ঈশ্বরের প্রতিদিনের বাক্য: অন্তিম সময়ের বিচার | উদ্ধৃতি 78

“বিচার” শব্দটি উল্লেখ করলেই তোমার মাথায় হয়ত সেই কথাগুলি আসতে পারে যা যিহোবা প্রতিটি অঞ্চলের মানুষদের নির্দেশ দেওয়ার জন্য বলেছিলেন এবং যীশু ফরীশীদের তীব্র তিরস্কার করার জন্য যে বাক্যের ব্যবহার করেছিলেন। যাবতীয় তীব্রতা সত্ত্বেও এই বাক্যগুলি মানুষের প্রতি ঈশ্বরের বিচার ছিল না; বরং সেগুলি ছিল ভিন্ন পরিবেশে, অর্থাৎ ভিন্ন ভিন্ন প্রেক্ষাপটে, ঈশ্বরের দ্বারা উচ্চারিত বাক্য। এই বাক্য অন্তিম সময়ে মানুষের বিচারের সময়ে খ্রীষ্টের বলা বাক্যের থেকে ভিন্ন। অন্তিম সময়ের খ্রীষ্ট মানুষকে শেখানোর জন্য, মানুষের উপাদান প্রকাশ করার জন্য এবং মানুষের কথা ও কাজের বিশ্লেষণ করার জন্য বিভিন্ন সত্য ব্যবহার করেন। এই বাক্যে বিভিন্ন সত্য অন্তর্ভুক্ত থাকে, যেমন মানুষের কর্তব্য, কীভাবে মানুষের ঈশ্বরকে মান্য করা উচিত, কীভাবে মানুষের ঈশ্বরের প্রতি বিশ্বস্ত থাকা উচিত, কীভাবে মানুষের স্বাভাবিক মানবতাসম্পন্ন জীবনযাপন করা উচিত, সেইসাথে থাকে ঈশ্বরের প্রজ্ঞা এবং স্বভাব ইত্যাদি বিষয়সমূহ। এই সমস্ত বাক্য মানুষের উপাদান এবং তার ভ্রষ্ট স্বভাবের দিকেই ইঙ্গিত করে। বিশেষ করে, সেই সমস্ত বাক্য, যা অনাবৃত করে মানুষ কীভাবে ঈশ্বরকে প্রত্যাখ্যান করেছে, তা আসলে এ সম্পর্কে কথা বলে যে কীভাবে মানুষ শয়তানের মূর্ত প্রতীক হয়ে উঠেছে এবং ঈশ্বরের বিরুদ্ধে শত্রু শক্তিতে পরিণত হয়েছে। তাঁর বিচারকার্যের সময়, ঈশ্বর কেবলমাত্র কয়েকটি বাক্যের মাধ্যমে মানুষের প্রকৃতি স্পষ্টভাবে ব্যক্ত করেন না; তিনি দীর্ঘমেয়াদে তা অনাবৃত করেন, মোকাবিলা করেন এবং তাদের অপ্রয়োজনীয় অংশের কর্তন করেন। অনাবৃতকরণ, মোকাবিলা এবং অপ্রয়োজনীয় অংশের কর্তনের এই সমস্ত ভিন্ন পদ্ধতি সাধারণ শব্দ দ্বারা প্রতিস্থাপিত করা যায় না, সেই সত্যের দ্বারাই প্রতিস্থাপিত করা যায় যার সম্পর্কে মানুষ একেবারেই অসচেতন। শুধুমাত্র এই ধরনের পদ্ধতিকেই বিচার বলা যেতে পারে; শুধুমাত্র এই ধরনের বিচারের মাধ্যমেই মানুষ ঈশ্বরের প্রতি অনুগত হতে পারে, তাঁর সম্বন্ধে দৃঢ়ভাবে নিশ্চিত হতে পারে, এবং ঈশ্বর সম্পর্কে প্রকৃত জ্ঞান লাভ করতে পারে। এই বিচারের কাজই প্রতিফলিত করে ঈশ্বরের আসল চেহারা সম্পর্কে মানুষের উপলব্ধি, এবং তার নিজের বিদ্রোহের সত্য। বিচারের কাজ মানুষকে ঈশ্বরের ইচ্ছা, তাঁর কাজের উদ্দেশ্য এবং তাঁর দুর্বোধ্য রহস্য সম্পর্কে অনেক বেশি করে বোঝার সুযোগ দেয়। এটি মানুষকে নিজের ভ্রষ্ট সারসত্য এবং সেই ভ্রষ্টাচরণের মূল চিনতে ও জানতে শেখায়, এবং সেইসাথে মানুষের কদর্যতা আবিষ্কার করতে শেখায়। এই সমস্ত প্রভাব বিচারের কাজের মাধ্যমে প্রতিভাত হয়, কারণ এই কাজের সারমর্ম হল ঈশ্বরের সত্য, পথ এবং জীবনকে তাঁর অনুগামীদের কাছে উন্মুক্ত করার কাজ। এই কাজ ঈশ্বরের বিচারের কাজ। তুমি যদি এই সত্যগুলিকে গুরুত্বপূর্ণ হিসাবে বিবেচনা না করো, যদি তুমি এগুলিকে এড়ানোর কথা ছাড়া অন্য কথা না ভাবো, বা এমন উপায় খুঁজতে থাকো যা এই সত্যের সাথে জড়িত নয়, তাহলে আমার মতে তুমি এক গুরুতর পাপী। যদি তুমি ঈশ্বরে বিশ্বাস করো, তবুও সত্য বা ঈশ্বরের ইচ্ছার সন্ধান না করো বা ঈশ্বরের নিকটবর্তী হওয়ার পথ বেছে না নাও, তবে তুমি আসলে বিচার এড়ানোরই চেষ্টা করছ এবং তুমি একটা হাতের পুতুল ছাড়া কিছুই না, তুমি সেই বিশ্বাসঘাতক যে বিরাট শ্বেত সিংহাসনের থেকে পালিয়েছে। ঈশ্বর তাঁর চোখের সামনে থেকে পালিয়ে যাওয়া কোনো বিদ্রোহীকেই রেহাই দেবেন না। এই ধরনের মানুষদের বরং আরও কঠোর শাস্তি পেতে হবে। বিচারের জন্য ঈশ্বরের সামনে আসা ব্যক্তিরা আরও শুদ্ধ হয়, তারা চিরকাল ঈশ্বরের রাজ্যে বাস করে। অবশ্য, এটি ভবিষ্যতের বিষয়।

—বাক্য, খণ্ড ১, ঈশ্বরের আবির্ভাব ও তাঁর কার্য, খ্রীষ্ট সত্যের দ্বারাই বিচারের কাজ করেন

প্রতিদিন আমাদের কাছে 24 ঘণ্টা বা 1440 মিনিট সময় থাকে। আপনি কি ঈশ্বরের সান্নিধ্য লাভের জন্য তাঁর বাক্য শিখতে 10 মিনিট সময় দিতে ইচ্ছুক? শিখতে আমাদের ফেলোশিপে যোগ দিন। কোন ফি লাগবে না।

সম্পর্কিত তথ্য

ঈশ্বরের প্রতিদিনের বাক্য: ঈশ্বরের কাজ সম্বন্ধে জানা | উদ্ধৃতি 142

অন্তিম সময়ের ঈশ্বরের অবতার প্রধানত এসেছেন তাঁর বাক্য বলতে, মানুষের জীবনে প্রয়োজনীয় সমস্ত কিছুর ব্যাখ্যা করতে, মানুষের কীসে প্রবেশ করা উচিত...

ঈশ্বরের প্রতিদিনের বাক্য: ঈশ্বরের স্বভাব এবং তিনি কে ও তাঁর কী আছে | উদ্ধৃতি 261

সর্বশক্তিমানের ইচ্ছায় এবং তাঁর দৃষ্টির অধীনে এই জগতের সব কিছুই দ্রুত পরিবর্তিত হয়। মানবজাতির অভিজ্ঞতায় নেই এমন বিষয় অকস্মাৎ উপস্থিত হয়,...

ঈশ্বরের প্রতিদিনের বাক্য: মানবজাতির দুর্নীতি উদ্ঘাটিত করা | উদ্ধৃতি 363

তোমাদের সকলকে এখন যত শীঘ্র সম্ভব নিজেদের অন্তরে দৃষ্টিপাত করে দেখতে হবে যে তোমাদের মধ্যে আমার প্রতি কতটা বিশ্বাসঘাতকতা রয়ে গিয়েছে। আমি...

Messenger-এর মাধ্যমে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন