হবে এবং তারপরেই অন্যরা তোমাকে শ্রদ্ধা করবে। প্রথমে ঈশ্বরের উপর ভরসা করে নিজের ভেতরের সমস্ত অসুবিধা সমাধান করতে হবে। অধঃপতিত স্বভাবের অবসান ঘটাও এবং তোমার নিজের অবস্থাকে প্রকৃত অর্থে বুঝতে সক্ষম হও এবং কীভাবে আচরণ করা উচিত তা জানো; বুঝতে না পারা এমন বিষয় সম্পর্কে আলাপ-আলোচনা চালিয়ে যাও। একজন ব্যক্তির পক্ষে নিজেকে না জানাটাই অগ্রহণযোগ্য। প্রথমে নিজের অসুস্থতা নিরাময় করো এবং, আমার বাক্যগুলি প্রায়শই ভোজন ও পান করে এবং সেগুলি নিয়ে চিন্তা করে, জীবনযাপন করো এবং আমার বাক্যের ভিত্তিতে কাজ করো; সে বাড়িতেই থাকো বা অন্য কোথাও থাকো না কেন, ঈশ্বরকে নিজের মধ্যে শক্তি চালনা করার অনুমতি দেওয়া উচিত। পার্থিবতা এবং স্বাভাবিকতা পরিত্যাগ করো। সর্বদা ঈশ্বরের বাক্যকে নিজের মধ্যে আধিপত্য করতে দাও। তোমার জীবন পরিবর্তন হচ্ছে না ভেবে চিন্তা করার কোনও দরকার নেই; সময়ের সাথে সাথে, তুমি অনুভব করবে যে তোমার স্বভাব অনেক পরিবর্তন হয়েছে। আগে, তুমি প্রচারের আলোয় থাকতে আগ্রহী ছিলে, তুমি হয় কাউকে মানতে না বা উচ্চাকাঙ্ক্ষী, স্ব-ধার্মিক বা অহংকারী ছিলে—এগুলি এমন জিনিস যেগুলি থেকে তুমি ধীরে ধীরে পরিত্রাণ পাবে। যদি তুমি এখনই তাদের বাদ দিতে চাও, সেটি সম্ভব নয়! এর কারণ হল পুরোনো তুমি নতুন তোমাকে স্পর্শ করতে অনুমতি দেবে না, এর শিকড় এতটাই গভীর। সুতরাং, অবশ্যই একটি বিষয়গত প্রচেষ্টা করতে হবে, ইতিবাচকভাবে এবং সক্রিয়ভাবে পবিত্র আত্মার কাজকে মেনে চলতে হবে, ঈশ্বরের সাথে সহযোগিতা করার জন্য তোমার ইচ্ছা ব্যবহার করতে হবে, এবং আমার বাক্য অনুশীলন করতে ইচ্ছুক হতে হবে। যদি তুমি পাপ করে থাকো, ঈশ্বর তোমাকে শিক্ষা দেবেন। যখন তুমি পিছনে ফিরে দেখো এবং বুঝতে পারো, তখনই তোমার মধ্যে সব ঠিক হয়ে যাবে। যদি তুমি প্রশ্রয় দিয়ে কথা বলো, তাহলে তুমি অবিলম্বে নিজের মধ্যে শিক্ষা পেয়ে যাবে। তুমি দেখতে পাবে যে ঈশ্বর এই ধরনের জিনিসগুলিতে খুশি হন না, তাই তুমি যদি এখুনি থেমে যাও তাহলে তুমি অভ্যন্তরীণ শান্তি অনুভব করবে। কিছু নতুন বিশ্বাসী আছে যারা বুঝতে পারে না জীবনের অনুভূতি কী বা কীভাবে সেই অনুভূতির মধ্যে থাকতে হয়। মাঝে মাঝে তুমি অবাক হও, তুমি কিছু না বললেও, কেন এত অস্থির বোধ করো? এইরকম সময়ে, এটি তোমার চিন্তা এবং তোমার মন ভুল। কখনও কখনও তোমার নিজস্ব পছন্দ, নিজস্ব ধারণা এবং মতামত থাকে; কখনও কখনও তুমি অন্যকে তোমার চেয়ে ছোট মনে করো; কখনও কখনও তুমি নিজের জন্য স্বার্থপরভাবে হিসাব নিকাশ করো এবং প্রার্থনা করো না বা নিজেকে পরীক্ষা করো না। এই কারণেই ভিতরে ভিতরে অস্থির লাগে। সম্ভবত তুমি জানো সমস্যাটি কী, তাই, অবিলম্বে মনে মনে ঈশ্বরের নাম নাও, ঈশ্বরের কাছাকাছি এসো এবং তুমি সুস্থ হয়ে উঠবে। যখন হৃদয় ক্রমশ উদ্বেলিত এবং অস্থির হয়ে ওঠে, তখন তুমি একেবারেই ভাববে না যে ঈশ্বর তোমাকে কথা বলার অনুমতি দিচ্ছেন। নতুন বিশ্বাসীদের এই ক্ষেত্রে ঈশ্বরের আনুগত্যের প্রতি বিশেষভাবে মনোযোগ দেওয়া উচিত। ঈশ্বর মানুষের ভিতরে যে অনুভূতিগুলি প্রোথিত করেন তা হল শান্তি, আনন্দ, স্বচ্ছতা এবং নিশ্চয়তা। প্রায়শই, এমন কিছু মানুষ আছে যারা বুঝতে পারে না, যারা গন্ডগোল করবে এবং স্বেচ্ছাচারীভাবে কাজ করবে-এগুলি সব হল বাধা; এইগুলিতে সাবধানে মনোযোগ দাও। এই অবস্থা প্রবণ হলে, এটি বন্ধ করার জন্য “প্রতিরোধমূলক ওষুধ” গ্রহণ করা উচিত; অন্যথায়, তুমি বাধা সৃষ্টি করবে এবং ঈশ্বর তোমাকে আঘাত করবেন। স্ব-ধার্মিক হয়ো না; নিজের ঘাটতি পূরণের জন্য অন্যদের শক্তি নাও, ঈশ্বরের বাক্য অনুসারে অন্যরা কীভাবে জীবনযাপন করে তা দেখো; এবং দেখো তাদের জীবন, কর্ম এবং বক্তৃতা অনুকরণযোগ্য কিনা। তুমি যদি অন্যদেরকে তোমার থেকে ক্ষুদ্র মনে করো, তবে তুমি স্ব-ধার্মিক, অহংকারী এবং কারও উপকারে আসবে না। এখন যা অত্যাবশ্যক তা হল জীবনের উপর মনোযোগ দেওয়া, আমার বাক্য বেশি করে ভোজন ও পান করা, আমার কথাগুলিকে অনুভব করা, আমার কথাগুলিকে জানা, আমার বাণীকে প্রকৃতপক্ষে তোমার জীবনে পরিণত করা-এইগুলি হল প্রধান জিনিস৷ যদি কেউ ঈশ্বরের বাক্য মেনে চলতে না পারে, তাহলে কি তাদের জীবন পরিপক্ক হতে পারে? না, এটি হতে পারে না। সর্বদা অবশ্যই আমার বাক্য অনুসারে জীবনযাপন করতে হবে এবং আমার বাক্যই জীবনের আচরণবিধি হতে হবে, যাতে তুমি অনুভব করতে পারো যে উক্ত নীতি অনুসারে কাজ করা ঈশ্বরকে আনন্দ দেয় এবং অন্যথায় কাজ করাকে ঈশ্বর ঘৃণা করেন; এবং ধীরে ধীরে, তুমি সঠিক পথে হাঁটবে। তোমাকে অবশ্যই বুঝতে হবে ঈশ্বরের কাছ থেকে কী আসে এবং শয়তানের কাছ থেকে কী আসে। ঈশ্বরের কাছ থেকে যা আসে তা তোমাকে আরও স্পষ্ট দর্শন প্রদান করে এবং তোমাকে ঈশ্বরের আরও কাছে নিয়ে আসে; তুমি তোমার ভাই ও বোনদের সাথে আন্তরিক ভালবাসা ভাগ করে নিতে পারো, তুমি ঈশ্বরের দায়িত্বের প্রতি বিবেচনা প্রদর্শন করতে সক্ষম হও এবং তোমার ঈশ্বর-প্রেমময় হৃদয় রয়েছে যা কখনও হ্রাস পায় না। হাঁটার জন্য তোমার সামনে একটি রাস্তা আছে। শয়তানের কাছ থেকে যা আসে তা তোমার মধ্যে দর্শন অদৃশ্য করে দেয় এবং যার ফলে তোমার আগে যা ছিল তা হারিয়ে যায়; তুমি ঈশ্বরের কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ো, তোমার ভাই ও বোনদের প্রতি কোনও ভালবাসা থাকে না এবং তোমার হৃদয় ঘৃণাপূর্ণ থাকে। তুমি মরিয়া হয়ে ওঠো, তুমি আর গির্জার জীবনযাপন করতে চাও না এবং তোমার ঈশ্বর-প্রেমী হৃদয় আর থাকে না। এটিই শয়তানের কাজ এবং এটি সেই পরিণতি যে দিকে মন্দ আত্মারা নিয়ে যায়।

এখন একটি গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্ত। চূড়ান্ত পরিবর্তন না হওয়া পর্যন্ত তোমাকে অবশ্যই তোমার পদে থাকতে হবে, ভাল এবং মন্দের মধ্যে পার্থক্য করার জন্য তোমার আত্মার দৃষ্টি স্বচ্ছ করতে হবে এবং গির্জা নির্মাণে তোমাদের সমস্ত প্রচেষ্টা চালাতে হবে। শয়তানের দালাল, ধর্মীয় বিশৃঙ্খলা এবং মন্দ আত্মার কাজকে দূর করো। গির্জাকে শুদ্ধ করো, আমার ইচ্ছাকে নিরবচ্ছিন্নভাবে সম্পন্ন করো, এবং সত্যই, বিপর্যয়ের আগে এই স্বল্প সময়ের মধ্যে আমি তোমাদের যত তাড়াতাড়ি সম্ভব সম্পূর্ণ এবং মহিমান্বিত করব।

পূর্ববর্তী: অধ্যায় ২০

পরবর্তী: অধ্যায় ২৬

প্রতিদিন আমাদের কাছে 24 ঘণ্টা বা 1440 মিনিট সময় থাকে। আপনি কি ঈশ্বরের সান্নিধ্য লাভের জন্য তাঁর বাক্য শিখতে 10 মিনিট সময় দিতে ইচ্ছুক? অনুগ্রহ করে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। 😊

সম্পর্কিত তথ্য

ঈশ্বরের সঙ্গে সহজ সম্পর্ক স্থাপন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ

যে পথে মানুষ ঈশ্বরকে বিশ্বাস করে, ভালোবাসে এবং ঈশ্বরের আস্থাভাজন হয়ে ওঠে, সেই পথটি হল নিজের হৃদয়ে ঈশ্বরের পরম শক্তিকে স্থান দিয়ে তাঁর...

শুধুমাত্র অন্তিম সময়ের খ্রিষ্ট মানুষকে অনন্ত জীবনের পথ দেখাতে পারেন

জীবনের গতিপথ কারও নিয়ন্ত্রণে থাকে না, বা এটি সহজে অর্জন করতে পারার মতো বিষয়ও নয়। কারণ জীবন কেবল ঈশ্বর প্রদত্ত, অর্থাৎ, শুধুমাত্র ঈশ্বর...

ঈশ্বর হলেন মানুষের জীবনের উৎস

ক্রন্দনরত অবস্থায় এই জগতে ভূমিষ্ঠ হবার সময় থেকেই তুমি তোমার কর্তব্য পালন করা শুরু করো। ঈশ্বরের পরিকল্পনা ও তাঁর নির্ধারিত নিয়তি অনুসারে...

সেটিংস

  • লেখা
  • থিমগুলি

ঘন রং

থিমগুলি

ফন্টগুলি

ফন্ট সাইজ

লাইনের মধ্যে ব্যবধান

লাইনের মধ্যে ব্যবধান

পৃষ্ঠার প্রস্থ

বিষয়বস্তু

অনুসন্ধান করুন

  • এই লেখাটি অনুসন্ধান করুন
  • এই বইটি অনুসন্ধান করুন

Messenger-এর মাধ্যমে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন