মানুষের সারসত্য ও পরিচয়

বস্তুত, ইস্রায়েলীরা দুঃখিত নয়; তারা বিগত ছয় হাজার বছর ধরে ঈশ্বরের কাজ দেখেছে কারণ আমি তাদের পরিত্যাগ করিনি। বরং যেহেতু তাদের পূর্বপুরুষরা জ্ঞানবৃক্ষ থেকে শুভ ও অশুভের ফল খেয়েছে, যা অশুভ শক্তি তাদের উপহার দিয়েছিল, তারাই পাপের জন্য আমায় পরিত্যাগ করেছে। শুভ সর্বদাই আমার অধিকারে ছিল, অন্যদিকে মন্দের মালিকানা ছিল সেই অশুভ শক্তির কাছে, যে আমাকে পাপের স্বার্থে প্রতারণা করে। আমি মানুষকে দোষ দিই না, তাদের নির্মমভাবে ধ্বংসও করি না এবং নিষ্ঠুর শাস্তিও দিই না, কারণ অশুভ মূলত মানবজাতির চরিত্রের অংশ নয়। সেই জন্য, ইস্রায়েলীরা আমাকে জনসমক্ষে ক্রুশবিদ্ধ করেছিল ঠিকই, কিন্তু যারা মশীহ ও যিহোবার জন্য অপেক্ষা করছিল এবং পরিত্রাতা যীশুর জন্য ব্যাকুল ছিল, তারা কোনোদিন আমার প্রতিশ্রুতি বিস্মৃত হয়নি, কারণ আমি তাদের ত্যাগ করিনি। যতই হোক, আমি রক্তকেই মানুষের সঙ্গে আমার চুক্তির প্রমাণ স্বরূপ বিবেচনা করেছি; এই ঘটনাই তরুণ ও নিষ্পাপ হৃদয়ে “শোণিত চুক্তি” রূপে লিখিত আছে, কোনো পণ্যচিহ্নের মতো, স্বর্গ ও মর্ত্যের চিরন্তন পারস্পরিক নির্ভরশীলতার মতো। যেহেতু আমি কখনো সেই বিষণ্ণচিত্ত আত্মাদের প্রবঞ্চনা করিনি যাদের নিয়তি আমি নির্ধারণ করেছি, নির্বাচন করেছি এবং পরে মুক্ত ও অর্জন করেছি, এবং যারা অশুভ শক্তির থেকে আমাকে বেশি ভালোবেসেছে, তাই তারা সাগ্রহে আমার প্রত্যাবর্তনের প্রতীক্ষা করে ও আমার সঙ্গে সাক্ষাতের আশায় একাগ্রচিত্তে অপেক্ষা করে। যেহেতু আমি কখনো রক্তের চুক্তিকে মুছে দিইনি, তাই এতে আশ্চর্য হওয়ার কিছু নেই যে তারা আন্তরিকভাবে অপেক্ষা করেছে। আমি বহুযুগ ধরে দিশাহারা এই মেষশাবকদের পুনরায় অধিগ্রহণ করব, কারণ আমি সর্বদাই মানুষকে ভালোবেসেছি; শুধু অশুভের কিছু উপাদান তাদের ভেতরের শুভের সাথে মিশ্রিত হয়ে গেছে। আমি সেই অসহায় আত্মাদের অর্জন করব যারা আমায় ভালোবাসে এবং যাদের আমি এই দীর্ঘ সময় ধরে ভালোবেসেছি, কিন্তু সেই অশুভদের আমি কি করে আমার গৃহে নিয়ে আসব যারা আমায় কখনো ভালোবাসেনি এবং যারা শত্রুর মতো আচরণ করেছে? আমি মানুষের সঙ্গে শোণিত চুক্তি প্রতিষ্ঠা করা সত্ত্বেও যারা আমাকে ঘৃণা করে, আমার বিরোধিতা করে, প্রতিরোধ করে, আক্রমণ এবং নিন্দা করে, সেই শয়তানের উত্তরাধিকারী বিষধর সর্পগুলিকে আমি আমার রাজ্যে নিয়ে আসব না। তোমার অবশ্যই জানা উচিত আমার কাজের উদ্দেশ্য কী এবং কার জন্য আমি তা সম্পাদন করি। তোমার ভালোবাসা কি শুভ না অশুভ? আমার সম্পর্কে তোমার জ্ঞান কি দায়ূদ এবং মোশির মতো, না তা নয়? আমার প্রতি তোমার সেবা কি আব্রাহামের মতো, না তা নয়? আমি তোমাকে নিখুঁত করে তুলছি ঠিকই, কিন্তু তোমার জানা উচিত তুমি কার প্রতিনিধিত্ব করবে, এবং কার পরিণতি তুমি ভাগ করে নেবে। তোমার সারা জীবন ধরে, আমার কাজের অভিজ্ঞতা লাভের মধ্যে দিয়ে, তুমি কি আনন্দময় প্রাচুর্যের ফসল ঘরে তুলতে পেরেছ? তা কি সুপ্রচুর ও ফলদায়ী? তোমার নিজেকে নিয়ে ভাবা উচিত: তুমি আমার জন্য বছরের পর বছর শ্রম দিয়েছ, কিন্তু কিছু কি কখনও অর্জন করেছ? তুমি কি কোনো পরিবর্তনের মধ্যে দিয়ে গেছ বা কিছু পেয়েছ? তোমার শ্রমদায়ী অভিজ্ঞতাগুলির মধ্যে দিয়ে গিয়ে তুমি কি পিতরের মতো হয়েছ যাকে ক্রুশবিদ্ধ করা হয়, বা পৌলের মতো যাকে আঘাত করা হয়েছিল এবং যে এক মহান আলোকপ্রাপ্ত হয়েছিল? তোমার এই বিষয়গুলির কিছু ধারণা থাকা উচিত। তোমার জীবন, যা সর্ষের দানার থেকেও নগণ্য ও বালুকণার মতোই ক্ষুদ্র, আমি ক্রমাগত তা নিয়ে চর্চা করছি না বা কথা বলছি না। সহজ কথায়, আমি মানবজাতিকে পরিচালনা করি। তবু, আমি যে মানুষকে একদা ঘৃণা করেছি ও পরে আবার তুলে নিয়েছি, তার জীবনকে আমার পরিচালনার গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ মনে করি না। তোমাদের পূর্বপরিচয়ের আসল প্রকৃতি, এবং দাস হিসেবে তোমরা কার অধীন ছিলে সে বিষয়ে তোমার স্পষ্ট ধারণা থাকা উচিত। তাই আমি মানুষের শয়তানসদৃশ মুখকে মানুষকে পরিচালনা করার আকরিক হিসেবে ব্যবহার করি না, কারণ মানুষ কখনোই মূল্যবান ছিল না। তোমাদের স্মরণ করা উচিত শুরুতে তোমাদের প্রতি আমার আচরণ কেমন ছিল, এবং মনে করা উচিত তখন তোমাদের আমি কীভাবে সম্বোধন করতাম – সেই সম্বোধন বাস্তবিক তাৎপর্যবিহীন ছিল না। তোমার জানা উচিত যে আখ্যায় তোমরা ভূষিত হও তা হেতুবিহীন নয়। আমি ধরে নিচ্ছি তোমরা সবাই জানো যে তোমরা ঈশ্বরের অধীনে ছিলে না, বরং শয়তান তোমাদের পূর্বেই অধিকার করেছিল এবং তার গৃহে তোমরা অনুগত ভৃত্যের মতো কাজ করেছ; উপরন্তু বহু পূর্বেই তোমরা আমাকে বিস্মৃত হয়েছ কারণ তোমরা দীর্ঘ সময় যাবৎ আমার গৃহের বাইরে এবং অশুভ শক্তির হাতে ছিলে। যাদের আমি রক্ষা করি তারা সেই সব মানুষ যাদের ভাগ্য আমি বহু আগেই পূর্বনির্দিষ্ট করেছিলাম এবং যাদের আমি উদ্ধার করেছি, আর তোমরা সেই হতভাগ্য যাদের নিয়মের ব্যতিক্রম হিসেবে মানবজাতির মধ্যে রাখা হয়েছে। তোমাদের জানা উচিত তোমরা দায়ূদ বা যাকোবের গৃহের অধিকারী নও, বরং মোয়াবদের অন্তর্ভুক্ত, যারা আসলে অইহুদীদের একটি উপজাতি। কারণ আমি তোমাদের সাথে কোনো চুক্তি স্থাপন করিনি, শুধুমাত্র কাজ করেছি, তোমাদের মধ্যে কথা বলেছি এবং তোমাদের নেতৃত্ব দিয়েছি। আমার রক্ত তোমাদের জন্য ঝরেনি; শুধুমাত্র আমার সাক্ষ্যের কারণে আমি তোমাদের মাঝে আমার কাজ করছিলাম। তোমরা কি এটা জানতে না? যীশু তোমাদের জন্য যেভাবে রক্তপাতসহ মৃত্যুবরণ করেছেন, আমার কাজ কি সত্যিই তার সমতুল্য? তোমাদের জন্য আমার এই অপমান সহ্য করার কোনো মানেই ছিল না। ঈশ্বর, যিনি সম্পূর্ণ পাপমুক্ত, তিনি এক অত্যন্ত ঘৃণ্য ও অপ্রীতিকর স্থানে অবতরণ করেন, মানুষের বাসের অযোগ্য কুকুর ও শূকরে পূর্ণ এক পৃথিবীতে, তা সত্ত্বেও আমি আমার পিতার গৌরব ও চিরন্তন সাক্ষ্যের স্বার্থে এই নিষ্ঠুর অপমান সহ্য করেছি। তোমাদের নিজেদের আচরণ সম্পর্কে জানা উচিত, এবং বোঝা উচিত যে তোমরা “ধনী ও ক্ষমতাশালী পরিবারের” সন্তান নও, শয়তানের আশ্রয়হীন সন্তান। তোমরা মানবজাতির পিতৃতুল্যও নও, তোমাদের মানবাধিকার বা স্বাধীনতাও নেই। আদিতে মানবতার বা স্বর্গরাজ্যের আশীর্বাদে তোমাদের কোনো ভাগ ছিল না। কারণ তোমরা মানবজাতির নিম্নতম পর্যায়ে আছ এবং আমি কখনো তোমাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে ভাবিনি। তাই, যদিও এ আমার পরিকল্পনারই অংশ ছিল যে তোমাদের নিখুঁত করে তোলার আত্মবিশ্বাস আজ আমার থাকবে, কিন্তু এ এক অভূতপূর্ব কাজ, কারণ তোমাদের অবস্থান অত্যন্ত নিম্নস্তরের এবং আসলে মানবতার মধ্যে তোমাদের কোনো ভাগই ছিল না। এটাই কি মানুষের প্রতি এক আশীর্বাদ নয়?

যে আত্মাদের আমি অনেক আগেই শোধনাগার থেকে মুক্তি দিয়েছি, এবং যে নির্বাচিত মানুষদের সাথে আমি বহুপূর্বে সাক্ষাৎ করেছি, তাদেরই আমি উদ্ধার করি, কারণ তারা তাদের মাঝে আমার পুনরাবির্ভাবের জন্য আকুল আকাঙ্খা করেছে। তারা আমায় ভালোবেসেছে এবং তাদের হৃদয়ে অঙ্কিত করেছে আমার চুক্তিকে, যা আমি রক্তের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠা করেছি, কারণ আমি তাদের ভালোবেসেছি। তারা যেন সেই হারিয়ে যাওয়া মেষশাবকদের মত, যারা বহু বছর ধরে আমাকে অন্বেষণ করছে, এবং তারা ভালো; তাই তাদের আমি ভালো ইস্রায়েলী ও সুন্দর ছোট্ট দেবদূত বলি। তাদের মধ্যে থাকলে আমাকে অপমানিত হতে হতো না। কারণ তারা নিজেদের প্রাণের চেয়েও আমাকে বেশি ভালোবাসে, এবং আমি সমস্তকিছুর মধ্যে সবচাইতে সুন্দর বস্তুর মতো তাদের ভালবাসি। কারণ তারা আমার দ্বারা সৃষ্ট ও আমার দ্বারা অধিকৃত; তারা কখনো আমাকে ভুলে যায়নি। তাদের ভালোবাসা তোমাদের ভালোবাসাকে অতিক্রম করে যায়, এবং তোমরা নিজেদের প্রাণকে যত ভালোবাসো, তারা আমাকে তার চেয়েও বেশি ভালোবাসে। আমার প্রতি তাদের সমর্পণ ছোট্টো সাদা পায়রার আকাশের প্রতি সমর্পণের মতো, এবং তাদের হৃদয়ে আমার প্রতি তোমাদের চাইতে অধিক আনুগত্য আছে। কারণ তারা য়াকোবের উত্তরাধিকারী, আদমের বংশধর এবং আমার দ্বারা নির্বাচিতদের অন্তর্ভুক্ত, কারণ আমি তাদের অনেক দিন ধরে ভালোবেসেছি – এবং তোমাদের থেকেও বেশি ভালোবেসেছি; কারণ তোমরা অত্যধিক বিদ্রোহী, তোমাদের এত অত্যধিক প্রতিরোধ, তোমরা আমাকে অত্যন্ত নিচু নজরে দেখ, তোমরা আমার প্রতি বড়ো বেশি উদাসীন, তোমরা আমাকে খুবই কম ভালোবাসো এবং অত্যধিক ঘৃণা করো। তোমরা আমার কাজকে অবজ্ঞা করো এবং কার্যকলাপকে খুবই অশ্রদ্ধা করো। তোমরা ওদের মতো আমার কাজকে কখনো সম্পদজ্ঞান করোনি। তার বদলে তোমরা আমার কাজকে ঘৃণা করেছ, শয়তানের মতোই তোমাদের চোখ দুশ্চিন্তায় রক্তাভ। তোমাদের সমর্পণ কোথায়? তোমাদের চরিত্র কোথায়? তোমাদের ভালোবাসা কোথায়? কখন তোমরা তোমাদের ভেতরের ভালোবাসার উপাদানগুলি প্রদর্শন করেছ? কবে তোমরা আমার কাজকে গুরুত্ব দিয়েছ? সেই সুন্দর দেবদূতদের ওপর করুণা বর্ষিত হোক যারা উদ্বেগপূর্ণ চিত্তে আমার আগমনের প্রতীক্ষা করে এবং এই অপেক্ষার সময় প্রচণ্ড কষ্ট সহ্য করে, কারণ আমি তাদের আন্তরিকভাবে ভালোবাসি। যাই হোক, আজ আমি যা দেখছি তা এতই অমানবিক পৃথিবী যার সঙ্গে তাদের কোনো সম্পর্ক নেই। তোমাদের কি মনে হয় না তোমাদের বিবেক বহু পূর্বেই অবশ ও অনুভূতিহীন হয়ে গেছে? তোমাদের কি মনে হয় না তোমরাই সেই আবর্জনা যারা আমাকে সেই সুন্দর দেবদূতদের সঙ্গে পুনর্মিলিত হতে বাধা দিচ্ছ? কবে তারা আমার প্রত্যাবর্তনের অপেক্ষা করেনি? কবে তারা আমার সঙ্গে পুনর্মিলনের অপেক্ষা করেনি? কবে তারা আমার সঙ্গে সুন্দর দিনযাপন ও আহার করার প্রত্যাশা করেনি? তোমরা কি কখনো অনুভব করেছ যে তোমরা আজ যা করছ - পৃথিবীময় ধ্বংসযজ্ঞ চালানো; পরস্পরের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা; পরস্পরকে ঠকানো; প্রবঞ্চকের মতো, গোপনীয় এবং নির্লজ্জ আচরণ করা; সত্যকে না জানা; তঞ্চকতা ও প্রবঞ্চনাময় কাজ করা; তোষামোদ করা; নিজেদের সর্বদাই ঠিক ও অপরের চেয়ে শ্রেয়তর মনে করা; উদ্ধত হওয়া; এবং পর্বতের বন্য পশুর মত জংলী ও বুনো জানোয়ারদের দলপতির মতো অসভ্য আচরণ করা – এই কি মানুষের যোগ্য আচরণ? তোমরা অভদ্র ও অযৌক্তিক। তোমরা কখনোই আমার বাক্যকে মূল্যবান মনে করোনি, বরং তাদের প্রতি অসম্মানজনক মনোভাব পোষণ করেছ। এভাবে কী করে কোনো অভীষ্ট সাধন হবে, এক প্রকৃত মানবজীবন যাপন সম্ভব হবে, এবং সুন্দর আশার আগমন সম্ভব হবে? তোমার স্বপ্নবিলাস কি তোমাকে বাঘের মুখ থেকে বাঁচাবে? সে কি তোমাকে সত্যিই লেলিহান শিখা থেকে রক্ষা করবে? যদি তুমি আমার কাজকে মূল্যবান সম্পদ মনে করতে তোমার কি সত্যিই এই অধঃপতন হত? এ কি হতে পারে যে তোমার ভাগ্যের পরিবর্তন আসলেই সম্ভব নয়? তুমি কি এইসব আফশোস নিয়েই মরতে চাও?

পূর্ববর্তী: মানবজাতিকে পরিচালনা করার উদ্দেশ্য

পরবর্তী: তুমি বিশ্বাস সম্পর্কে কী জানো?

প্রতিদিন আমাদের কাছে 24 ঘণ্টা বা 1440 মিনিট সময় থাকে। আপনি কি ঈশ্বরের সান্নিধ্য লাভের জন্য তাঁর বাক্য শিখতে 10 মিনিট সময় দিতে ইচ্ছুক? অনুগ্রহ করে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। 😊

সম্পর্কিত তথ্য

সর্বশক্তিমানের দীর্ঘশ্বাস

তোমার হৃদয়ে এক বিপুল গোপন বিষয় আছে যার ব্যাপারে তুমি কখনও সচেতন ছিলে না, কারণ তুমি বেঁচে আছ আলোহীন এক জগতে। তোমার হৃদয় আর তোমার আত্মা দখল...

ঈশ্বর হলেন মানুষের জীবনের উৎস

ক্রন্দনরত অবস্থায় এই জগতে ভূমিষ্ঠ হবার সময় থেকেই তুমি তোমার কর্তব্য পালন করা শুরু করো। ঈশ্বরের পরিকল্পনা ও তাঁর নির্ধারিত নিয়তি অনুসারে...

শুধুমাত্র অন্তিম সময়ের খ্রিষ্ট মানুষকে অনন্ত জীবনের পথ দেখাতে পারেন

জীবনের গতিপথ কারও নিয়ন্ত্রণে থাকে না, বা এটি সহজে অর্জন করতে পারার মতো বিষয়ও নয়। কারণ জীবন কেবল ঈশ্বর প্রদত্ত, অর্থাৎ, শুধুমাত্র ঈশ্বর...

সেটিংস

  • লেখা
  • থিমগুলি

ঘন রং

থিমগুলি

ফন্টগুলি

ফন্ট সাইজ

লাইনের মধ্যে ব্যবধান

লাইনের মধ্যে ব্যবধান

পৃষ্ঠার প্রস্থ

বিষয়বস্তু

অনুসন্ধান করুন

  • এই লেখাটি অনুসন্ধান করুন
  • এই বইটি অনুসন্ধান করুন

Messenger-এর মাধ্যমে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন