তুমি বিশ্বাস সম্পর্কে কী জানো?

মানুষের মধ্যেই বিশ্বাস নামক অনিশ্চিত ধারণাটি আছে, তবু মানুষ জানে না বিশ্বাসের উপকরণ কী, আরো কম জানে তার বিশ্বাস থাকার কারণ। মানুষ খুবই অল্প বোঝে এবং মানুষ নিজে অভাবে পূর্ণ; আমার প্রতি তার বিশ্বাস অর্থহীন ও অজ্ঞতায় পূর্ণ। যদিও সে জানে না বিশ্বাস কী, বা আমার প্রতি তার কেন বিশ্বাস আছে, সে ঘোরগ্রস্তের মতো আমাকে বিশ্বাস করে চলে। আমি মানুষের কাছে যা চাই তা এই মোহগ্রস্তের মতো আমাকে ডাকা বা অসমঞ্জসভাবে আমাকে বিশ্বাস করা নয়, আমি যে কাজ করি তার উদ্দেশ্য হল মানুষ যাতে আমাকে দেখতে পায় ও জানতে পারে, এইজন্য নয় যে মানুষ প্রভাবিত হবে ও নতুন আলোয় আমাকে দেখবে। একসময় আমি বহু চিহ্ন ও চমৎকার দেখিয়েছি এবং বহু অলৌকিক কাজ করেছি, এবং সেই সময়ের ইস্রায়েলিরা আমার প্রচুর প্রশংসা করেছে ও আমার রোগ নিরাময় করার ও অপশক্তি বিতাড়নের ব্যতিক্রমী ক্ষমতাকে শ্রদ্ধা করেছে। সেই সময়, ইহুদিরা আমার শুশ্রূষা করার ক্ষমতাকে অসাধারণ ও বিরল কৃতিত্ব বলে মনে করত-এবং আমার নানান কাজের কারণে তারা সকলে আমাকে শ্রদ্ধা করত এবং আমার সব ক্ষমতার প্রভূত সমাদর করত। এভাবেই যারা আমাকে অলৌকিক ক্ষমতা প্রদর্শন করতে দেখেছিল তারা নিবিষ্টভাবে আমাকে অনুসরণ করেছিল, এমনভাবে যে হাজার হাজার মানুষ আমাকে ঘিরে রোগ নিরাময় করতে দেখেছিল। আমি এত চমৎকার ও অলৌকিক কৃতি দেখানো সত্ত্বেও মানুষ আমাকে দক্ষ চিকিৎসক হিসেবেই গণ্য করেছিল; তাই আমি তখন মানুষকে বহু শিক্ষণীয় কথা বলেছিলাম, তবু তারা আমাকে শুধুমাত্র নিজের শিষ্যদের থেকে উচ্চকোটির একজন শিক্ষক হিসেবে দেখেছিল। এমনকী আজও, যখন মানুষ আমার কাজের ঐতিহাসিক দলিল দেখেছে, তাদের এই ধারণা রয়ে গেছে যে আমি এক দক্ষ চিকিৎসক এবং মূর্খের শিক্ষক, এবং তারা আমায় করুণাময় প্রভু যীশু খ্রীষ্ট রূপে সংজ্ঞায়িত করেছে। যারা ধর্ম পুস্তকের ব্যাখ্যা করে তারা আমার রোগ নিরাময়ের ক্ষমতাকে অতিক্রম করে গিয়ে থাকতে পারে, বা এমন শিষ্যও থাকতো পারে যে তার শিক্ষককে অতিক্রম করে গেছে, তবু এমন বিখ্যাত মানুষজন, যাদের নাম সারা বিশ্বে পরিচিত, আমাকে শুধুমাত্র এক সামান্য চিকিৎসক মনে করে। সমুদ্র সৈকতে যে পরিমাণ বালুকণা আছে আমার কৃতিসমূহ তার থেকেও অধিকতর, এবং আমার জ্ঞান শলোমনের সমস্ত পুত্রের চেয়েও বেশি, তবু মানুষ আমাকে সামান্য চিকিৎসক ও মানুষের এক অজ্ঞাতপরিচয় শিক্ষক মনে করে। এত মানুষ আমার প্রতি শুধু এই বিশ্বাস রাখে যে আমি তাদের রোগ নিরাময় করতে পারি। কত মানুষ আমার প্রতি শুধু এই বিশ্বাস রাখে যে আমি তাদের দেহ থেকে কলুষিত আত্মাকে বিতাড়িত করতে পারি এবং কত মানুষ বিশ্বাস করে যে তারা আমার থেকে শুধু শান্তি ও আনন্দ পেতে পারে। কত মানুষ আমার প্রতি বিশ্বাস রাখে শুধুমাত্র অধিকতর বস্তু সম্পদের আশায়। কত মানুষ আমার প্রতি বিশ্বাস রাখে শুধুমাত্র এই জীবন শান্তিতে অতিবাহিত করার আশায় এবং ভবিষ্যৎ পৃথিবীতে সুরক্ষিত থাকার আশায়। কত মানুষ আমার প্রতি শুধু নরকের যন্ত্রণা এড়িয়ে যাওয়ার জন্য এবং স্বর্গের আশীর্বাদ লাভের জন্য বিশ্বাস রাখে। কত মানুষ শুধুমাত্র সাময়িক আরামের জন্য আমাকে বিশ্বাস করে, কিন্তু পরলোকের জন্য কিছুই অর্জন করতে চায় না। যখন আমি আমার ক্রোধ বর্ষণ করেছিলাম ও তাদের অর্জিত সব আনন্দ ও শান্তি কেড়ে নিয়েছিলাম মানুষ তখন সন্দিহান হয়ে পড়েছিল। আমি যখন তাদের নরকের যন্ত্রণা দিয়েছিলাম এবং স্বর্গের আশীর্বাদ পুনরুদ্ধার করেছিলাম তখন মানুষের লজ্জা ক্রোধে পরিণত হয়েছিল। মানুষ যখন আমাকে নিরাময় করতে বলেছিল, আমি তাকে কোনো মনোযোগ দিইনি এবং তার প্রতি আমার ঘৃণার উদ্রেক হয়েছিল; মানুষ আমাকে ত্যাগ করে তার বদলে জাদু ও অশ্রেয় ওষুধের পথ গ্রহণ করেছিল। যখন মানুষ আমার কাছে যা যা দাবি করেছিল সেই সব আমি কেড়ে নিয়েছিলাম, প্রত্যেকে চিহ্নমাত্র না রেখে অদৃশ্য হয়ে গিয়েছিল। তাই আমি বলি, মানুষ আমাকে বিশ্বাস করে কারণ আমি অতিরিক্ত ক্ষমা দিই এবং আমার থেকে তাদের অনেক কিছু পাওয়ার আছে। ইহুদিরা আমাকে আমার করুণার কারণে বিশ্বাস করেছিল এবং আমি যেখানে গেছি সেখানে আমাকে অনুসরণ করেছিল। এই সীমিত জ্ঞান ও অভিজ্ঞতাসম্পন্ন মূর্খ লোকেরা শুধুমাত্র যে চিহ্ন ও চমৎকারগুলি আমি দেখিয়েছিলাম তা-ই প্রত্যক্ষ করেছিল। তারা আমাকে ইহুদি পরিবারের সেই মাথা হিসেবে গণ্য করেছিল যে বিরাট অলৌকিক কাজ করতে পারে, এবং সেই কারণেই আমি যখন মানুষের অপশক্তিকে বিতাড়িত করেছি তা তাদের মধ্যে বহুলভাবে আলোচিত হয়েছিল: তারা বলেছিল যে আমি এলিয়, যে আমি মোশি, আমি সব নবীদের মধ্যে প্রাচীনতম, আমি সকল চিকিৎসকদের মধ্যে শ্রেষ্ঠ। আমি নিজে যখন বললাম আমি প্রাণ, আমি পথ ও আমি সত্য, তার আগে কেউ আমার অস্তিত্ব ও পরিচয় জানতে পারেনি। আমি নিজে যখন বললাম যে স্বর্গই সেই স্থান যেখানে আমার পিতা থাকেন, তার আগে কেউ জানতে পারেনি আমি ঈশ্বরের পুত্র এবং স্বয়ং ঈশ্বর। আমার এ কথা বলার আগে যে আমিই মানুষের পরিত্রাণ নিয়ে আসব ও তাদের উদ্ধার করব, কেউ জানত না যে আমিই মানুষের মুক্তিদাতা এবং লোকেরা আমাকে শুধুই এক করুণাময় ও দয়ালু মানুষ মনে করত। এবং আমার নিজের সম্পর্কে সবকিছু ব্যখ্যা করা ছাড়া কেউ আমায় জানতে পারেনি এবং কেউ বিশ্বাস করেনি যে আমি জীবন্ত ঈশ্বরের পুত্র। এই হল আমার ওপর মানুষের বিশ্বাস এবং তাদের আমাকে বোকা বানানোর পথ। কী করে তারা আমার সাক্ষ্য বহন করবে যদি তাদের আমার সম্পর্কে এ হেন ভাবনা চিন্তা থাকে?

মানুষ আমাকে বিশ্বাস করে কিন্তু তারা আমার সাক্ষ্য বহন করতে অক্ষম, আমি নিজের পরিচয় না দিলে তারা আমার হয়ে সাক্ষ্য দিতেও পারে না। মানুষ শুধু দেখে আমি প্রাণীদের ও সব পবিত্র মানুষদের অতিক্রম করি এবং দেখে যে যে কাজ আমি করি তা মানুষের পক্ষে করা সম্ভব নয়। তাই ইহুদি থেকে আজকের মানুষ, সকলেই যারা আমার গৌরবময় কৃতি দেখেছে তারা কেবলই আমার প্রতি কৌতুহলে পূর্ণ হয়েছে, আর কিছুই নয়, এবং একজন প্রাণীরও মুখ আমার সাক্ষ্য বহন করতে পারেনি। একমাত্র আমার পিতাই আমার সাক্ষ্য বহন করেছেন, এবং সমস্ত প্রাণীর মধ্যে আমার পথ নির্মাণ করেছেন; তিনি তা না করলে, আমি যেভাবেই কাজ করি না কেন, মানুষ কখনো জানত না যে আমিই সৃষ্টির প্রভু, কারণ মানুষ শুধু আমার থেকে গ্রহণ করতেই জানে এবং আমার কাজের ফলে আমাকে বিশ্বাস করে না। মানুষ আমাকে শুধু এই কারণেই জানে যে আমি নিষ্পাপ এবং কোনো অংশেই পাপী নই, কারণ আমি অসংখ্য রহস্য ব্যখ্যা করতে পারি, কারণ আমি জনগনের ঊর্ধ্বে, বা মানুষ আমার থেকে বহু কিছু লাভ করেছে, তবু সামান্য সংখ্যকই বিশ্বাস করে আমি সৃষ্টির প্রভু। এইজন্যই আমি বলি মানুষ জানে না সে কেন আমাকে বিশ্বাস করে; সে আমার প্রতি বিশ্বাস রাখার উদ্দেশ্য ও তাৎপর্য জানে না। মানুষের বাস্তবতা অভাবপূর্ণ, এতটাই যে আমার সাক্ষ্য বহন করার যোগ্য নয়। তোমাদের সত্যিকারের বিশ্বাস নেই বললেই চলে, যা তোমরা লাভ করেছো, তাও অতি সামান্য তাই তোমাদের সাক্ষ্য যৎসামান্য। তদুপরি, তোমরা খুবই কম বোঝো এবং বড়ো বেশি অভাবে পূর্ণ, এতটাই যে তোমরা প্রায় আমার সাক্ষ্য বহন করার অযোগ্য। তোমাদের দৃঢ়তা যথেষ্ট, কিন্তু তোমরা কি নিশ্চিত যে তোমরা সফলভাবে ঈশ্বরের মূলসত্তার সাক্ষ্য দিতে পারো? তোমরা যা অভিজ্ঞতা অর্জন করেছ ও দেখেছ তা সব যুগের সমস্ত সন্ত ও নবীদের অতিক্রম করে গেছে, কিন্তু তোমরা কি এমন সাক্ষ্য দিতে পারো যা অতীতের সেই সন্ত ও নবীদের বাণী অপেক্ষা মহত্তর? এখন আমি তোমাদের যা দিচ্ছি তা মোশীকে অতিক্রম করে যায় ও দায়ুদকেও ছায়াচ্ছন্ন করে, তাই আমি চাই তোমাদের সাক্ষ্য মোশীকে অতিক্রম করে যাক ও তোমাদের বাণী দায়ুদ অপেক্ষা মহত্তর হোক। আমি তোমাদের শতগুণ দিচ্ছি-তাই আমি তোমাদের পরিশোধ করতে বলছি। তোমাদের জানতে হবে আমিই সে যে মানুষকে প্রাণ দান করি, তোমরাই আমার থেকে প্রাণ প্রাপ্ত হও এবং আমার সাক্ষ্য বহন করা তোমাদের অবশ্য কর্তব্য। এই হল তোমাদের কর্তব্য যা আমি তোমাদের প্রতি প্রেরণ করি এবং যা তোমরা আমার জন্য করতে বাধ্য। আমি আমার সমস্ত গৌরব তোমাদের প্রদান করেছি, আমি তোমাদের সেই জীবন দিয়েছি যা নির্বাচিতজনেরা, ইস্রায়েলিরা কখনো প্রাপ্ত হয়নি। যথানিয়মে তোমাদের আমার সাক্ষ্য বহন করা উচিত এবং তোমাদের যৌবন আমাকে দেওয়া উচিত ও প্রাণপাত করা উচিত। যাকেই আমি আমার গৌরব প্রদান করব, তারাই আমার সাক্ষ্য পাবে এবং আমার জন্য জীবন দেবে। এটা তোমাদের সৌভাগ্য যে আমি আমার গৌরব তোমাদের দিচ্ছি এবং তোমাদের কর্তব্য আমার গৌরবের সাক্ষ্য বহন করা। তোমরা যদি আমার প্রতি শুধু আশীর্বাদ লাভের আশায় বিশ্বাস রাখো তাহলে আমার কাজের তাৎপর্য ক্ষুণ্ণ হয়, এবং তোমরা তোমাদের কর্তব্য সাধিত হবে না। ইস্রায়েলিরা শুধু আমার করুণা, ভালোবাসা ও মহত্ত্ব দেখেছিল এবং ইহুদিরা আমার ধৈর্য ও পরিত্রাণ প্রত্যক্ষ করেছিল। তারা আমার আত্মার কাজের নিতান্ত সামান্য অংশই দেখেছিল, এতটাই কম যা তোমরা যা দেখেছ ও শুনেছ তার দশ হাজার ভাগের এক ভাগের সমান। তোমরা যা দেখেছ তা তাদের প্রধান যাজকদের চেয়েও অধিক। যে সত্যগুলিকে তোমরা বোঝো তা তাদের চেয়ে বেশি; আজ তোমরা যা দেখেছ তা আইনের যুগকে অতিক্রম করে যায়, অনুগ্রহের যুগকেও অতিক্রম করে যায়, এবং তোমরা যে অভিজ্ঞতা অর্জন করেছ তা মোশী ও এলিয়র চেয়েও অধিক। কারণ ইস্রায়েলিরা শুধু যিহোবার আইন বুঝেছিল, এবং যা তারা দেখেছিল তা হল যিহোবার পৃষ্ঠ; ইহুদিরা যা বুঝেছিল তা হল ইহুদিদের পরিত্রাণ, যা তারা পেয়েছিল তা হল শুধুমাত্র যীশু প্রদত্ত করুণা, এবং যা তারা দেখেছিল তা কেবলমাত্র ইহুদি গৃহে যীশুর চিত্র। তোমরা আজ যা দেখছ তা হল যিহোবার গৌরব, যীশুর পরিত্রাণ এবং আমার আজকের সব কাজ। সেরকমই তোমরা আমার আত্মার বাণী শুনেছ, আমার জ্ঞানের প্রশংসা করেছ, আমার চমৎকারগুলি জেনেছ ও আমার ইচ্ছা জানতে পেরেছ। আমি তোমাদের আমার সব ব্যবস্থাপনার কথাও বলেছি। তোমরা যা দেখেছ তা শুধুমাত্র এক ভালোবাসাময় ক্ষমাশীল ঈশ্বর নয়, এক ন্যায়পূর্ণ ঈশ্বর। তোমরা আমার বিস্ময়কর কাজ দেখেছ এবং জেনেছ যে আমি রাজকীয়তায় ও ক্রোধে পরিপূর্ণ। তদুপরি তোমরা জেনেছ যে এক সময় আমি আমার ক্রোধাগ্নি ইস্রায়েলিদের ওপর নামিয়ে এনেছিলাম এবং আজ তা তোমাদের ওপর এসে পড়েছে। তোমরা স্বর্গে আমার রহস্য সম্পর্কে যিশাই ও যোহনের থেকেও বেশি বোঝো; তোমরা আমার প্রেমময়তা ও কোমলতা সম্পর্কে পূর্বের সমস্ত সন্তের থেকে বেশি জানো। তোমরা যা পেয়েছ তা কেবলমাত্র আমার সত্য, আমার পথ এবং আমার প্রাণই নয়, এক দর্শন ও প্রকাশ যা যোহনের থেকেও বেশি। তোমরা অনেক বেশি রহস্য জানো, এবং আমার প্রকৃত চেহারাও দেখেছ, তোমরা আমার অনেক বেশি বিচার গ্রহণ করেছ এবং আমার ন্যায়নিষ্ঠ প্রকৃতি সম্পর্কেও অধিক জানো। এবং যদিও তোমরা অন্তিম দিনগুলিতে জন্মেছিলে, তোমাদের বোধ পূর্বের ও অতীতের মতোই, এবং সাথে তোমরা আজকের সবকিছুর অভিজ্ঞতাও অর্জন করেছ, এবং এই সবই আমি ব্যক্তিগতভাবে করেছি। আমি তোমাদের থেকে অতিরিক্ত কিছু চাই না, কারণ আমি তোমাদের এত কিছু দিয়েছি এবং তোমরা আমার মধ্যে এত কিছু দেখেছ। তাই আমি চাই তোমরা অতীতের সন্তদের কাছে আমার সাক্ষ্য বহন করো এবং এই হল আমার অন্তরের একমাত্র বাসনা।

আমার পিতাই প্রথম আমার সাক্ষ্য বহন করেন, কিন্তু আমি মহত্তর গৌরব প্রাপ্ত হতে চাই, এবং সৃষ্ট জীবের মুখ থেকে সাক্ষ্যের বাণী চাই-তাই আমি আমার সব তোমাদের দিচ্ছি, যাতে তোমরা তোমাদের কর্তব্য পালন করতে পারো, যাতে মানুষের মধ্যে আমার কাজের সমাধা হয়। তোমাদের বুঝতে হবে তোমরা কেন আমাকে বিশ্বাস করো, যদি তোমরা শুধুই আমার শিক্ষানবীশ বা শিষ্য হতে চাও বা স্বর্গে আমার একজন সন্ত হতে চাও তাহলে তোমাদের আমাকে অনুসরণ করা অর্থহীন।এই রূপে আমার অনুসরণ করা শক্তির অপচয় মাত্র; আমার প্রতি এই ধরণের আস্থা দিনাতিপাত মাত্র, যৌবনের অপচয়। এবং দিনের শেষে তোমরা কিছুই পাবে না। সেটা কী ব্যর্থ শ্রম হবে না? আমি বহুকাল আগে ইহুদিদের ছেড়ে গিয়েছি এবং এখন আমি মানুষের চিকিৎসক বা ঔষধ নই। আমি আর কোনো ভারবাহী পশু নই যাকে মানুষ ইচ্ছেমতো চালাতে বা হত্যা করতে পারে; বরং, আমি মানুষের মধ্যে এসেছি মানুষকে বিচার ও তিরস্কার করতে যাতে মানুষ আমাকে চিনতে পারে। তোমাদের জানা উচিত যে আমি এককালে পরিত্রাণের কাজ করেছিলাম; একসময় আমি যীশু ছিলাম, কিন্তু আমি চিরকাল যীশু হয়ে থাকতে পারিনি, যেমন আমি একদা যিহোবা ছিলাম কিন্তু পরে যীশু হয়েছিলাম। আমি মানবজাতির ঈশ্বর, সৃষ্টির প্রভু, কিন্তু আমি বরাবর যীশু বা যিহোবা হয়ে থাকতে পারি না। আমি মানুষ যাকে চিকিৎসক বলে তা-ও হয়েছি কিন্তু এ কথা বলা যায় না যে ঈশ্বর কেবলমাত্র মানবজাতির জন্য এক চিকিৎসক। তাই তুমি যদি পুরনো মত থেকেই আমার প্রতি বিশ্বাস রাখো, তুমি কিছুই অর্জন করবে না। তুমি যেভাবেই আজ আমার প্রশংসা করো না কেন, “ঈশ্বর মানুষকে কত ভালোবাসেন; তিনি আমাকে সারিয়ে তোলেন ও আশীর্বাদ, শান্তি এবং আনন্দ দেন; যদি তাঁর ওপর আমাদের বিশ্বাস থাকে তাহলে অর্থ ও সম্পদ নিয়ে চিন্তা করার প্রয়োজন নেই…,” তবুও আমি আমার মূল কাজকে বিঘ্নিত করতে পারি না। যদি তুমি আজ আমাকে বিশ্বাস করো, তুমি শুধুমাত্র আমার গৌরব প্রাপ্ত হবে এবং আমার সাক্ষ্য বহন করার যোগ্য হবে, বাকী সব গৌণ হয়ে যাবে। এটা তোমার পরিষ্কার করে জানা দরকার।

এখন কি তুমি প্রকৃত অর্থে জানো কেন তুমি আমাকে বিশ্বাস করো? তুমি কি সত্যিই আমার কাজের উদ্দেশ্য ও তাৎপর্য জানো? তুমি কি প্রকৃতই তোমার কর্তব্য জানো? তুমি কি প্রকৃতই আমার সাক্ষ্য জানো? তুমি যদি শুধুমাত্র আমাকে বিশ্বাস করো অথচ তোমার মধ্যে আমার গৌরব বা সাক্ষ্যের কোনো চিহ্ন না থাকে, তাহলে আমি বহু পূর্বেই তোমাকে বাতিল করেছি। যারা এই সবকিছু জানে, তারা আরো আমার চক্ষুশূল, এবং আমার গৃহে তারা আমার পথের বাধা ছাড়া আর কিছুই নয়, তারা হল আগাছা যাদের আমার কাজে সম্পূর্ণ ঝেড়ে ফেলতে হবে, তাদের কোনো উপযোগিতা নেই, তারা মূল্যহীন, এবং আমি বহুদিন যাবৎ তাদের ঘৃণা করি। আমার ক্রোধ অনেক সময়েই বর্ষিত হয় তাদের ওপর যারা সাক্ষ্য বহন করে না, এবং আমার দণ্ড কখনোই তাদের থেকে বিচ্যূত হয় না। আমি বহুদিন আগেই তাদের দুরাচারীর হাতে সঁপে দিয়েছি; তারা আমার আশীর্বাদ থেকে বঞ্চিত। যখন সময় আসবে, তাদের তিরস্কার বোকা মহিলাদের থেকেও সাংঘাতিক হবে। আজ, আমি শুধু সেই কাজই করি যা আমার কর্তব্য; আমি সমস্ত গম বাণ্ডিলে বাঁধব, এইসব আগাছা সুদ্ধ। এই হল আমার আজকের কাজ। এইসব আগাছাগুলি আমার ঝাড়াই করার সময় ঝেড়ে ফেলা হবে, তারপর গম রাখা হবে ভাঁড়ার ঘরে, আর আগাছা আগুনে জ্বালিয়ে ধুলিস্যাৎ করা হবে। আমার কাজ এখন কেবলমাত্র সমস্ত মানুষকে বাণ্ডিলবদ্ধ করা; অর্থাৎ তাদের সম্পূর্ণ জয় করা। তারপর আমি ঝা়ড়া শুরু করব সব মানুষের অন্তিমাবস্থা প্রকাশ করার জন্য। এবং তাই তোমার জানা উচিত তুমি কীভাবে আমাকে এখন তুষ্ট করবে, এবং কীভাবে আমার প্রতি বিশ্বাসে তুমি নিজেকে সঠিক পথে আনতে পারো। যা আমি এখন চাই তা হল তোমার আনুগত্য ও বাধ্যতা, তোমার ভালোবাসা ও সাক্ষ্য। যদি বা তুমি এখন না জানো সাক্ষ্য কী অথবা ভালোবাসা কী, তোমার নিজের সবকিছু আমার কাছে আনা উচিত, এবং আমাকে তোমার একমাত্র সম্পদ নিবেদন করা উচিত: তোমার আনুগত্য ও বাধ্যতা। তোমার জানা উচিত যে আমার দ্বারা শয়তানের পরাজয়ের সাক্ষ্য মানুষের বিশ্বস্ততা ও বাধ্যতার মধ্যেই আছে, যেমন আমার মানুষকে সম্পূর্ণ জয় করার সাক্ষ্য। তোমার আমার প্রতি বিশ্বাসের কর্তব্য হল আমার সাক্ষ্য বহন করা, আমার প্রতি বিশ্বস্ত থাকা ও অন্য কারোর প্রতি নয়, এবং শেষ পর্যন্ত বাধ্য থাকা। আমি আমার কাজের পরবর্তী ধাপ শুরু করার আগে তুমি কীভাবে আমার সাক্ষ্য বহন করবে? কীভাবে তুমি আমার প্রতি বিশ্বস্ত ও বাধ্য হবে? তুমি কি তোমার সম্পূর্ণ বিশ্বস্ততা তোমার কাজে ন্যস্ত করবে, নাকি সম্পূর্ণরূপে ছেড়ে দেবে? তুমি কি নিজেকে আমার প্রতিটি ব্যবস্থায় (তা যদি মৃত্যু ও ধ্বংসও হয়) সম্পূর্ণ নিবেদন করবে, নাকি আমার তিরস্কার এড়িয়ে যাওয়ার জন্য মাঝপথে পালাবে? আমি তোমাকে তিরস্কার করি যাতে তুমি আমার সাক্ষ্য বহন করো, এবং আমার প্রতি বিশ্বস্ত ও বাধ্য থাকো। অধিকন্তু, এই সময় তিরস্কার হল আমার কাজের পরবর্তী ধাপে পৌঁছনোর উপায় এবং আমার কাজকে বাধাহীনভাবে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার উপায়। তাই আমি তোমায় জ্ঞানী হতে এবং নিজের জীবনকে ও নিজের অস্তিত্বের তাৎপর্যকে গুরুত্বহীন বালুকণা রূপে গণ্য না করতে উপদেশ দিচ্ছি। তুমি কি জানতে পারো আমার ভবিষ্যতের কাজ ঠিক কী হবে? তুমি কি জানো আমি আগামী দিনগুলিতে কীভাবে কাজ করব ও কীভাবে আমার কাজ উন্মোচিত হবে? আমার কাজের বিষয়ে তোমার অভিজ্ঞতার তাৎপর্য, এবং, তদুপরি আমার প্রতি তোমার বিশ্বাসের তাৎপর্য তোমার জানা উচিত। আমি এত কিছু করেছি, কী করে আমি মাঝপথে ছেড়ে দিই, যেমন তুমি কল্পনা করো? আমি এত বিস্তৃত কাজ করেছি, কী করে আমি তা ধ্বংস করি? আমি প্রকৃত অর্থেই এই যুগের অন্ত করতে এসেছি, নতুন কাজ শুরু করতে, এবং, সর্বোপরি, রাজ্যের সুসমাচার প্রসার করতে এসেছি। সুতরাং তোমার জানা উচিত বর্তমান কাজ শুধুমাত্র একটি যুগ শুরু করতে এবং আগামী দিনের সুসমাচার প্রচার করতে ভিত্তি স্থাপনের ও ভবিষ্যতে একটি যুগ শেষ করার কাজ। তুমি যেমনটা মনে করো, আমার কাজ ততটা সরল নয়, তা মূল্যহীন ও গুরুত্বহীনও নয়, যেমনটা তুমি বিশ্বাস করো। সেই জন্য আমাকে এখনো তোমায় বলতে হবে, তোমার নিজের জীবন আমার কাজে দেওয়া উচিত, এবং, তদুপরি, তোমার নিজেকে আমার গৌরবে নিবেদন করা উচিত। আমি বহুদিন ধরেই আকাঙ্খা করেছি তুমি আমার সাক্ষ্য বহন করবে, এবং আরো দীর্ঘ দিন ধরে আমি আকাঙ্খা করেছি যে তুমি আমার সুসমাচার প্রচার করবে। তোমার বোঝা উচিত আমার হৃদয়ে কী আছে।

পূর্ববর্তী: মানুষের সারসত্য ও পরিচয়

পরবর্তী: পরিত্রাতা ইতিমধ্যেই একটি “সাদা মেঘে” চড়ে প্রত্যাবর্তন করেছেন

প্রতিদিন আমাদের কাছে 24 ঘণ্টা বা 1440 মিনিট সময় থাকে। আপনি কি ঈশ্বরের সান্নিধ্য লাভের জন্য তাঁর বাক্য শিখতে 10 মিনিট সময় দিতে ইচ্ছুক? অনুগ্রহ করে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। 😊

সম্পর্কিত তথ্য

ঈশ্বরের সঙ্গে সহজ সম্পর্ক স্থাপন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ

যে পথে মানুষ ঈশ্বরকে বিশ্বাস করে, ভালোবাসে এবং ঈশ্বরের আস্থাভাজন হয়ে ওঠে, সেই পথটি হল নিজের হৃদয়ে ঈশ্বরের পরম শক্তিকে স্থান দিয়ে তাঁর...

ঈশ্বর হলেন মানুষের জীবনের উৎস

ক্রন্দনরত অবস্থায় এই জগতে ভূমিষ্ঠ হবার সময় থেকেই তুমি তোমার কর্তব্য পালন করা শুরু করো। ঈশ্বরের পরিকল্পনা ও তাঁর নির্ধারিত নিয়তি অনুসারে...

সেটিংস

  • লেখা
  • থিমগুলি

ঘন রং

থিমগুলি

ফন্টগুলি

ফন্ট সাইজ

লাইনের মধ্যে ব্যবধান

লাইনের মধ্যে ব্যবধান

পৃষ্ঠার প্রস্থ

বিষয়বস্তু

অনুসন্ধান করুন

  • এই লেখাটি অনুসন্ধান করুন
  • এই বইটি অনুসন্ধান করুন

Messenger-এর মাধ্যমে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন