শুধুমাত্র তাঁর জীবনের অন্তিম সময়ের খ্রিষ্ট মানুষকে অনন্ত জীবনের পথ দেখাতে পারেন

জীবনের গতিপথ কারও নিয়ন্ত্রণে থাকে না বা এটি সহজে অর্জন করতে পারার মতো বিষয়ও নয়। কারণ জীবন কেবল ঈশ্বর প্রদত্ত, অর্থাৎ, শুধুমাত্র ঈশ্বর নিজেই জীবনের সারসত্যের অধিকারী এবং জীবনের গতিপথ শুধুমাত্র তাঁরই নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। আর তাই একমাত্র ঈশ্বরই হলেন প্রাণের উৎস এবং প্রাণ সঞ্চারী অমৃতের অনন্ত প্রবাহী ধারা। পৃথিবীর জন্মলগ্ন থেকেই, ঈশ্বর জীবনের প্রাণশক্তির সাথে সম্পর্কিত বহু কাজ করেছেন, প্রাণসঞ্চারী কাজ করেছেন এবং মানবজাতির জীবনের জন্য মূল্যও পরিশোধ করেছেন। এর কারণ হল ঈশ্বর নিজেই অনন্ত জীবনের আধার এবং ঈশ্বর নিজেই সেই পথ যার মাধ্যমে মানুষ পুনরুত্থিত হতে পারে। ঈশ্বর কখনই মানুষের হৃদয়ে অনুপস্থিত থাকেন নি, তিনি সর্বদা মানুষের মধ্যে থাকেন। তিনি মানুষের জীবনের চালিকাশক্তি, মানুষের অস্তিত্বের মূল এবং জন্ম পরবর্তীকালে অস্তিত্বের এক সযত্নে লালিত সম্পদ। তাঁর জন্যই মানুষের পুনর্জন্ম হয় এবং তিনিই তাকে প্রতিটি ভূমিকা যথাযথ ভাবে পালনে সক্ষম করেন। তাঁর অপার শক্তি এবং অদম্য প্রাণশক্তির বদান্যতায় মানুষ প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে বেঁচে আছে, যেখানে ঈশ্বরের জীবনীশক্তিই মানুষের অস্তিত্বের মূল ভিত্তি এবং ঈশ্বর এর জন্য এমন মূল্য প্রদান করেছেন যা সাধারণ মানুষের কল্পনাতীত। ঈশ্বরের জীবনীশক্তি সমস্ত শক্তির ওপর জয়লাভ করতে পারে; তদুপরি, এটি যেকোনও শক্তিকেই অতিক্রম করতে সক্ষম। তাঁর জীবন চিরন্তন, তাঁর শক্তি অসাধারণ এবং তাঁর জীবনীশক্তি কোনও সৃষ্ট সত্তা বা প্রতিপক্ষ শক্তি দ্বারা পরাভূত হতে পারে না। স্থান-কাল নির্বিশেষেই ঈশ্বরের অফুরন্ত প্রাণশক্তি সর্বদা বিদ্যমান এবং উজ্জ্বল দীপ্তির আলোকে উদ্ভাসিত হয়। স্বর্গ এবং মর্ত্যে আমূল পরিবর্তন আসতে পারে, কিন্তু ঈশ্বরের জীবন চিরকাল একই থেকে যায়। সমস্ত কিছু নিশ্চিহ্ন হয়ে গেলেও ঈশ্বর থেকে যাবেন, কারণ ঈশ্বরই সমস্ত অস্তিত্বের উৎস এবং মূল। মানুষের জীবনের উৎপত্তিস্থল ঈশ্বর, স্বর্গের অস্তিত্বের মূলেও রয়েছেন ঈশ্বর এমনকি পৃথিবীর অস্তিত্বও ঈশ্বরের জীবনীশক্তি থেকেই উদ্ভূত হয়েছে। জীবনীশক্তি সম্পন্ন কোনও কিছুই ঈশ্বরের সার্বভৌমত্বকে অস্বীকার করতে পারে না এবং শক্তি সম্পন্ন কোনও কিছুই ঈশ্বরের কর্তৃত্বকে এড়িয়ে যেতে পারে না। এইভাবে, নিজেদের স্বরূপ নির্বিশেষে প্রত্যেককে অবশ্যই ঈশ্বরের আধিপত্যে বশ্যতা স্বীকার করতে হবে, প্রত্যেককেই ঈশ্বরের আদেশ অনুসারে জীবনযাপন করতে হবে এবং কেউই তাঁর দৃষ্টির আড়ালে যেতে পারবে না।

তুমি হয়তো এখন জীবন লাভ করতে চাও অথবা তোমার হয়তো সত্য লাভের আকাঙ্ক্ষা রয়েছে। যাই হোক না কেন, ঈশ্বরকে পেতে চাইলে, তোমাকে এমন ঈশ্বরকে খুঁজতে হবে যার উপর তুমি নির্ভর করতে পারবে এবং যিনি তোমাকে অনন্ত জীবন প্রদানের ক্ষমতা রাখেন। তুমি অনন্ত জীবন পেতে চাইলে তোমাকে অবশ্যই প্রথমে অনন্ত জীবনের উৎসকে জানতে হবে এবং অবশ্যই জানতে হবে ঈশ্বর কোথায় আছেন। আমি আগেই বলেছি যে একমাত্র ঈশ্বরেরই রয়েছে অপরিবর্তনীয় জীবন এবং একমাত্র ঈশ্বরই জীবনের গতিপথের অধিকারী। অপরিবর্তনীয় জীবনের কারণেই তিনি অনন্ত জীবনের অধিকারী; একমাত্র ঈশ্বরই হলেন জীবন যাপনের পথ, তাই ঈশ্বর নিজেই অনন্ত জীবন লাভের পথ। সুতরাং, তোমাকে প্রথমেই বুঝতে হবে ঈশ্বর কোথায় আছেন এবং কীভাবে এই অনন্ত জীবন লাভ করা সম্ভব। এসো, এখন এই দুটি বিষয়ে আলাদাভাবে আলোচনা করা যাক।

তুমি প্রকৃতপক্ষেই অনন্ত জীবন লাভের পথ জানতে চাইলে এবং এর সন্ধানে উদগ্রীব হয়ে থাকলে, প্রথমে এই প্রশ্নের উত্তর দাও: ঈশ্বর আজ কোথায়? সম্ভবত তোমার উত্তর হবে, “ঈশ্বর স্বর্গে আছেন, অবশ্যই—তিনি তো আর তোমার বাড়িতে থাকবেন না, তাই না?” হয়তো তুমি বলবে যে ঈশ্বর স্পষ্টতই সমস্ত কিছুর মধ্যেই বাস করেন। অথবা বলতে পারো যে ঈশ্বর প্রত্যেকের হৃদয়ে বাস করেন, বা ঈশ্বর আধ্যাত্মিক জগতে আছেন। আমি এর কোনোটিই অস্বীকার করি না, তবে আমাকে অবশ্যই বিষয়টি ব্যাখ্যা করে বোঝাতে হবে। ঈশ্বর মানুষের হৃদয়ে বাস করেন এই কথাটি সম্পূর্ণ সঠিক, এমন দাবি আমি করব না, তবে এটি সম্পূর্ণ ভুলও নয়। কারণ, ঈশ্বরবিশ্বাসীদের মধ্যে এমন অনেকে আছে যাদের বিশ্বাস সত্য এবং অনেকে আছে যাদের বিশ্বাস মিথ্যা, এমন অনেকে আছে যাদেরকে ঈশ্বর অনুমোদন দেন এবং এমনও আছে যাদের তিনি তা দেন না, তারাও আছে যারা তাকে সন্তুষ্ট করতে পারে এবং এমনও অনেকে আছে যাদেরকে তিনি অপছন্দ করেন, এমন অনেকে আছে যাদের তিনি পূর্ণতা দান করেন, আবার অনেককেই তিনি পরিত্যাগ করেন। আর তাই আমি বলি যে ঈশ্বর শুধুমাত্র কিছু মানুষের হৃদয়েই বাস করেন যারা নিঃসন্দেহে ঈশ্বরবিশ্বাসী, যাদের ঈশ্বর অনুমোদন করেন, যারা তাঁকে সন্তুষ্ট করতে পারে এবং যাদের তিনি পূর্ণতা দান করেন। তারাই ঈশ্বরের দ্বারা পরিচালিত হয়। ঈশ্বরের দ্বারা পরিচালিত বলেই, তারা ইতিমধ্যে ঈশ্বরের অনন্ত জীবনের গতিপথ সম্পর্কে অবগত। যাদের ঈশ্বরবিশ্বাস মিথ্যা, যারা ঈশ্বরের দ্বারা অনুমোদিত নয়, যারা ঈশ্বরের দ্বারা অবহেলিত, যারা ঈশ্বর দ্বারা ত্যাজ্য—তারা ঈশ্বরের দ্বারা প্রত্যাখ্যাত হতে বাধ্য, তারা জীবনের গতিপথ ছাড়াই থাকতে বাধ্য, এবং ঈশ্বর কোথায় আছেন সে সম্পর্কে অজ্ঞ থাকতে বাধ্য। এর পরিবর্তে যাদের অন্তরে ঈশ্বর বাস করেন, তারা জানে তিনি কোথায় আছেন। তাদেরকেই ঈশ্বর অনন্ত জীবন যাপনের পথে চলার আশীর্বাদ দেন এবং তারাই ঈশ্বরকে অনুসরণ করে। এখন তুমি কি জানো ঈশ্বর কোথায় আছেন? ঈশ্বর মানুষের মনে এবং মানুষের পাশে উভয়ই স্থানেই আছেন। তিনি কেবল আধ্যাত্মিক জগতেই নন, সর্বত্রই তাঁর অবাধ বিচরণ, কিন্তু তাঁর উপস্থিতি সর্বাধিক মানুষের আবাসস্থল এই পৃথিবীতে। এবং তাই অন্তিম সময়ের আগমন ঈশ্বরের কর্ম পদক্ষেপকে এক নতুন শিখরে নিয়ে গেছে। সর্বত্র সমস্ত জিনিসের উপর ঈশ্বরের সার্বভৌমত্ব আছে এবং মানুষের হৃদয়ে তিনিই প্রধান অবলম্বন, অধিকন্তু, তিনি মানুষের মধ্যেই বিদ্যমান। কেবল এইভাবেই তিনি মানবজাতির মধ্যে জীবন যাপনের ধারা প্রবর্তন করেন এবং মানুষকে তার সঠিক জীবনের পথে নিয়ে আসেন। ঈশ্বর পৃথিবীতে এসে মানুষের মধ্যে বসবাস করেন, যাতে মানুষ জীবন যাপনের সঠিক পথে চলতে পারে এবং যাতে মানুষের অস্তিত্ব বজায় থাকে। পাশাপাশি, মানুষদের মধ্যে তাঁর ব্যবস্থাপনা নির্বিঘ্নে পরিচালনার জন্য ঈশ্বর সব কিছু নিয়ন্ত্রণ করেন। এবং তাই, যদি তুমি এই ধারণায় বিশ্বাস করো যে ঈশ্বর কেবলমাত্র স্বর্গে এবং মানুষের হৃদয়ে বাস করেন, তবুও মানুষের মধ্যে ঈশ্বরের অস্তিত্বের সত্যতা অস্বীকার করো, তাহলে তুমি কখনই জীবনের মূল্য অনুভব করতে পারবে না এবং কখনও সত্যের পথে চলতে পারবে না।

ঈশ্বর নিজেই জীবন, এবং সত্য এবং তাঁর জীবন ও সত্য একই সাথে সহাবস্থান করে। যারা সত্যের পথে চলতে অক্ষম তারা কখনও জীবনের মূল্য অনুভব করতে পারে না। সত্যের দিশানির্দেশ, সমর্থন এবং বিধান ব্যতীত, তুমি কেবল আক্ষরিক অর্থ, ধর্মীয় উপদেশ এবং সর্বোপরি মৃত্যুই লাভ করবে। ঈশ্বরের জীবন অবিনশ্বর এবং তাঁর সত্য ও জীবন সহাবস্থান করে। তুমি সত্যের উৎস উদ্ঘাটনে ব্যর্থ হলে, জীবনের রস অনুভব করতে পারবে না; জীবনের বিধান লাভ করতে না পারলে, নিশ্চিত ভাবে তোমার কাছে কোনও সত্যের উপলব্ধিই থাকবে না এবং তাই কল্পনা এবং ধারণা ব্যতীত, তোমার কাছে সম্পূর্ণ পার্থিব শরীর ছাড়া আর কিছুই থাকবে না—শুধু থাকবে এই পূতিগন্ধময় পার্থিব শরীর। তোমার জানা উচিত যে বইয়ের শব্দকে জীবন বলে না, ইতিহাসের নথিকে সত্য মনে করে শ্রদ্ধা করা যায় না এবং অতীতের নিয়মগুলিকে বর্তমানে ঈশ্বরের মুখ নিঃসৃত বাণীর পরিবর্তে ব্যবহার করা যায় না। পৃথিবীতে এসে মানুষের মধ্যে বসবাসের সময় ঈশ্বর যা প্রকাশ করেন তাই হল প্রকৃত সত্য, আসল জীবন, ঈশ্বরের ইচ্ছা এবং তাঁর বর্তমান কর্মপদ্ধতি। তুমি যদি অতীতে বলা ঈশ্বরের বাণীকে বর্তমানে প্রয়োগ করো, তাহলে তুমি এক প্রত্নতত্ত্ববিদ ছাড়া আর কিছুই নও, তোমাকে খুব বেশি হলে ঐতিহাসিক ঐতিহ্যের বিশেষজ্ঞ বলা যায়। কারণ তুমি সবসময় ঈশ্বরের অতীত কার্যকলাপের উপরেই বিশ্বাস রাখো, ঈশ্বর যে অতীতে মানুষের মধ্যে কাজ করেছিলেন শুধুমাত্র সেই কাজের ফলে পড়ে থাকা ছায়ায় উপর ভরসা রাখো এবং অতীতের দিনগুলিতে ঈশ্বর তাঁর অনুসারীদের যেমন পথ প্রদর্শন করেছিলেন শুধু তার উপরেই তোমার বিশ্বাস রয়েছে। তুমি আজকের দিনে ঈশ্বর প্রদত্ত কর্ম নির্দেশনায় বিশ্বাস করো না, বর্তমান যুগে ঈশ্বরের মহিমাময় কৃপাদৃষ্টিতে বিশ্বাস করো না এবং ঈশ্বর প্রদর্শিত আজকের যুগোপযোগী সত্যের পথেও বিশ্বাস করো না। আর তাই তুমি নিঃসন্দেহে এমন একজন দিবাস্বপ্ন দেখা ব্যক্তি, যার বাস্তবের সাথে কোনও সম্পর্কই নেই। তবু যদি তুমি এখনও মানুষের মধ্যে প্রাণসঞ্চারে অপারগ বাণীসমূহ আঁকড়ে ধরে থাকো, তবে তুমি নিষ্প্রাণ কাষ্ঠ খণ্ড[ক] ব্যতীত আর কিছুই নও, কেননা তোমার রক্ষণশীল মনোভাব প্রায় অপ্রতিরোধ্য, কোনও যুক্তির পরোয়াই করে না!

ঈশ্বরের পার্থিব রূপকেই খ্রিষ্ট বলা হয় এবং তাই যে খ্রিষ্ট মানুষকে সত্যের সন্ধান দেন তাকেই ঈশ্বর বলা হয়। এটি অতিশয়োক্তি নয়, কারণ তিনিই ঈশ্বরের সারসত্যের অধিকারী এবং তাঁর কাজের মধ্যেই প্রতিফলিত হয় ঈশ্বরের চরিত্র এবং জ্ঞান, যা মানুষের পক্ষে জানা অসাধ্য। যারা নিজেদেরকে খ্রিষ্ট বলে দাবি করে, কিন্তু ঈশ্বরের কাজে অপারগ, তারা আসলে প্রতারক। খ্রিষ্ট পৃথিবীতে নিছক ঈশ্বরের প্রকাশ নন, বরং ঈশ্বরের পার্থিব রূপ ধারণ করেই তিনি মানুষের মধ্যে ঈশ্বরের কর্মসম্পাদন করেন এবং সম্পূর্ণ করেন। এই পার্থিব শরীর যেকোনো মানুষ দ্বারা প্রতিস্থাপিত করা অসম্ভব, তিনিই তা করতে পারবেন যিনি যথাযথভাবে পৃথিবীতে ঈশ্বরের কর্ম সম্পাদন করতে পারেন, ঈশ্বরের প্রকৃত চরিত্র প্রকাশ করতে পারেন, যথাযথ ভাবে ঈশ্বরের প্রতিনিধিত্ব করতে পারেন এবং মানুষকে জীবনের প্রকৃত অর্থ প্রদান করতে পারেন। একদিন না একদিন, খ্রিষ্টের ছদ্মরূপ ধারণকারী প্রত্যেকের পতন অনিবার্য, কারণ তারা নিজেদের খ্রিষ্ট বলে দাবি করলেও, তাদের মধ্যে খ্রিষ্টের সারসত্যের ছিটেফোঁটাও থাকে না। আর তাই আমি বলি খ্রিষ্টের সত্যতা মানুষ সংজ্ঞায়িত করতে পারে না, বরং তার বিচার এবং সংজ্ঞা নির্ধারণ স্বয়ং ঈশ্বরের দ্বারাই করা সম্ভব। এইভাবে, তুমি সত্যিই জীবনের পথ খুঁজতে চাইলে অবশ্যই প্রথমে তোমাকে স্বীকার করতে হবে যে পৃথিবীতে এসে ঈশ্বর মানুষকে জীবন যাপনের পথের সন্ধান দেবার কাজ করেন এবং তোমাকে এটাও মানতেই হবে যে অন্তিম সময়ে ঈশ্বর পৃথিবীতে আসেন মানুষকে জীবন যাপনের সঠিক পথের সন্ধান দেবার জন্য। এটা কেবল অতীতেই নয়; আজও ঘটে চলেছে।

খ্রিষ্ট অন্তিম সময়ে প্রাণ সৃষ্টি করেন এবং সত্যের চিরস্থায়ী ও শাশ্বত পথ নিয়ে আসেন। এই সত্যের পথেই মানুষ জীবন লাভ করে এবং এটিই একমাত্র পথ যার দ্বারা মানুষ ঈশ্বরকে জানতে পারে এবং ঈশ্বরের দ্বারা অনুমোদিত হয়। যদি খ্রিস্ট অন্তিম সময়ে যে জীবন যাপনের পথের সন্ধান দিয়েছেন তাতে তুমি আগ্রহী না হও, তবে তুমি কখনই যীশুর অনুমোদন লাভ করতে পারবে না এবং স্বর্গরাজ্যে প্রবেশের যোগ্য কখনই বিবেচিত হবে না, তুমি কেবল ইতিহাসের হাতের পুতুল এবং বন্দী হয়েই থেকে যাবে। যারা নিয়ম-কানুন, লিখিত শব্দ এবং ইতিহাসের শৃঙ্খলে আবদ্ধ, তারা কখনই জীবনের রস আস্বাদন করতে পারে না বা অনন্ত জীবন যাপনের চিরস্থায়ী পথের সন্ধান পেতে পারে না। কারণ তাদের জীবন সিংহাসন থেকে প্রবাহিত প্রাণসঞ্চারী জলের পরিবর্তে হাজার হাজার বছর ধরে আবদ্ধ অস্বচ্ছ জলের মতোই ঘোলাটে হয়ে থেকে যায়। যাদের জীবনে এই প্রাণসঞ্চারী জলের সরবরাহ থাকে না তারা চিরকালই মৃতদেহের অনুরূপ, তারা শয়তানের খেলার সামগ্রী এবং নরকের সন্তান হয়েই থেকে যাবে। তাহলে তারা কীভাবে ঈশ্বরকে পাবে? যদি তুমি শুধুমাত্র অতীতকে আঁকড়ে ধরে রাখার চেষ্টা করো, শুধুমাত্র স্থির বস্তু ধরে রাখার চেষ্টা করো, স্থিতাবস্থা পরিবর্তনের বিষয়ে নিশ্চেষ্ট থাকো এবং ইতিহাসকে অগ্রাহ্য করো, তাহলে তুমি কি সর্বদা ঈশ্বরের বিরুদ্ধাচারী নও? ঈশ্বরের কর্মকাণ্ড বিশাল এবং শক্তিশালী, ঠিক উথালপাথাল ঢেউ এবং গর্জনকারী বজ্রের মতো—তবুও তুমি নিষ্ক্রিয়ভাবে ধ্বংসের অপেক্ষায় বসে আছো, নিজের অজ্ঞতা আঁকড়ে ধরে আছো এবং নিশ্চেষ্ট রয়েছ। এইভাবে, তুমি মেষশাবকের পদাঙ্ক অনুসরণকারীর মতো কীভাবে থাকতে পারো? তুমি কীভাবে সেই ঈশ্বরকে সমর্থন করতে পারবে যিনি সর্বদা নতুন এবং কখনও পুরানো হন না? হলুদ হয়ে যাওয়া জীর্ণ বইয়ের উদ্ধৃতি কীভাবে তোমাকে নতুন যুগে নিয়ে যেতে পারে? সেগুলি কীভাবে তোমাকে ঈশ্বরের কাজের পদক্ষেপগুলির সন্ধানে পরিচালিত করতে পারে? সেগুলি কীভাবে তোমার স্বর্গের পথ প্রশস্ত করতে পারে? তোমার নিজের হাতে ধরা বইগুলি শুধুই অক্ষরের সমাহার, যা কেবল অস্থায়ী শান্তি প্রদান করতে পারে, জীবনদায়ী সত্যের সন্ধান দিতে সক্ষম নয়। তোমার পড়া শাস্ত্রগুলি শুধুমাত্র তোমার জিহ্বাকে সমৃদ্ধ করতে পারে, মানব জীবনের প্রকৃত সত্য উদ্ঘাটনে সাহায্যকারী জীবন দর্শনের সন্ধান দিতে তারা অক্ষম, পরিপূর্ণতার অভিমুখে চলার পথ হবার যোগ্যতা তো এগুলির আরোই কম। এই অমিলগুলি কি তোমাকে ভাবনার রসদ জোগাতে পারে না? এটা কি তোমাকে অন্তর্নিহিত রহস্য বুঝতে সাহায্য করে না? তুমি কি নিজেকে স্বর্গে যাওয়ার যোগ্য এবং নিজের সামর্থ্যেই ঈশ্বরের সাথে দেখা করতে সক্ষম বলে মনে করো? ঈশ্বরের আগমন ব্যতীত তুমি কি ঈশ্বরের সাথে পারিবারিক সুখ উপভোগ করতে স্বর্গে নিজেকে নিয়ে যেতে পারবে? তুমি কি এখনও দিবাস্বপ্ন দেখছো? আমি পরামর্শ দিচ্ছি যে, তাহলে তুমি দিবাস্বপ্ন দেখা বন্ধ করে দেখো যে এখন কে কাজ করছেন—দেখো কে এখন অন্তিম সময়ে মানুষকে বাঁচানোর কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। তুমি এগুলো না পারলে কখনই সত্য উপলব্ধি করতে পারবে না এবং কখনও জীবনের রস আস্বাদন করতে পারবে না।

যারা খ্রিষ্টের বাণীর সত্যের উপর নির্ভর না করে জীবন লাভ করতে চায় তারা পৃথিবীর সবচেয়ে হাস্যকর মানুষ এবং যারা খ্রিষ্ট প্রদত্ত জীবন যাপনের পথের সন্ধান পেতে চায় না তারা অলীক কল্পনার জগতে বিভোর হয়ে আছে। তাই বলছি যে যারা অন্তিম সময়ে খ্রিষ্টকে গ্রহণ করে না তারা চিরকাল ঈশ্বরের দ্বারা ঘৃণার পাত্র হয়েই থাকে। অন্তিম সময়ে খ্রিষ্টই মানুষের কাছে রাজ্যের প্রবেশপথ, এবং কেউ তাঁকে পাশ কাটিয়ে যেতে পারে না। খ্রিষ্টের মধ্যস্থতা ছাড়া কেউ ঈশ্বরের দ্বারা পরিপূর্ণতা পেতে পারে না। তুমি ঈশ্বরে বিশ্বাস করলে, অবশ্যই তাঁর বাণী মেনে নেবে এবং তাঁর প্রদর্শিত পথের অনুবর্তী হবে। তুমি সত্য প্রাপ্তি না করে এবং জীবনের বিধান গ্রহণে অক্ষম হয়ে কেবল আশীর্বাদ লাভের কথা ভেবে যেতে পারো না। খ্রিষ্ট জীবনের অন্তিম সময়ে আসেন, তাঁর প্রকৃত অনুরাগীদের জীবনের রসাস্বাদন করানোর জন্য। তাঁর কাজ হল পুরানো যুগের পরিসমাপ্তি ঘটিয়ে নতুন যুগের সূচনা করা এবং নতুন যুগে প্রবেশ করা অনুরাগীদের অবশ্য অনুসরণীয় পথে চালিত করা। যদি তুমি তাঁকে মেনে নিতে অস্বীকার করো এবং তার পরিবর্তে তাঁর নিন্দা করো, তাঁর প্রতি অশ্রদ্ধা প্রদর্শন করো অথবা তাড়না করো, তাহলে তুমি অনন্তকাল জ্বলতে থাকবে এবং কখনই ঈশ্বরের রাজ্যে প্রবেশ করতে পারবে না। কারণ খ্রিষ্ট স্বয়ং পবিত্র আত্মার প্রতিরূপ, ঈশ্বরের মূর্ত প্রকাশ, এমন একজন যাকে ঈশ্বর পৃথিবীতে তাঁর হয়ে কাজ করার দায়িত্ব অর্পণ করেছেন। তাই আমি বলছি যে অন্তিম সময়ে খ্রিষ্টের কর্মকাণ্ড মেনে নিতে না পারার অর্থ পবিত্র আত্মার নিন্দা করা। যারা পবিত্র আত্মার নিন্দা করে তাদেরকে প্রদত্ত শাস্তির স্বরূপ সকলের কাছে স্বতঃসিদ্ধ। আমি তোমাকে এটাও বলছি, তুমি যদি অন্তিম সময়ের খ্রিষ্টকে প্রতিহত করো, যদি তুমি জীবনের অন্তিম সময়ে থাকা খ্রিষ্টকে প্রত্যাখ্যান করো, তবে তোমার পরিণতি বহন করার মতো আর কেউ থাকবে না। উপরন্তু, আজ থেকে তুমি ঈশ্বরের অনুমোদন লাভের আর কোনও সুযোগ পাবে না; এমনকি প্রায়শ্চিত্তের চেষ্টা করলেও, তুমি আর কখনও ঈশ্বরের মুখ দেখার সৌভাগ্য লাভ করবে না। কারণ তোমার প্রত্যাখ্যান করা, বর্জন করা ব্যক্তি কোনও সাধারণ মানুষ নন, তিনি মহামান্য খ্রিষ্ট। তুমি কি জানো এর পরিণতি কী হবে? তাহলে এটা কোনও ছোটখাটো ভুল হবে না, বরং একটি জঘন্য অপরাধ হবে। তাই আমি সবাইকে উপদেশ দিচ্ছি যে সত্যের সামনে অপলাপ কোরো না বা অযৌক্তিক সমালোচনা কোরো না, কারণ শুধুমাত্র সত্যই তোমাকে জীবন দিতে পারে এবং সত্য ব্যতীত অন্য কিছুই পুনর্জন্ম এবং পুনরায় ঈশ্বরের মুখ দেখার সৌভাগ্য দিতে পারবে না।

পাদটীকা:

ক. নিষ্প্রাণ কাষ্ঠ খণ্ড: একটি চীনা প্রবাদ, যার অর্থ “সাহায্য সীমার বাইরে চলে যাওয়া”

পূর্ববর্তী: তুমি কি জানো? ঈশ্বর মানুষের মধ্যে এক মহান কাজ করেছেন

পরবর্তী: তোমার নিয়তির জন্য যথাযথ ভালো কাজের প্রস্তুতি নাও

প্রতিদিন আমাদের কাছে 24 ঘণ্টা বা 1440 মিনিট সময় থাকে। আপনি কি ঈশ্বরের সান্নিধ্য লাভের জন্য তাঁর বাক্য শিখতে 10 মিনিট সময় দিতে ইচ্ছুক? অনুগ্রহ করে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। 😊

সম্পর্কিত তথ্য

ঈশ্বর হলেন মানুষের জীবনের উৎস

ক্রন্দনরত অবস্থায় এই জগতে ভূমিষ্ঠ হবার সময় থেকেই তুমি তোমার কর্তব্য পালন করা শুরু করো। ঈশ্বরের পরিকল্পনা ও তাঁর নির্ধারিত নিয়তি অনুসারে...

সেটিংস

  • লেখা
  • থিমগুলি

ঘন রং

থিমগুলি

ফন্টগুলি

ফন্ট সাইজ

লাইনের মধ্যে ব্যবধান

লাইনের মধ্যে ব্যবধান

পৃষ্ঠার প্রস্থ

বিষয়বস্তু

অনুসন্ধান করুন

  • এই লেখাটি অনুসন্ধান করুন
  • এই বইটি অনুসন্ধান করুন

Messenger-এর মাধ্যমে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন