অধ্যায় ৮৮

আমার গতি যে কতটা দ্রুত হয়েছে মানুষ তা কল্পনাও করতে পারবে না। এই যে অত্যাশ্চর্য ঘটনা ঘটেছে তা মানুষের কল্পনার অতীত। সৃষ্টির প্রথম লগ্ন থেকে আমার গতিময়তা চলছে, এবং আমার কাজে কখনো ছেদ পড়েনি। এই সম্পূর্ণ ব্রহ্মাণ্ড ও পৃথিবী প্রতিদিন পরিবর্তিত হয়, এবং মানুষেরও নিরন্তর পরিবর্তন ঘটে চলেছে। এ সবই আমার কাজের অংশ, আমার পরিকল্পনার অঙ্গ, সর্বোপরি, সবকিছুই আমার ব্যবস্থাপনার অন্তর্ভুক্ত এবং কোনো মানুষ এইসব বিষয় জানেও না বোঝেও না। একমাত্র যখন আমি নিজে থেকে তোমাদের জানাই, একমাত্র যখন তোমাদের মুখোমুখি বসে কথা বলি তখন তোমরা অতি ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র একটা অংশ জানতে পারো, নচেৎ, আমার পরিচালনামূলক পরিকল্পনার নীলনকশা বোঝার সাধ্য কোনো মানুষের নেই। এমনই বিরাট আমার শক্তি, সর্বোপরি, এমনই অত্যাশ্চর্য আমার কর্ম। এগুলি কেউ পরিবর্তন করতে পারবে না। তাই, আজ আমি যা বলি তা চলতেই থাকে, এর কোনো বদল হতে পারে না। মানুষের কল্পনায় আমার সম্বন্ধে সামান্যতম জ্ঞানও নেই—যা রয়েছে তা হল অর্থহীন প্রলাপ! ভেবো না যে তোমরা যথেষ্ট পেয়ে গেছ, বা তোমরা পরিতৃপ্ত হয়েছ! আমি তোমাদের একথা বলছিঃ তোমাদের এখনও অনেক দূর যেতে হবে! আমার সমগ্র পরিচালনামূলক পরিকল্পনার অল্পই তোমরা জানো, তাই আমি যা বলব তোমাদের তা অবশ্যই শুনতে হবে, আমি যা বলব তোমাদের তা অবশ্যই করতে হবে। প্রতিটি ক্ষেত্রে আমার ইচ্ছানুসারে কর্ম করো, তোমরা অবশ্যই আমার আশীর্বাদ পাবে; যারা বিশ্বাস করে তারা এই আশীর্বাদ গ্রহণ করতে পারবে, আর বিশ্বাস যারা করে না, তারা যে শূন্য দ্বারা পরিপূর্ণ বলে তাদের ধারণা ছিল, সেই “শূন্য”-ই তারা পাবে। এটাই আমার ন্যায়পরায়ণতা, তার চেয়েও বেশি এ আমার মহিমা, আমার ক্রোধ এবং আমার শাস্তি। একটামাত্র ধারণা বা কাজ নিয়েও আমি কাউকেই রেহাই দেব না।

আমার কথা শুনে অধিকাংশ মানুষই ভয়ে কাঁপে, তাদের মুখে চিন্তার রেখা ফুটে ওঠে। আমি কি তোমাদের সঙ্গে প্রকৃতই কোনো অবিচার করেছি? এমনটা কি হতে পারে যে তোমরা সেই অতিকায় লাল ড্রাগনের সন্তান নয়? এমনকী, তোমরা ভালো সাজার ভানও করতে পারো! তোমরা আমার প্রথমজাত পুত্র হওয়ারও ভান করতে পারো! তোমরা কি মনে করো আমি অন্ধ? তোমরা কি মনে করো মানুষের মধ্যে ফারাক আমি বুঝতে পারি না? আমিই সেই ঈশ্বর যিনি মানুষের হৃদয়ের অন্তঃস্থলে গিয়ে অন্বেষণ করেনঃ এটাই আমি আমার পুত্রদের বলি; আর এটা আমি তোমাদেরও অর্থাৎ সেই অতিকায় লাল ড্রাগনের সন্তানদেরও বলে থাকি। আমি সমস্ত কিছু স্পষ্টভাবে দেখি, আমার সামান্যতম ভুলও হয় না। তাই যাকিছু আমি করি সেটা নিজে জানব না? আমি যা করি সে সম্বন্ধে আমার ধারণা স্ফটিকের মতো স্বচ্ছ! আমি কেন বলি যে, আমিই স্বয়ং ঈশ্বর, আমিই বিশ্বব্রহ্মাণ্ড এবং সমস্ত কিছুর স্রষ্টা? কেন আমি বলি যে আমিই ঈশ্বর এবং আমি মানুষের হৃদয়ের অন্তঃস্থলের বিচার করে দেখি? আমি প্রতিটি মানুষের অবস্থা সম্পর্কে সচেতন। তোমরা কি ভাবো যে কী বলতে বা করতে হবে তার কিছুই আমি জানি না? এটা তোমাদের চিন্তার বিষয় নয়। আমার হাতে যাতে মৃত্যু না হয় সে বিষয়ে সচেতন থেকো, এভাবেই তোমাদের ক্ষতি হতে পারে। আমার পরিচালনামূলক আজ্ঞাসমূহ ক্ষমাহীন। তোমরা এটা অনুধাবন করেছ? যে কথাগুলি উপরে বলা হয়েছে সবই আমার পরিচালনামূলক আজ্ঞার অংশ। যেদিন এগুলির কথা তোমার বলব সেদিন থেকে তোমাদের মধ্যে যদি কোনো অধর্ম লক্ষ্য করি তাহলে শাস্তি অনিবার্য, কারণ আগে তোমরা এগুলি অনুধাবন করোনি।

এবার আমি তোমাদের জন্য আমার পরিচালনামূলক আজ্ঞাসমূহ ঘোষণা করছি (ঘোষণার দিন থেকে এগুলি কার্যকর হবে, বিভিন্ন ধরনের মানুষের জন্য আলাদা আলাদা শাস্তির বিধান থাকবে)

আমি আমার প্রতিশ্রুতি রক্ষা করি এবং সবকিছুই আমার হাতের মধ্যেঃ এ নিয়ে যারা কোনো সন্দেহ প্রকাশ করে তাদের অবশ্যই হত্যা করা হবে। এখানে সহানুভূতির কোনো স্থান নেই; তাদের অবিলম্বে নিশ্চিহ্ন করে দেওয়া হবে, এইভাবেই আমার হৃদয় ঘৃণামুক্ত হবে। (এই মুহূর্ত থেকে এটা স্থির করা হল যে, যাকেই হত্যা করা হবে সে আমার রাজ্যের সদস্য থাকবে না, সে হবে শয়তানের বংশধর।)

প্রথমজাতপুত্র হিসাবে তোমাদের নিজেদের অবস্থান ধরে রাখতে হবে এবং ভালোভাবে নিজেদের কর্তব্য পালন করতে হবে এবং অন্যের বিষয়ে নাক গলালে চলবে না। আমার পরিচালনামূলক পরিকল্পনার জন্য তোমাদের নিজেদের উৎসর্গ করতে হবে, যেখানেই তোমরা যাবে সেখানে তোমাদের আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে আমার সাক্ষ্য বহন করতে হবে এবং আমার নামকে মহিমান্বিত করতে হবে। কোনো লজ্জাজনক কর্ম কোরো না, আমার সমস্ত পুত্র ও আমার মনুষ্যগণের কাছে দৃষ্টান্তস্বরূপ হও। এক মুহূর্তের জন্যও ব্যভিচারী হয়ো নাঃ তোমাকে সবসময়ই প্রথমজাত পুত্রদের পরিচয়বাহী মানুষের সামনে দাঁড়াতে হবে, কিন্তু তোমরা নতজানু হয়ো না, বরং মাথা উঁচু করে সামনের দিকে এগিয়ে যাও। আমি তোমাদের নির্দেশ দিচ্ছি যে আমার নামকে মহিমান্বিত করো, কিন্তু একে কালিমালিপ্ত কোরো না। যারা আমার প্রথমজাত পুত্র তাদের প্রত্যেকের কাজ আলাদা, এবং তারা সবাই সবকিছু করতে পারে না। এই দায়িত্ব আমি তোমাদের দিয়েছি, একে এড়িয়ে গেলে চলবে না। যে দায়িত্ব তোমাদের ওপর অর্পণ করেছি সর্বান্তঃকরণে, সমস্ত শক্তি দিয়ে তা পালনের জন্য নিজেদের উৎসর্গ তোমাদের করতেই হবে।

এই দিনের পর থেকে এই বিশ্ব চরাচর জুড়ে আমার পুত্র ও আমার মনুষ্যগণকে চালনার কর্তব্য বর্তাবে আমার প্রথমজাত পুত্রদের ওপর এবং এই কর্তব্য পালনে যারা সর্বান্তঃকরণে নিজেদের উৎসর্গ করতে পারবে না তাদের আমি শাস্তি দেব। এটাই আমার ন্যায়পরায়ণতা। আমার প্রথমজাত পুত্রদেরও আমি কোনো ছাড় দেব না, তাদের প্রতি দুর্বলতাও দেখাব না।

আমার পুত্র বা আমার মনুষ্যগণের মধ্যে থেকে কেউ যদি আমার প্রথমজাত পুত্রদের কাউকে পরিহাস করে বা অপমান করে তবে আমি তাকে কঠোর শাস্তি দেব। কারণ আমার প্রথমজাত পুত্ররা আমারই প্রতিনিধি; তাদের প্রতি যে আচরণ করা হবে সেটা আমার প্রতিও হবে। এটাই আমার সবচেয়ে কঠোর পরিচালনামূলক আজ্ঞা। আমার পুত্র বা আমার মনুষ্যগণের মধ্যে থেকে কেউ যদি এই আজ্ঞা লঙ্ঘণ করে তবে তার বিরুদ্ধে নিজেদের ইচ্ছানুসারে আমার ন্যায়পরায়ণতা প্রয়োগের অনুমতি আমি আমার প্রথমজাত পুত্রদের দিচ্ছি।

আমাকে যারা লঘুজ্ঞান করে এবং শুধু আমার খাদ্য, বস্ত্র আর নিদ্রা নিয়ে মগ্ন থাকে, যাদের শুধু আমার বাহ্যিক দিকগুলির প্রতিই নজর, যে ভার আমি বহন করে চলেছি সে দিকে যাদের কোনো দৃকপাত নেই, ঠিকমতো নিজেদের কার্যসাধনে যাদের কোনো মতি নেই, তাদের আমি ধীরে ধীরে পরিত্যাগ করব। যাদের শ্রবণশক্তি রয়েছে তাদের সকলের উদ্দেশেই এই কথাগুলো আমি বললাম।

আমার জন্য যাদের কাজ শেষ হয়ে যাবে তারা যেন অবনত চিত্তে কোনো কথা না বাড়িয়ে নিজেদের সরিয়ে নেয়। সাবধান, তা নাহলে কিন্তু আমিই বাছাই করে তোমাদের সরিয়ে দেব। (এটা একটা পরিপূরক আজ্ঞা)

এখন থেকে আমার প্রথমজাত পুত্ররা লৌহদণ্ড তুলে নেবে এবং আমার কর্তৃত্ব প্রয়োগ করে সমস্ত দেশ ও জনগণকে শাসন করবে, সমস্ত দেশ ও জনগণের মাঝে হেঁটে বেড়াবে এবং সমস্ত দেশ ও জনগণের মধ্যে আমার বিচার, ন্যায়পরায়ণতা ও আমার মহিমার প্রচার করবে। আমার পুত্ররা ও আমার মনুষ্যগণ নিরন্তর আমাকে ভয় পাবে, আমার গুণকীর্তন করবে, আমাকে আনন্দ দেবে এবং আমাকে মহিমান্বিত করবে কারণ, আমার পরিচালনামূলক পরিকল্পনার উদ্দেশ্য সিদ্ধ হয়েছে এবং এখন আমার প্রথমজাত পুত্ররা আমার সঙ্গেই শাসনকার্য পরিচালনা করতে পারে।

এটা আমার পরিচালনামূলক আজ্ঞার একটা অংশ; এরপর কাজ যত এগোবে সেগুলির কথা আমি তোমাদের বলব। উপরোক্ত পরিচালনামূলক আজ্ঞাগুলি দেখলেই বুঝতে পারবে কী গতিতে আমি আমার কার্য সমাধা করি এবং আমার কার্য কোন পর্যায়ে উপনীত হয়েছে। এটা একটা প্রমাণ হয়ে থাকবে।

শয়তানের বিচার আমি ইতিমধ্যেই করেছি। যেহেতু আমার ইচ্ছা অপ্রতিহত এবং যেহেতু আমার প্রথমজাত পুত্ররা আমার পাশাপাশি মহিমা অর্জন করেছে, তাই আমি ইতিমধ্যেই এই বিশ্বে তথা শয়তানের দখলের থাকা সবকিছুর ওপর আমার ন্যায়পরায়ণতা ও মহিমা প্রয়োগ করেছি। আমি আমার একটা আঙুলও সরাব না বা শয়তানের প্রতি বিন্দুমাত্রও নজর দেব না (কারণ সে আমার সঙ্গে কথা বলারও যোগ্য নয়)। আমি যা করতে চাই সেটাই করে যাব। মসৃণভাবে ধাপে ধাপে করে আমার কাজ এগিয়ে যায়, এবং সমগ্র পৃথিবীজুড়ে আমার ইচ্ছা অপ্রতিহত রূপে বিরাজ করে। এর ফলে শয়তানের মাথা হেঁট হয়ে গেছে, সে পুরোপুরি নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে, কিন্তু শুধুমাত্র এতে আমার ইচ্ছা পূরণ হয়নি। আমার পরিচালনামূলক আজ্ঞাগুলিকে নিজেদের ওপর প্রয়োগের জন্যও আমি আমার প্রথমজাত পুত্রদের অনুমতি দিচ্ছি। একদিকে চাই, শয়তান দেখুক তার প্রতি আমার কতটা ক্রোধ, অন্যদিকে আমি এটাও চাই, শয়তান আমার অপার মহিমাও দেখুক (শয়তান দেখুক যে আমার প্রথমজাত পুত্ররা তার অপমানের সবচেয়ে বড় সাক্ষী)। আমি নিজ হাতে তাকে শাস্তি দিই না; আমি আমার প্রথমজাত পুত্রদেরই আমার ন্যায়পরায়ণতা ও আমার শক্তির প্রয়োগ ঘটাতে দিই। কারণ শয়তান আমার পুত্রদের অবমাননা করেছে, আমার পুত্রদের নিগ্রহ করেছে, আমার পুত্রদের শোষণ করেছে। আজ তার কাজ শেষ, আমার পরিণত প্রথমজাত পুত্রদের এবার আমি এ বিষয়ের সমাধান করার অনুমতি দেব। পতনের সামনে শয়তান এখন ক্ষমতাহীন। বিশ্বের সমস্ত দেশ যেভাবে পঙ্গু হয়ে পড়েছে তাতে তো একথাই প্রমাণিত। মানুষ নিজেদের মধ্যে হানাহানি করছে, দেশগুলি নিজেদের মধ্যে যুদ্ধ করছে। এ সবই শয়তানের রাজত্বের পতনের ইঙ্গিত। অতীতে আমি কোনো সংকেত দেখাইনি বা আশ্চর্য কোনো ঘটনাও ঘটাইনি, কারণ আমি আস্তে আস্তে শয়তানকে পর্যুদস্ত করে নিজের নামের মহিমা প্রচার করতে চেয়েছিলাম। শয়তান যখন পুরোপুরি নিশ্চিহ্ন হয়ে যায়, তখন আমি আমার ক্ষমতা প্রদর্শন করিঃ আমি যা বলি তা রূপধারণ করে এবং অতিপ্রাকৃত যে বিষয়গুলো মানুষের কল্পনার বাইরে তা বাস্তব রূপ পায় (এর অর্থ হল খুব শীঘ্রই আশীর্বাদ আসবে)। যেহেতু আমি স্বয়ং বাস্তববাদী ঈশ্বর ও আমার কোনো নিয়মকানুন নেই, এবং যেহেতু আমি আমার পরিচালনামূলক পরিকল্পনার পরিবর্তনগুলির কথা মাথায় রেখে কথা বল্‌ তাই অতীতে আমি যা বলেছি তা বর্তমানে প্রযোজ্য নাও হতে পারে। তাই নিজের ধারণাকে আঁকড়ে ধরে থেকো না। আমি শুধুমাত্র নিয়মনীতির নিগড়ে আবদ্ধ ঈশ্বর নই; আমার কাছে সব কিছু মুক্ত, অনুপম ও সম্পূর্ণ রূপে স্বাধীন। গতকাল যা বলা হয়েছে তা হয়তো আজ অপ্রাসঙ্গিক, হয়তো তা আজ বাতিল করতে হতে পারে (কিন্তু আমার পরিচালনামূক আজ্ঞাগুলির ঘোষণা যেহেতু হয়ে গেছে, তাই সেগুলির কোনো পরিবর্তন হবে না)। এগুলিই আমার পরিচালনামূলক পরিকল্পনার একেকটি ধাপ। নিয়মকানুন আঁকড়ে থেকো না। প্রতিদিনই নতুন আলোয় নতুন নতুন বিষয় উদ্ভাসিত হয়, এবং সেটাই আমার পরিকল্পনা। প্রতিদিনই আমার আলো তোমাদের মধ্যে উদ্ভাসিত হবে এবং আমার কণ্ঠস্বর বিশ্বচরাচর জুড়ে ধ্বনিত হবে। তোমরা কি বুঝতে পেরেছ? এই কর্তব্য তোমাদের, এই দায়িত্ব আমি তোমাদের হাতে অর্পণ করেছি। একে এক মুহূর্তের জন্যও অবহেলা কোরো না। যাদের আমি অনুমোদন করেছি তাদের আমি শেষ পর্যন্ত ব্যবহার করব, এবং এই নিয়মের কোনো পরিবর্তন হবে না। যেহেতু আমিই সর্বশক্তিমান ঈশ্বর। আমি জানি কোন মানুষের কী কাজ করা উচিত, এবং কোন মানুষ কী কাজ করতে সক্ষম। এটাই আমার অসীম শক্তি।

পূর্ববর্তী: অধ্যায় ৫

পরবর্তী: অধ্যায় ১০৩

প্রতিদিন আমাদের কাছে 24 ঘণ্টা বা 1440 মিনিট সময় থাকে। আপনি কি ঈশ্বরের সান্নিধ্য লাভের জন্য তাঁর বাক্য শিখতে 10 মিনিট সময় দিতে ইচ্ছুক? অনুগ্রহ করে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। 😊

সম্পর্কিত তথ্য

ঈশ্বরের সঙ্গে সহজ সম্পর্ক স্থাপন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ

যে পথে মানুষ ঈশ্বরকে বিশ্বাস করে, ভালোবাসে এবং ঈশ্বরের আস্থাভাজন হয়ে ওঠে, সেই পথটি হল নিজের হৃদয়ে ঈশ্বরের পরম শক্তিকে স্থান দিয়ে তাঁর...

সেটিংস

  • লেখা
  • থিমগুলি

ঘন রং

থিমগুলি

ফন্টগুলি

ফন্ট সাইজ

লাইনের মধ্যে ব্যবধান

লাইনের মধ্যে ব্যবধান

পৃষ্ঠার প্রস্থ

বিষয়বস্তু

অনুসন্ধান করুন

  • এই লেখাটি অনুসন্ধান করুন
  • এই বইটি অনুসন্ধান করুন

Messenger-এর মাধ্যমে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন