অধ্যায় ১

স্তুতিবাক্য এসে সিয়োনে পৌঁছেছে এবং ঈশ্বরের আবাসস্থল প্রকাশ্যে এসেছে। সমস্ত মানুষ যে মহিমাময়, পবিত্র নামের বন্দনা গায় সেই নাম দিকে দিকে ছড়িয়ে পড়ছে। আহা, সর্বশক্তিমান ঈশ্বর! বিশ্বব্রহ্মাণ্ডের প্রধান। অন্তিম সময়ের খ্রীষ্ট – তিনিই সেই ভাস্বর সূর্য যা সিয়োন পর্বতের শীর্ষে উদিত হয়েছে। সেই সিয়োন পর্বত যা বিশ্ব ব্রহ্মাণ্ডে নিজ মহিমা ও রাজকীয়তা নিয়ে বিরাজ করছে…

সর্বশক্তিমান ঈশ্বর! আমরা তোমাকে হর্ষচিত্তে আহ্বান করছি, আমরা নৃত্য, গীতে মেতে উঠেছি। তুমি প্রকৃতই আমাদের রক্ষাকর্তা, বিশ্বব্রহ্মাণ্ডের রাজাধিরাজ! তুমি জয়ীদের একটি দল গঠন করেছ এবং ঈশ্বরের পরিচালনামূলক পরিকল্পনা পূর্ণ করেছ। সমস্ত মানুষ স্রোতের মতো এই পর্বতের সামনে আসবে। সমস্ত মানুষ এই সিংহাসনের সামনে নতজানু হবে! তুমিই এক এবং একমাত্র প্রকৃত ঈশ্বর এবং এই মহিমা ও সম্মান তোমার প্রাপ্য। সকল মহিমা, স্তুতি এবং কর্তৃত্ব সিংহাসনের উদ্দেশে নিবেদিত হোক। এই সিংহাসন থেকেই জীবনের স্রোত প্রবাহিত হয়, ঈশ্বরের লক্ষ লক্ষ সন্তানকে সিঞ্চন করে ও তাদের মুখে খাদ্যতুলে দেয়। প্রতিদিনই আমাদের জীবনের পরিবর্তন ঘটে, নতুন আলো ও নতুন নতুন প্রকাশ আমাদের সামনে আসে, যার মাধ্যমে নিরন্তর আমরা ঈশ্বরের বিষয়ে নতুন নতুন অন্তর্দৃষ্টি লাভ করি। অভিজ্ঞতার মধ্যে দিয়ে আমরা ঈশ্বরের বিষয়ে সম্পূর্ণভাবে সুনিশ্চিত হই। তাঁর বাক্যগুলি ক্রমাগত স্পষ্টভাবে প্রতীয়মান হয়, প্রতীয়মান হয় তাঁদের মধ্যেই যাঁরা সঠিক। সত্যিই আমরা আশীর্বাদধন্য! প্রতিদিন ঈশ্বরের মুখোমুখি হই, সমস্ত বিষয়ে তাঁর সঙ্গে মতবিনিময় করি, সবকিছুর ওপর ঈশ্বরের সার্বভৌমত্ব প্রতিষ্ঠা করি। ঈশ্বরের বাক্যকে আমরা সযত্নে বিবেচনা করি, ঈশ্বরের মধ্যেই আমাদের হৃদয় প্রশান্তিতে বিরাজ করে, এবং এইভাবেই আমরা ঈশ্বরের সম্মুখে আসি যেখানে তাঁর আলো পেয়ে থাকি। প্রতিদিন আমাদের জীবনে, কর্মে, কথায়, চিন্তায় এবং ধ্যানধারণায় আমরা ঈশ্বরের বাক্যের মধ্যেই বাস করি, সবসময় সেগুলোকে পৃথক করে চিনে নিতে পারি। ঈশ্বরের বাক্যই সূঁচের মধ্যে সুতোকে পথ দেখায়; এবং আমাদের মধ্যে যা কিছু গোপন রয়েছে তা অপ্রত্যাশিতভাবে একের পর এক প্রকাশ্যে আসে। ঈশ্বরের সঙ্গে সহকারিতা কোনো বিলম্ব সহ্য করে না; আমাদের ভাবনাচিন্তা ও ধ্যানধারণা ঈশ্বরের দ্বারা উন্মোচিত হয়। প্রতিটি মুহূর্তে আমরা খ্রীষ্টের আসনের সামনেই বাঁচি এবং বিচারের সম্মুখীন হই। আমাদের দেহের প্রতিটি কণা শয়তানের দখলে। আজ, ঈশ্বরের সার্বভৌমত্ব পুনরুদ্ধারের জন্য, তাঁর মন্দিরকে পরিশুদ্ধ করতে হবে। ঈশ্বরের দ্বারা সম্পূর্ণভাবে আবিষ্ট হওয়ার জন্য আমাদের জীবন-মৃত্যুর সংগ্রামে লিপ্ত হতে হবে। একমাত্র আমাদের পুরোনো সত্ত্বা যখন ক্রুশবিদ্ধ হবে তখনই খ্রীষ্টের পুনর্জীবিত জীবন সর্বোচ্চ কর্তৃত্ব প্রয়োগ করতে পারবে।

এখন আমাদের পুনরুদ্ধারের সংগ্রামে নামার জন্য আমাদের প্রতিটি দেহকণাকে উদ্দীপিত করে চলেছে পবিত্র আত্মা! যতদিন আমরা নিজেদের অস্বীকার করতে প্রস্তুত থাকি এবং ঈশ্বরের সঙ্গে সহযোগিতা করতে আগ্রহী হই, ঈশ্বর সবসময়ই নিশ্চিতরূপেই আমাদের অন্তর থেকে আলোকিত ও পরিশুদ্ধ করবেন, এবং যা এতদিন শয়তান দখল করে রেখেছিল তা তিনি পুনরুদ্ধার করে নতুন রূপে প্রকাশ করবেন, যাতে যত দ্রুত সম্ভব আমরা ঈশ্বরের দ্বারা সম্পূর্ণতা লাভ করি। সময়ের অপচয় কোরো না। ঈশ্বরের বাক্যের মধ্যে প্রতিটি মুহূর্ত যাপন করো। সন্তদের সাথে গড়ে ওঠো, রাজত্বে আনীত হও, এবং ঈশ্বরে সাথে মহিমায় প্রবেশ করো।

পূর্ববর্তী: ভূমিকা

পরবর্তী: অধ্যায় ২

প্রতিদিন আমাদের কাছে 24 ঘণ্টা বা 1440 মিনিট সময় থাকে। আপনি কি ঈশ্বরের সান্নিধ্য লাভের জন্য তাঁর বাক্য শিখতে 10 মিনিট সময় দিতে ইচ্ছুক? অনুগ্রহ করে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। 😊

সম্পর্কিত তথ্য

একটি সাধারণ আধ্যাত্মিক জীবন মানুষকে সঠিক পথে নিয়ে যায়

তোমরা ঈশ্বরের প্রতি বিশ্বাসের পথে খুব সামান্য অংশই হেঁটেছো, এবং তোমরা এখনও সঠিক পথে প্রবেশ করতে পারোনি, তাই তোমরা এখনও ঈশ্বরের নির্ধারিত...

সেটিংস

  • লেখা
  • থিমগুলি

ঘন রং

থিমগুলি

ফন্টগুলি

ফন্ট সাইজ

লাইনের মধ্যে ব্যবধান

লাইনের মধ্যে ব্যবধান

পৃষ্ঠার প্রস্থ

বিষয়বস্তু

অনুসন্ধান করুন

  • এই লেখাটি অনুসন্ধান করুন
  • এই বইটি অনুসন্ধান করুন

Messenger-এর মাধ্যমে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন